সন্তানদের সুস্বাস্থ্যের জন্য এই ৬টি বিশেষ অভ্যেস, উপকার পাবেন সারাজীবন - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 11 May 2022

সন্তানদের সুস্বাস্থ্যের জন্য এই ৬টি বিশেষ অভ্যেস, উপকার পাবেন সারাজীবন


একজন অভিভাবক হিসেবে, আপনার সবচেয়ে বড় উদ্বেগ হল কীভাবে শিশুর স্বাস্থ্য ভালো রাখা যায় এবং তাদের লালন-পালনও সঠিকভাবে করা যায়।  খাবার থেকে শুরু করে ব্যায়াম, ঘুম এবং স্কুলে যাওয়া, বাবা-মাকে অনেক কিছুর যত্ন নিতে হয় যাতে শিশুটি সুশৃঙ্খল এবং সুস্থ থাকে তবে এটি সহজ নয় তাই আপনাকে শিশুকে শেখাতে হবে কীভাবে আর কী খাবেন এবং আপনার রুটিন অনুসরণ করুন তাই যাতে আপনিও দুশ্চিন্তা মুক্ত থাকেন এবং আপনার বাচ্চারাও ভালো অভ্যাস শিখতে পারে।


 শিশুদের এই অভ্যাস শেখান


 ১. সুষম খাদ্য


 সুষম খাদ্য আপনার সন্তানের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  এটি তাদের সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সহায়তা করে এবং শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়।  আপনার শিশুকে বিভিন্ন ধরণের খাবারের সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া উচিত যাতে তারা ভিন্ন স্বাদের বিকাশ ঘটায়।  আপনার তাদের প্রক্রিয়াজাত খাবার দেওয়া এড়ানো উচিত কারণ তারা চিনি, সোডিয়াম, ক্যালোরি এবং খারাপ চর্বি দ্বারা লোড হয়।  পরিবর্তে, তাদের খাদ্যতালিকায় প্রোটিন, ভেষজ, দুধ, তাজা ফল এবং শাকসবজি এবং পুরো শস্য অন্তর্ভুক্ত করুন।  এছাড়াও, তাদের মধ্যে এমন একটি অভ্যাস গড়ে তুলুন যাতে তারা তাদের নিজস্ব খাবারে প্রাকৃতিক জিনিস গ্রহণ করে।


 ২. চিনি কম খাওয়া


 বাচ্চাদের ঠান্ডা পানীয় এবং এনার্জি ড্রিংক না খাওয়ার অভ্যাস শেখান কারণ এটি তাদের দাঁতের ক্ষতি করতে পারে।  এতে শিশুদের মিষ্টি দাঁতের বিকাশ ঘটতে পারে, যা ডায়াবেটিস এবং দাঁতের ক্ষয়ের মতো রোগের কারণ হতে পারে।  এছাড়াও, এটি হাড়কে দুর্বল করতে পারে, যা শরীরে অতিরিক্ত চিনির কারণে ক্যালসিয়াম কম শোষণের কারণে হয়।


 ৩. অতিরিক্ত খাওয়া প্রতিরোধ করুন


 ভাল পুষ্টির জন্য, অনেক সময় বাবা-মায়েরা বাচ্চাকে প্লেটে পুরো খাবার খাওয়ার জন্য জিজ্ঞাসা করেন বা বকাঝকা করেন।  এমন পরিস্থিতিতে, ভয়ের কারণে, বাচ্চারা পুরো প্লেট খাবার খাওয়ার জন্য অতিরিক্ত খাওয়ার প্রবণতা রাখে, যার ফলে পেটের সমস্যা এবং স্থূলতা হতে পারে।  অনেক সময় শিশুরা বেশি খাবার খেতে না পারলে খাবার নষ্ট করে বা ফেলে দেয়, তাই শিশুদের নিজেদের মতো করে খাবার খেতে দিন এবং খাবারে স্বাস্থ্যকর জিনিস অন্তর্ভুক্ত করতে শেখান।


 ৪. এক সাথে খুব বেশি না খাওয়া


 দিনে তিন বেলা পেট ভরে খাওয়ার পরিবর্তে অল্প সময়ে কিছু খাওয়ার অভ্যাস তৈরি করুন শিশুদের।  এর ফলে খাবারের হজম ভালো হয় এবং বাচ্চাদেরও ক্ষুধা লাগে।  এর থেকেও অনেক রোগ দূরে রাখা যায়।  এর পাশাপাশি শিশুর ওজনও নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং শরীরের ওজনও থাকে সুস্থ।


 ৫. শারীরিক কার্যকলাপ


 আপনার বাচ্চাদের সর্বদা ব্যস্ত এবং সক্রিয় থাকতে অনুপ্রাণিত করুন।  তাদের খেলার জন্য পাঠান কারণ বন্ধুদের সাথে খেলা দলগত কাজ এবং খেলাধুলার বিকাশ ঘটায়।  আপনার বাচ্চাদের জন্য অন্তত টিভি এবং কম্পিউটারের সময় নির্ধারণ করা উচিত।  পর্দা থেকে দূরে থাকলে তার স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে এবং তিনি সৃজনশীল কাজে সময় দিতে পারবেন।


 ৬. পর্যাপ্ত ঘুম 


 পর্যাপ্ত ঘুম পাওয়া শিশুদের জন্য সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ যেমন এটি ছোট শিশুদের সুস্থ বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয়।  আপনার বাচ্চাদের তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যাওয়া এবং তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস শেখান।  এটি তাদের জন্য একটি ভাল রুটিন তৈরি করতে সাহায্য করবে, যা তারা পরবর্তী জীবনে অনুসরণ করতে সক্ষম হবে।


 এ ছাড়া বাচ্চাদের খাবারের প্লেট ধোয়ার অভ্যাস বা নিজের মেস পরিষ্কার করার অভ্যাস শেখান।  এ ছাড়া, তাদের মধ্যে বড়দের সম্মান করা এবং তাদের আনুগত্য করার মতো আচার-অনুষ্ঠান গড়ে তুলুন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad