লাউডস্পিকার বিতর্ক: মন্দির হোক বা মসজিদ, কড়া নির্দেশ যোগী সরকারের - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 26 April 2022

লাউডস্পিকার বিতর্ক: মন্দির হোক বা মসজিদ, কড়া নির্দেশ যোগী সরকারের


মহারাষ্ট্র থেকে উত্তরপ্রদেশে লাউডস্পিকার বিতর্কের মধ্যেই বড় উদ্যোগ নিল যোগী সরকার। উত্তরপ্রদেশের মন্দির-মসজিদসহ সব ধর্মীয় স্থানে নির্ধারিত মান অনুযায়ী লাউডস্পিকার কম ভলিউমে বাজতে বলেছে সরকার। নিয়ম লঙ্ঘন করলে, সেগুলো নামিয়ে দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত 100 টিরও বেশি লাউডস্পিকার নামিয়ে আনা হয়েছে, হাজার হাজারের আওয়াজ কম করা হয়েছে।


 সরকার এই ধরনের ধর্মীয় স্থানগুলির একটি থানা-ভিত্তিক তালিকা তৈরি করার নির্দেশ দিয়েছে, যেখানে শব্দ সীমার নিয়ম মানা হচ্ছে না। উল্লেখ্য, অতীতে রাম নবমী এবং হনুমান জয়ন্তী উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা এবং উত্তেজনাপূর্ণ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে যোগী সরকারকে অবিলম্বে সতর্ক করা হয়েছিল। দেশের সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য উত্তরপ্রদেশের অনেক জেলাকে এই ক্ষেত্রে খুবই স্পর্শকাতর বলে মনে করা হয়। এই বিষয়টি মাথায় রেখে, উৎসবে শান্তি বজায় রাখতে 4 মে পর্যন্ত সমস্ত পুলিশ অফিসারের ছুটি বাতিল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। পাশাপাশি যেকোনও ধর্মীয় মিছিল বা শোভাযাত্রার জন্য আয়োজকের কাছ থেকে হলফনামা নেওয়ার এবং ধর্মীয় উপাসনালয়ে নিয়ম মেনে চলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


 সরকার ধর্মীয় স্থানে লাউডস্পিকার ব্যবহারের জন্য একটি নির্দেশিকা জারি করেছে, তা মন্দির, মসজিদ বা অন্য কোনও ধর্মীয় সম্প্রদায়েরই হোক না কেন। নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী, মাজারে বাজানো লাউডস্পিকারের শব্দ ওই জায়গার বাইরে যাওয়া চলবে না। দেশের বিভিন্ন স্থানে বিতর্কের পর ইউপিতে করা তদন্তে দেখা গেছে, অনেক ধর্মীয় স্থানে নির্ধারিত নিয়ম লঙ্ঘন করে ব্যাপক হারে লাউডস্পিকার বাজানো হচ্ছে।


অতিরিক্ত মুখ্য সচিব স্বরাষ্ট্রসচিব অবনীশ কুমার অবস্থির তরফে এই বিষয়ে একটি আদেশ জারি করা হয়েছে। এতে, জেলা পর্যায়ে ধর্মস্থলগুলিতে নিয়ম মেনে চলার সাপ্তাহিক পর্যালোচনা করতে এবং 30 এপ্রিলের মধ্যে প্রথম কমপ্লায়েন্স রিপোর্ট সরকারের কাছে পাঠাতে বলা হয়েছে। জেলার রিপোর্ট বিভাগীয় কমিশনারদের মাধ্যমে সরকারের কাছে এবং কমিশনারেটের রিপোর্ট পুলিশ কমিশনারের মাধ্যমে পাঠানো হবে।  


আদেশে বলা হয়েছে, 'ধর্মীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ ও সমন্বয়ের ভিত্তিতে অবৈধ লাউডস্পিকার অপসারণ করতে হবে এবং নির্ধারিত ডেসিবেল অনুসরণ করতে হবে। আমরা প্রায় 125টি লাউডস্পিকার সরিয়ে দিয়েছি এবং মানুষ স্বেচ্ছায় প্রায় 17,000 লাউডস্পিকারের ভলিউম কমিয়েছে।'

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad