জামিয়ায় বিবিসি ডকুমেন্টারি দেখাতে চেয়েছিল SFI, গ্রেফতার ১৩ ছাত্র - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 26 January 2023

জামিয়ায় বিবিসি ডকুমেন্টারি দেখাতে চেয়েছিল SFI, গ্রেফতার ১৩ ছাত্র



বিবিসি ডকুমেন্টারি বিতর্ক দিল্লীতে অব্যাহত।  বুধবারই ১৩ ছাত্রকে গ্রেফতার করেছে দিল্লী পুলিশ।  স্টুডেন্ট ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ার (এসএফআই) ঘোষণার পর এই ছাত্ররা ডকুমেন্টারি স্ক্রিন করার প্রস্তুতি নিচ্ছিল।  একইভাবে আরও কয়েকজন শিক্ষার্থীকেও পুলিশ আটক করেছে।  এই ছাত্রদের বিরুদ্ধে জামিয়ার বাইরে স্লোগান দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।  জেএনইউ-তে এই তথ্যচিত্র নিয়ে বিতর্কের একদিন পরে জামিয়ার বাইরে এই বিকাশ ঘটেছে। পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে, জামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানীয় পুলিশের পাশাপাশি প্যারা মিলিটারি ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে, যখন দাঙ্গাবিরোধী স্কোয়াডকে সতর্ক করা হয়েছে। 




 অন্যদিকে, কলেজ ম্যানেজমেন্টও অনেক শিক্ষার্থীকে ক্যাম্পাসে প্রবেশে বাধা দেয়।  যদিও এই শিক্ষার্থীরা বারবার বলেছিল যে তাদের ডকুমেন্টারি দেখার কোনও পরিকল্পনা নেই।  বিএ ছাত্রী সাদিয়া জানান, তাকে ক্যাম্পাসে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়।  তিনি বলেন, পরীক্ষা দিতে হবে।  অনেক শিক্ষার্থী প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে পৌঁছায়।  কিন্তু গেট থেকেই সব ছাত্রকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।  বিক্ষোভ করতে গিয়ে বিকেলে পাঁচ শিক্ষার্থীকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ।  ডিসিপি সাউথ ইস্ট ইশা পান্ডে জানিয়েছেন, জামিয়ার ছাত্রদের একটি দল ডকুমেন্টারিটি স্ক্রিন করতে যাচ্ছিল।  যদিও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আগেই তা নিষিদ্ধ করেছিল।  এরই ধারাবাহিকতায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, কিছু ছাত্র বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে।  এ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ১৩ শিক্ষার্থীকে আটক করে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে।



পুলিশ জানায়, ক্যাম্পাসে গুন্ডামি দেখে পুলিশ প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে।  মাত্র ১৩ জন ছাত্রকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে।  কয়েকজন শিক্ষার্থীকেও আটক করা হলেও জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।  সকল ছাত্র-ছাত্রীদের শান্তি বজায় রাখার হুঁশিয়ারি দিয়েছে পুলিশ।  অন্যদিকে ছাত্র নিশান্ত প্রশ্ন তুলেছেন, কিছু ছাত্র যদি এই ছবিটি দেখতে চায়, তাহলে সরকার ও প্রশাসনের সমস্যা কী?  এটাকে অযথা ইস্যু বানানো হচ্ছে।  নিশান্তের কথায়, এসএফআই ডকুমেন্টারি দেখানোর ঘোষণা করেছিল।  এ ঘোষণার পর কলেজ কর্তৃপক্ষ লন এলাকা বন্ধ করে দিয়েছে।  সেখানে পুলিশ ক্যাম্প করেছে।  যদিও এর কোনও প্রয়োজন ছিল না।


 

 পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যেই ক্যাম্পাসের ভেতরে চলচ্চিত্র প্রদর্শনের জন্য একটি ভ্যান বসিয়েছে।  কেউ ব্যবস্থা লঙ্ঘনের চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সতর্ক করেছেন।  জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার ভিসি নাজমা আখতার স্পষ্টভাবে বলেছেন যে তিনি কোনও অবস্থাতেই ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে কোনও অশান্তি চান না।  ক্যাম্পাসে শিশুরা পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে।  এমতাবস্থায় যে কোনও মূল্যে আমাদের এখানে শান্তি বজায় রাখা উচিৎ।



 এসএফআই বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় তথ্যচিত্রটি প্রদর্শনের পরিকল্পনা করেছিল।  কিন্তু যথাসময়ে খবর পেয়ে পুলিশ সতর্ক হয়ে মাঝপথে সকল বিক্ষোভকারীদের থামিয়ে দেয়।  এসএফআই-এর তরফে জানানো হয়েছে, ছয়জন কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।  এসবকে বিভিন্ন থানায় রাখা হয়েছে।  এসএফআই জারি করা বিবৃতিতে বলেছে যে সংস্থার দ্বারা কোনও অন্যায় করা হয়নি বা কোনও ধরণের ভুল করার কোনও পরিকল্পনা নেই।  শুধু তাই নয়, তার প্রতিষ্ঠানকে ভ্যানও করা হয়নি।  এর পরও পুলিশ তাদের কর্মকাণ্ডে বাধা দিচ্ছে।  এসএফআই দিল্লী রাজ্য কমিটির এই বিবৃতিতে, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রক্টর আতিকুর রহমান বলেছেন যে ক্যাম্পাসে শান্তি রয়েছে এবং এই শান্তির জন্য বিক্ষোভ বন্ধ করা হয়েছে।  তিনি বলেন, আমরা ইতোমধ্যে শিক্ষার্থীদের বলেছি, এ সব জাতির বিরুদ্ধে এবং ক্যাম্পাসে এ ধরনের কিছু হতে দেওয়া হবে না।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad