কুর্নিশ! চায়ের ঘুমটি চালিয়ে দিন পাত করছেন ৯১ বছরের বৃদ্ধা - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 2 August 2022

কুর্নিশ! চায়ের ঘুমটি চালিয়ে দিন পাত করছেন ৯১ বছরের বৃদ্ধা


কেরালার আলাপুজা জেলার দেবীকুলঙ্গারা গ্রামে, 91 বছর বয়সী থাঙ্গাম্মা একটি অস্থায়ী ডাম্পে সকাল 5 টায় চা বানিয়ে জীবিকা অর্জনের জন্য তার প্রতিদিনের সংগ্রাম শুরু করে। তার মেয়ে বসন্তকুমারী (68) তাকে জীবন যাপনের চলমান প্রচেষ্টায় সাহায্য করে। দুপুর 2.30 টার পর আম্মার দোকান থেকে বিভিন্ন সুস্বাদু প্রাতঃরাশের সুগন্ধ আসে, যার মধ্যে বিভিন্ন ধরণের ভাদা থেকে শুরু করে কলার ডাম্পলিং এর মতো সুস্বাদু এবং সুস্বাদু খাবার।


সাহসিকতাকে স্যালুট


থাঙ্গাম্মা গণমাধ্যমকে বলেন, 'সড়ক দুর্ঘটনায় আমরা সব হারিয়েছি। আমাদের আবার সব শুরু করতে হয়েছিল। পঞ্চায়েত আমাদের দুর্দশার কথা জানে। তাদের অনুমতি নিয়ে আমরা এখানে এই গোমতী চালাচ্ছি। সকালে আমরা শুধু চা বিক্রি করি। দুপুর দুই বা আড়াইটার পর আমরা নাস্তা বানানো শুরু করি। সন্ধ্যা নাগাদ সব বিক্রি হয়ে যায়। ওষুধ খাওয়ার পর রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত দোকান বন্ধ রাখি। আমরা দিনের বেলায় যে অর্থ উপার্জন করি তা দিয়ে আমাদের প্রথমে দুধের জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে এবং তারপরে অন্যান্য দোকান থেকে কেনা সরবরাহের জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে। এভাবেই আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনযাপন করি।


থাকার জন্য কোন বাড়ি নেই


তিনি বলেন, টিনজাত দুধ ব্যবহার করে চা তৈরি হয় না। পরিবর্তে তারা গরুর দুধ ব্যবহার করে। 91 বছর বয়সী মহিলা বলেছিলেন যে তিনি গত 17 বছর ধরে গুমতি চালাচ্ছেন এবং এটি না থাকলে তারা অনাহারে মারা যাবে। তাদের কোনো বাড়ি-জমি না থাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকেন।


এর জন্যে দুঃখিত


বৃদ্ধ মহিলা বলেছিলেন যে পঞ্চায়েত বাড়ি তৈরির জন্য জমি কেনার জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বরাদ্দ করেছে, তবে তা যথেষ্ট নয় এবং তাদের কাছে যোগ করার মতো কোনও অর্থ নেই। চায়ের দোকান থেকে উপার্জন ছাড়াও, তার আয়ের একমাত্র উৎস হল কৃষককে 1,600 টাকা পেনশন, যা সে ওষুধ ইত্যাদি কিনতে ব্যবহার করে।

সে ভেজা চোখে বলল, 'বাচ্চাদের আমাকে সাহায্য করার কিছু নেই।'


সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশংসা


আম্মার গল্প সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পরে, লোকেরা বৃদ্ধ বয়সের এই পর্যায়ে এত সক্রিয় থাকার জন্য থাঙ্গামার প্রশংসা করতে ক্লান্ত হয় না। ইন্টারনেটের মাধ্যমে কেরালার রাস্তায় বেরিয়ে আসার পর সারা দেশেই আলোচিত হচ্ছে বুড়ো আম্মার এই রোজকার রুটিন। এমতাবস্থায় তাদের সরকারি সাহায্যের দাবি করছেন কেউ কেউ। তাই তার আত্মাকে সালাম জানাচ্ছেন অনেকেই।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad