রক্তের pH মান কত হওয়া উচিত? কমবেশি হলে স্বাস্থ্যের উপর এর প্রভাব জেনে নিন - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 10 May 2022

রক্তের pH মান কত হওয়া উচিত? কমবেশি হলে স্বাস্থ্যের উপর এর প্রভাব জেনে নিন


শরীরকে সুস্থ ও রোগমুক্ত রাখতে শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সুস্থ রাখা খুবই জরুরি।  এ ছাড়া শরীরের মধ্যে হরমোন, রক্তের মাত্রা এবং অন্যান্য সবকিছুর ভারসাম্য বজায় রাখা প্রয়োজন।  অনেক ধরনের অ্যাসিডও শরীরে থাকে।  শরীরের অন্দরে উপস্থিত অ্যাসিডের মাত্রায় ভারসাম্যহীনতা দেখা দিলে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।  একইভাবে শরীরকে রোগমুক্ত ও সুস্থ রাখতে পিএইচ মান ভারসাম্য রাখা খুবই জরুরি।  আপনি যদি বিজ্ঞান নিয়ে পড়ে থাকেন তবে রসায়নে আপনি অবশ্যই বিভিন্ন রাসায়নিকের pH মান এবং আরও অনেক কিছু সম্পর্কে পড়েছেন।  অনেকে পানির pH মান সম্পর্কেও সচেতন হবেন।  পানির পিএইচ মান যেমন ৭ হওয়া উচিত, ঠিক একইভাবে শরীরের পিএইচ মান এবং শরীরের মধ্যে উপস্থিত রক্তের ভারসাম্য থাকা উচিত।  আসুন এই নিবন্ধের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক রক্তের পিএইচ মান কী এবং রক্তের পিএইচ মান কী হওয়া উচিত?


 পিএইচ মান কি? 


 রাসায়নিক উপাদান দ্বারা গঠিত এই বিশ্বের সবকিছুর একটি pH মান আছে।  বাবু ঈশ্বর শরণ হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ চিকিৎসক ডাঃ সমীর বলেন, কোনো কিছুর পিএইচ মান স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি বা কম হলে তাতে অম্লতা বা ক্ষারত্ব বেশি বা কম থাকতে পারে।  pH মান মানে হাইড্রোজেনের শক্তি।  সহজ ভাষায় একে হাইড্রোজেনের শক্তিও বলতে পারেন।  এর মানে হল যে কোন কিছুর pH মান যদি ১ বা ২ হয় তবে তা আরও অম্লীয় এবং একই pH মান ১৩ বা ১৪ হলে তার মানে হল এটি আরও ক্ষারীয়।  এ ছাড়া কোনো কিছুর pH মান ৭ হলে তা নিরপেক্ষ বলে ধরা হয়।  যদি আমরা আমাদের শরীরের ত্বকের pH মান সম্পর্কে কথা বলি, তাহলে ত্বকের pH মান ৫ এর কম হলে তা অ্যাসিডিক ত্বক হিসাবে বিবেচিত হবে, যেখানে এই pH মান ১৩ হলে আপনার ত্বকে ক্ষারীয় বৈশিষ্ট্য রয়েছে।  এসপিএল সোরেনসন নামের একজন বিজ্ঞানী গবেষণাগারে গবেষণার সময় পিএইচ মান আবিষ্কার করেন।  সহজ কথায়, যে কোনো শব্দের তীব্রতা মাপার জন্য যেমন ডেসিবেল ব্যবহার করা হয়, দূরত্ব পরিমাপ করতে মিটার বা কিলোমিটার ব্যবহার করা হয়, ঠিক একইভাবে যেকোনো রাসায়নিক পদার্থের অম্লতা ও ক্ষারত্ব পরিমাপ করতে ব্যবহৃত হয় pH মান।


 রক্তের pH মান কত হওয়া উচিত?  


 শরীরে উপস্থিত রক্তের pH মান ভারসাম্যহীন হলে আপনার রক্ত ​​কম অম্লীয় বা ক্ষারীয় হয়ে উঠতে পারে।  রক্তের pH মান ৭.৩৫ থেকে ৭.৪৫ পর্যন্ত হওয়া উচিত।  এর চেয়ে কম বা বেশি হলে ভারসাম্যহীন বলে বিবেচিত হয়।  বিভিন্ন রক্তের গ্রুপের উপর নির্ভর করে এর pH মানও ভিন্ন হতে পারে।  যেকোনো ধরনের রোগ বা সমস্যার কারণে রক্তের পিএইচ মান পরিবর্তন হতে পারে।  যখন আমাদের রক্তের pH মান স্বাভাবিক থাকে, তখন আমাদের শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলিও ঠিকমতো কাজ করে। 


 মানুষের রক্তের ph পরিসরের প্রভাব


 যখন শরীরে রোগের জন্য রক্ত ​​পরীক্ষা করা হয়, তখন তার ভিত্তি হয় pH মান।  রক্তের স্বাভাবিক pH মান ৭.৩৫ হওয়া উচিত কিন্তু যখন আপনার কোনো ধরনের রোগ বা স্বাস্থ্য সংক্রান্ত কোনো সমস্যা থাকে তখন এর মান কম-বেশি হতে পারে।  রক্তের পিএইচ মান কম হলে আপনারও অনেক সমস্যা হতে পারে।  ডায়াবেটিস, কিডনি রোগ, হাঁপানি এবং সংক্রমণ ইত্যাদি হলে রক্তের পিএইচ মান পরিবর্তিত হয়।  এ ছাড়া জ্বর, ম্যালেরিয়া বা ডেঙ্গুর সমস্যায়ও রক্তের পিএইচ মান ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে।  রক্তের পিএইচ মান ভারসাম্যহীন হলে, আপনার বমি এবং ডায়রিয়া, ফুসফুসের ক্ষতি, কিডনি রোগ এবং প্রস্রাবের সংক্রমণ সম্পর্কিত সমস্যা হতে পারে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad