আসামি ছাড়িয়ে দেওয়ার নামে লক্ষ টাকা আত্মসাৎ! তৃণমূল সভাপতির বিরুদ্ধে নালিশ পরিবারের - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 24 April 2022

আসামি ছাড়িয়ে দেওয়ার নামে লক্ষ টাকা আত্মসাৎ! তৃণমূল সভাপতির বিরুদ্ধে নালিশ পরিবারের


উত্তর ২৪ পরগনা: পুলিশের হাত থেকে আসামি ছড়িয়ে দেওয়ার নাম করে লক্ষ টাকা নেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বাগদা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির বিরুদ্ধে। অভিষেক বন্দোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী ও জেলা সভাপতির কাছে লিখিত অভিযোগ জানাল পরিবার। অভিযোগ অস্বীকার সভাপতির।


বাগদার হরিহরপুরের বাসিন্দা আজমিরা মন্ডল বনগাঁ জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি গোপাল শেঠের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তার অভিযোগ ইংরেজি ১৭ ই এপ্রিল রাতে তার বাড়িতে বাগদা থানার পুলিশ হানা দিয়ে তার স্বামী আতিয়ার মন্ডলকে তুলে নিয়ে আসে। পরের দিন সকালে স্থানীয় নাসির বিশ্বাস নামে এক যুবকের কাছে আজমিরা মন্ডল ও তার ছেলে গেলে, নাসির বাগদা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি গোপা রায়ের কাছে নিয়ে যায়। 


তাঁর অভিযোগ, গোপা রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা নিয়ে আসার জন্য বলে, না নিয়ে এলে স্বামীকে গাঁজা কেস দেবে বলে জানায়। এরপর ১ লক্ষ টাকা গোপা রায়ের হাতে দেয়, তা সত্বেও তার স্বামী আতিয়ার মন্ডলকে কেস দিয়ে কোর্টে পাঠায়। নাসির বিশ্বাস বাগদা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি গোপা রায়ের সাগরেদ বলেও দাবী করেছেন অভিযোগকারী। 


তারা অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, দীর্ঘদিন যাবত তৃণমূল কংগ্রেস এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর আস্থাবান। নগদ অর্থ যাতে তারা ফেরত পেতে পারে, তার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে।


আতিয়ার মণ্ডলের ছেলে জসীম উদ্দিন মন্ডল জানায়, সে এবং তার মা- নাসির বিশ্বাস ও গোপা রায়ের কাছে নগদ টাকা দিয়েছিল। টাকা ফেরত চাইতে গেলে নাসির বলছে, 'পারলে আদায় করে নিস'। 


যদিও গোপা রায়ের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এই বিষয়ে কিছু জানেন না। বাগদাতে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারণেই এই অভিযোগ বলে দাবী করেন তিনি। 'পুলিশ তদন্ত করে দেখুক যদি দোষী হই সাজা মাথা পেতে নেব', বলেন গোপা রায়।


এই বিষয়ে বনগাঁ জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি গোপাল শেঠ বলেন, 'এ বিষয়ে আমার কাছে একটি অভিযোগ এসেছে, আমি সেটা সঠিক কিনা তদন্ত করতে সঠিক দপ্তরের কাছে পাঠিয়েছি।'

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad