প্রধানমন্ত্রীর চোখে জল! বাবার মুখে মেয়ের স্বপ্নের কথা শুনে আবেগাপ্লুত মোদী - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 12 May 2022

প্রধানমন্ত্রীর চোখে জল! বাবার মুখে মেয়ের স্বপ্নের কথা শুনে আবেগাপ্লুত মোদী


 প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বৃহস্পতিবার উৎকর্ষ সমারোহের মাধ্যমে গুজরাটের ভারুচের মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ সময় আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী মোদী। আসলে, এই প্রকল্পের সুবিধাভোগী আইয়ুব প্যাটেলের সঙ্গে কথা বলছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। তিনি তার মেয়েদের এবং তাদের পড়াশোনার কথা বলেছিলেন। তিনি জানান, তার এক মেয়ে ডাক্তার হতে চায়। প্রধানমন্ত্রী কন্যা আলিয়ার সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। প্রধানমন্ত্রী জানতে চাইলেন আপনার মাথায় ডাক্তার হওয়ার ভাবনা কীভাবে এলো? এ বিষয়ে আলিয়া বলেন, বাবার কষ্ট দেখেই ডাক্তার হওয়ার ভাবনা এসেছিল। সৌদি আরবে আইয়ুবের চোখে ভুল ড্রপের কারণে মাত্র ৫ শতাংশ আলো বাকি ছিল। এই বলে আলিয়া কাঁদতে থাকে। কিছুক্ষণের জন্য আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রীও। তিনি জব এবং তার কন্যাদের প্রশংসা করেন এবং আরও বলেন যে কন্যাদের স্বপ্ন পূরণে তার যদি কিছু সাহায্যের প্রয়োজন হয় তবে তিনি সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে বলতে পারেন। 



এ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই উৎকর্ষ অনুষ্ঠান তারই প্রমাণ যে, সরকার যখন আন্তরিকভাবে, সংকল্প নিয়ে সুবিধাভোগীর কাছে পৌঁছায়, তখন কত ফলপ্রসূ ফল পাওয়া যায়। আমি ভারুচ জেলা প্রশাসনকে অভিনন্দন জানাই, গুজরাট সরকারকে সামাজিক নিরাপত্তা সম্পর্কিত ৪টি প্রকল্পের শতভাগ স্যাচুরেশনের জন্য। প্রায়শই তথ্যের অভাবে অনেক লোক প্রকল্পের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়। অনেক সময় পরিকল্পনা কাগজে কলমে রয়ে যায়। কিন্তু যখন উদ্দেশ্য পরিষ্কার হয়, নীতি পরিষ্কার থাকে, ভালো কাজ করার ইচ্ছা থাকে, সবার উন্নয়নের চেতনা থাকে, তখন ফলও দেয়। দিল্লি থেকে দেশের সেবা করে ৮ বছর পূর্ণ করছি। এই ৮ বছর সেবা, সুশাসন এবং দরিদ্র কল্যাণে নিবেদিত ছিল। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ২০১৪ সালে আপনারা যখন আমাদের সেবা করার সুযোগ দিয়েছিলেন, তখন দেশের প্রায় অর্ধেক জনগোষ্ঠী টয়লেট সুবিধা, টিকা, বিদ্যুৎ সংযোগ সুবিধা, ব্যাংক হিসাব থেকে বঞ্চিত ছিল। সকলের প্রচেষ্টার কারণে, অনেক স্কিম ১০০% স্যাচুরেশনের কাছাকাছি আনতে সক্ষম হয়েছে। দেশটি ১০০% সুবিধাভোগীদের কাছে পৌঁছানোর সংকল্প নিয়েছে। আপনি যখন ১০০% পৌঁছান, তখন প্রথম মানসিক পরিবর্তন আসে, সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এতে দেশের নাগরিক আবেদনকারীর অবস্থা থেকে বেরিয়ে যায়। আমি আগেও বলেছি যে এই ধরনের কাজগুলি কঠিন, এমনকি রাজনীতিবিদরাও তাদের হাতে হাত দিতে ভয় পান। তবে আমি রাজনীতি করতে আসিনি, দেশবাসীর সেবা করতে এসেছি। দেশটি ১০০% সুবিধাভোগীদের কাছে পৌঁছানোর অঙ্গীকার নিয়েছে। আমাদের সরকার সামাজিক নিরাপত্তা, জনকল্যাণ এবং দরিদ্রদের মর্যাদার জন্য। দরিদ্রদের মর্যাদার জন্য সংকল্প এবং দরিদ্রদের মর্যাদার মূল্যবোধ, এটিই আমাদের অনুপ্রাণিত করে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad