দূষণের কারণে শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়? শ্বাসযন্ত্রকে কিভাবে রক্ষা করবেন শিখুন - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 12 May 2022

দূষণের কারণে শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়? শ্বাসযন্ত্রকে কিভাবে রক্ষা করবেন শিখুন


ধুলো, মাটি ও দূষণের সবচেয়ে খারাপ প্রভাব পড়ে আমাদের শ্বাসতন্ত্রের ওপর।  দূষণের কারণে সাধারণ মানুষকে নানা জটিল রোগে পড়তে হচ্ছে।  এর মধ্যে রয়েছে হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি।  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, বিশ্বের ৯০ শতাংশ মানুষ দূষিত বাতাসে শ্বাস নেয়।  দরিদ্র বায়ুর গুণমান স্বাস্থ্যের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।  দূষিত বায়ু চোখ, নাক, গলা এবং অন্যান্য অনেক শ্বাসকষ্টের রোগের কারণ হতে পারে।  কিন্তু দূষিত বাতাসের কারণে আপনার শ্বাস নিতে সমস্যা না হয়, সেজন্য কিছু ব্যবস্থা অনুসরণ করা যেতে পারে।  আসুন দ্য নিউ মি-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও গগন ধাওয়ানের কাছ থেকে জেনে নেওয়া যাক, কোন ব্যবস্থাগুলি দূষিত বায়ু থেকে শ্বাসযন্ত্রকে রক্ষা করতে পারে।


 ১. বিকেলে বাইরে যাওয়া এড়িয়ে চলুন


 দূষিত বাতাস এড়াতে বিকেলে বাইরে যাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত।  বিকেলের দিকে বায়ু দূষণের মাত্রা বেশি থাকে, এতে শ্বাস নিতে অসুবিধা হতে পারে।  তাই বিকেলে বাড়ি বা অফিসের বাইরে যাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত।  এটি দিয়ে আপনিও প্রখর রোদ থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারেন।


 ২. বায়ু গুণমান সূচক পরীক্ষা করুন


 আপনার যদি শ্বাসকষ্টের সমস্যা থাকে, তাহলে ঘর থেকে বের হওয়ার আগে বায়ুর গুণমান সূচক পরীক্ষা করুন।  এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স স্বাভাবিক হলে, আপনি প্রস্থান করতে পারেন।  কিন্তু বাতাসে যদি দূষিত কণা থাকে, তাহলে এই অবস্থায় ঘর থেকে বের হওয়া এড়িয়ে চলুন।  এর জন্য আপনি সঠিক সময়ের জন্য অপেক্ষা করতে পারেন।  এর সাথে, খুব প্রয়োজন না হলে, দূষিত বাতাসে বের হওয়া এড়িয়ে চলুন।


 ৩. ধূমপান এড়িয়ে চলুন


 ধূমপান শ্বাসকষ্ট বাড়াতে পারে।  সিগারেটের ধোঁয়া ফুসফুস, শ্বাসতন্ত্রের ক্ষতি করে, শ্বাস নিতেও অসুবিধা হতে পারে।  এজন্য আপনার ধূমপান পুরোপুরি বন্ধ করা উচিত।  ধূমপান রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।  দূষিত বায়ু এড়িয়ে চলুন, শ্বাসকষ্টের ক্ষেত্রে ধূমপান এড়িয়ে চলুন।


 ৪. ব্যায়াম


 আপনি ব্যায়াম বা ব্যায়াম করেও দূষিত বাতাস থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারেন।  নিয়মিত ব্যায়াম করলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে, শ্বাসকষ্টও দূর হয়।  ব্যায়াম করে, আপনি আপনার শ্বাসযন্ত্রকে শক্তিশালী করতে পারেন।  দূষিত বাতাস থেকে আপনার ফুসফুস, শ্বাসতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে আপনি নিয়মিত ব্যায়াম, যোগব্যায়াম এবং প্রাণায়াম করতে পারেন।


 ৫. বাষ্প


 শ্বাসযন্ত্রকে শক্তিশালী করতে আপনার বাষ্প গ্রহণ করা উচিত।  বাষ্প নিঃশ্বাস নিলে গলায় উপস্থিত ময়লা সহজেই বেরিয়ে যায়।  শ্বাসকষ্টের সমস্যাও চলে যায়।  দূষিত বায়ু থেকে নিজেকে রক্ষা করতে আপনি বাষ্প নিতে পারেন।


 ৬. খাদ্যের যত্ন নিন


 একটি ভাল খাদ্যের মাধ্যমে, আপনি আপনার শ্বাসযন্ত্রকে শক্তিশালী করতে পারেন।  দূষিত বায়ু এড়াতে একটি ভাল খাদ্যও প্রয়োজন।  এর জন্য সবুজ শাকসবজি, গুড়, আদা, তুলসী ইত্যাদি খেতে পারেন।  এছাড়া সাইট্রাস ফল, ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবারও দূষিত বাতাস থেকে রক্ষা করে।  এগুলি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, যার কারণে শ্বাসযন্ত্র শক্তিশালী হয়।

 

  ৭. মাস্ক পরতে হবে


 দূষিত বায়ু শ্বাসযন্ত্র বা ফুসফুসের ক্ষতি করে এড়াতে মাস্ক পরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  মাস্ক পরলে দূষিত বাতাস আমাদের শরীরে প্রবেশ করতে বাধা দেয়।  এটি আমাদের সবসময় সুস্থ রাখে।


 দূষিত বাতাসে শ্বাস নেওয়ার ফলে শ্বাসতন্ত্রের ক্ষতি হয়।  এমন পরিস্থিতিতে, দূষিত বায়ু এড়াতে আপনি উপরে উল্লিখিত ব্যবস্থাগুলি চেষ্টা করতে পারেন।  এটি আপনাকে দূষিত বাতাস থেকে দূরে রাখবে এবং দ্রুত অসুস্থ হবে না।  এছাড়াও, শ্বাসকষ্টের সমস্যা তাড়াতাড়ি হবে না।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad