শ্রদ্ধা খুন মামলা: মাথার সন্ধান মেলেনি, আফতাবের বন্ধু-সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট খুঁজছে পুলিশ - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 15 November 2022

শ্রদ্ধা খুন মামলা: মাথার সন্ধান মেলেনি, আফতাবের বন্ধু-সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট খুঁজছে পুলিশ



হৃদয় বিদারক শ্রদ্ধা খুন মামলার অভিযুক্ত আফতাব পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে যে সে তার প্রেমিকা শ্রদ্ধাকে খুন করেছে।  পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আফতাব একটানা ইংরেজিতে কথা বলছিলেন।  অভিযুক্ত আফতাবকে ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।


 

দিল্লী পুলিশ সূত্রে খবর, আফতাবের অন্য বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে পুলিশ।  এছাড়া আফতাবের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট স্ক্যান করে তথ্য সংগ্রহে নিয়োজিত রয়েছে পুলিশ।  শ্রদ্ধার সঙ্গে সম্পর্কের আগে আফতাবের কোনও মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল সে বিষয়েও তথ্য সংগ্রহ করছে পুলিশ।  পুলিশ তার ৪ বন্ধুর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছে যারা শ্রদ্ধার সাথে সম্পর্কের আগে তার সাথে দেখা করেছিল।


 

খুনের দিন তাদের দুজনের পরা পোশাক খুঁজে বের করতে হবে পুলিশকে।  এর পাশাপাশি পুলিশ আফতাবকে জঙ্গলে নিয়ে যাবে, যেখানে সে দেহের টুকরোগুলো ফেলে দিয়েছিল।  আফতাবের বাড়ি থেকে সব জুতা ও চপ্পল নিয়ে গেছে পুলিশ।  জুতা চপ্পল এফএসএল পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।  জুতা ও চপ্পলের মাটি ও জঙ্গলের মাটি মিলে যাবে, যাতে প্রমাণ করা যায় যে তিনি জঙ্গলে গিয়েছিলেন।



দিল্লী পুলিশ এখনও শ্রদ্ধার মৃত দেহের মাথা খুঁজে পায়নি।  মাথা খুঁজছে পুলিশের দল।  শ্রদ্ধা খুন মামলার তদন্তকারী পুলিশ গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণ পেয়েছে।  মেহরাউলি জঙ্গল থেকে শ্রদ্ধার শরীরের কিছু হাড় উদ্ধার করা হয়েছে।  এখানে আফতাব শ্রদ্ধাকে টুকরো টুকরো করে ফেলে দিয়েছিল বলে অভিযোগ।  যে কাপড়ে শ্রদ্ধার দেহ কেটে টুকরো টুকরো করা হয়েছিল সেই কাপড় এবং শ্রদ্ধার রক্তমাখা কাপড় ডাস্টবিনে ফেলে দিয়েছিল আফতাব।  দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত তাদের উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।


 

 হৃদয় বিদারক এই ঘটনায় জানা যায়, আফতাব শ্রদ্ধার দেহ টুকরো টুকরো করার পর সোডিয়াম হাইপো ক্লোরাইড দিয়ে গোটা বাড়ি ধুয়ে দিয়েছিলেন।  পুলিশ যাতে কোনও প্রমাণ খুঁজে না পায় সেজন্য তিনি এমনটি করেছিলেন।  শ্রাদ্ধ মামলার অভিযুক্ত আফতাব ইন্টারনেট থেকে সোডিয়াম হাইপো ক্লোরাইডের তথ্য বের করেছিল।  এটি এমন একটি রাসায়নিক, যা ব্যবহারের পর ফরেনসিক দলের পক্ষেও প্রমাণ পাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে।


 

শ্রদ্ধা হত্যাকাণ্ডে আরও একটি বড় ঘটনা ঘটেছে যে আফতাব ডেক্সটার নামের ধারাবাহিকের দ্বারা প্রভাবিত ছিলেন।  এ কারণে তিনি দেহ নিষ্পত্তি করার ধারণা পান, পরে তিনি টুকরো টুকরো করে দেহ ফেলে দেন।




পুলিশ সূত্রে খবর, আফতাব খুবই চালাক।  পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনি নার্ভাস অনুভব করেননি।  জিজ্ঞাসাবাদে এখন আফতাব পুলিশকে বলে- "হ্যাঁ আমি তাকে মেরেছি"।



 পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ১৮ মে শ্রদ্ধার সঙ্গে আফতাবের ঝগড়া হয়।  মারামারির পর তাকে শ্বাসরোধ করে খুন করে।  শ্বাসরোধে কিছুক্ষণের মধ্যেই শ্রদ্ধার মৃত্যু হয়।  খুনের পর আফতাব শ্রদ্ধার দেহ টেনে বাথরুমে লুকিয়ে রাখে।  তিনি এমনটি করেছেন যাতে কেউ এর মধ্যে বাড়িতে এলেও তাকে সন্দেহ না করে। পরে করাত আনার পর তিনি শ্রাদ্ধের দেহ ৩৫টি টুকরো করে কেটে ফ্রিজে রেখে দেন, যাতে গন্ধ না বের হয়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad