যে কারণে পিসিওডির শিকার হচ্ছেন কম বয়সী মেয়েরাও - presscard | প্রেসকার্ড | press card news |

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 14 October 2021

যে কারণে পিসিওডির শিকার হচ্ছেন কম বয়সী মেয়েরাও


প্রেসকার্ড নিউজ ডেস্ক: অনিয়মিত জীবনধারা নারীদের স্বাস্থ্য নষ্ট করছে। মহিলারা এখন বেশি পরিমাণে পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের (পিসিওডি) শিকার হচ্ছেন। কোভিড ট্রানজিশন পিরিয়ডের পরে, এই রোগের ক্ষেত্র ১৫-২০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মধ্যে ১৫ থেকে ৩৫ বছর বয়সী মেয়েরাও রয়েছে। এই কারণে স্থূলতা বাড়ছে। এর সাথে, তারা অনিয়মিত মাসিক চক্র এবং গর্ভাবস্থা না আসার সমস্যায় বিরক্ত। বিশেষজ্ঞরা এমন ক্ষেত্রে জিমে না গিয়ে ডাক্তার দেখানোর পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ বেশিরভাগ মেয়েদের মধ্যে ডিম্বাশয়ে একটি সিস্ট (গলদ) থাকে, যা চিকিৎসা ছাড়া নিরাময় সম্ভব নয়।


কম বয়সী মহিলারা পিসিওডির শিকার হচ্ছে

বাবা রাঘব দাস (বিআরডি) মেডিক্যাল কলেজে এই রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১৫-২০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। অনিয়মিত জীবনধারা, তেল-মশলা, বেশি ভাজা জিনিস খাওয়া, মানসিক চাপ এবং গভীর রাতে জেগে থাকা এর কারণ।  ধূমপান এবং অ্যালকোহল সেবনও এই রোগের কারণ, যদিও এখন পর্যন্ত মেডিক্যাল কলেজে আসা মেয়েরা এবং মহিলারা কোন প্রকার নেশা করা অস্বীকার করেছেন।  অনেকেই জিম এবং বিউটি পার্লারে গিয়ে স্থূলতা নিরাময়ের চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু এর থেকে কোনও ভাবেই মুক্তি পাওয়া যায়নি।


মহিলারা অনিয়মিত মাসিক চক্র এবং স্থূলতায় ভুগছেন

চিকিৎসকরা তাদের এই বিষয়ে জিম এবং বিউটি পার্লারে না গিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ সময়মতো চিকিৎসা শুরু হলে রোগটি মারাত্মক রূপ নেয় না। ওষুধ দ্বারা সেরে যায়। কিন্তু যখন রোগটি বৃদ্ধি পায়, তখন অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয়। এটি ক্যান্সারের রূপও নিতে পারে।  এই রোগে মাসিক চক্র অনিয়মিত হয়ে যায়। ফলে গর্ভাবস্থায় সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়া পেটে ব্যথা, চুল পড়া এবং ত্বকের সমস্যাও এই রোগের লক্ষণ।


পিসিওডিতে, হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণে, ডিম্বাশয়ে একটি পিন্ড তৈরি হয়। এই কারণে মাসিক চক্র অনিয়মিত হয়ে যায় এবং গর্ভধারণের ক্ষমতা কমতে শুরু করে। যদি এই লক্ষণগুলি দেখা যায়, অবিলম্বে ডাক্তার দেখানো উচিৎ।  প্রাথমিকভাবে ওষুধ দিয়েও এই রোগ নিরাময় করা যায়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad