খাওয়ার পরপরই শুয়ে পড়া কি ঠিক হবে? জেনে নিন এই বিষয়ে - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 11 May 2022

খাওয়ার পরপরই শুয়ে পড়া কি ঠিক হবে? জেনে নিন এই বিষয়ে


আজকাল আমাদের জীবনযাত্রা এতটাই ব্যস্ত হয়ে পড়েছে যে আমরা আমাদের স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে পারি না।  লোকেরা খুব সকালে অফিসে যায় এবং রাতে দেরিতে আসে।  তারপর পরের দিন সকালে তাড়াতাড়ি অফিসে যাওয়ার প্রেক্ষিতে, তারা রাতে তাড়াতাড়ি খেয়ে ঘুমাতে যায়।  এমন অবস্থায় খাবার সঠিকভাবে হজম হতে এবং শরীরের অন্যান্য অংশে পৌঁছানোর সময় পায় না, যার কারণে ধীরে ধীরে অনেক রোগ আপনাকে ঘিরে ফেলতে পারে।  এ ছাড়া অনেকেরই দুপুরে খাওয়ার পরপরই ঘুমানোর অভ্যাস রয়েছে।  এটি আপনার জন্য বিপজ্জনকও হতে পারে।  আপনার মনে রাখা উচিৎ যে খাবারের পর খাবার হজম হতে ৩-৪ ঘন্টা সময় লাগে, তবে আপনি যদি এই সময়ের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন তবে খাবারটি উভয় অন্ত্রে সঠিকভাবে হজম হয় না এবং খাবারের পুষ্টি আপনার সারা শরীরে বিতরণ করা হয়। উপাদানগুলি ভালভাবে পৌঁছায় না।  এই বিষয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করছেন ডঃ রাজীব ছাবরা, আর্টেমিল হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ, গুরগাঁও এবং আরোগ্য ডায়েট, দ্বারকার ডাঃ সুগীতা মুত্রেজা।


 খাওয়ার পর ঘুমানোর অসুবিধা


 দুপুরে বা রাতের খাবারের পরপরই ঘুমানোর অনেক অসুবিধা রয়েছে।  এর ফলে আপনার শরীরও অনেক রোগের আবাসস্থল হয়ে উঠতে পারে।  তাই আপনিও যদি এমনটি করেন তবে সাবধান।


 ১. পরিপাকতন্ত্র প্রভাবিত হয়


 আপনি যদি দুপুরের খাবার বা রাতের খাবারের পরপরই ঘুমিয়ে পড়েন, তাহলে আপনার পরিপাকতন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়।  এ কারণে আপনার খাবার ভালোভাবে হজম হয় না।  আসলে, ঘুমানোর পরপরই শরীরে কোনো কাজ হয় না, যার কারণে শরীরে খাবার হজম হতে বেশি সময় লাগে এবং ঘুম থেকে ওঠার পরও আপনি সতেজ অনুভব করেন না।


 ২. হার্টের সমস্যা


 ডাঃ সুগীতার মতে, খাবার খাওয়ার সাথে সাথে ঘুমালে খাবার হজমে সাহায্য করে না এবং আপনি যদি বেশি তৈলাক্ত খাবার খান তবে তা আপনার হার্টের সমস্যাও হতে পারে।  এটি আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে পারে, যা আপনার হার্ট স্ট্রোক, ব্লক এবং অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ায়।


 ৩. অ্যাসিডিটির সমস্যা


 খাবার খেয়ে একটু হাঁটাহাঁটি করলে খাবার ভালোভাবে হজম হয়, কিন্তু ঘুমের কারণে ব্যাপারটা খারাপ হয়ে যেতে পারে।  এটি অ্যাসিডিটির সমস্যা বাড়ায় কারণ শুয়ে থাকার ফলে অ্যাসিড রিফ্লাক্স হয়, যার ফলে বদহজম, গ্যাস এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও শুরু হয়।


 ৪. ওজন বৃদ্ধি

 খাবার খাওয়ার সাথে সাথে ক্যালোরি পোড়া হয় না, যার কারণে হঠাৎ করেই আপনার ওজন অনেক বেড়ে যায়।  তারপর ব্যায়াম করলেও আপনার ওজন সহজে কমে না, তাই সবসময় চেষ্টা করুন কিছু কাজ করার বা খাবার খেয়ে কিছুক্ষণ হাঁটার।


 ৫. অনিদ্রা এবং ক্লান্তি

 বদহজমের কারণে খাবার খাওয়ার পরপরই ভালো ঘুম হয় না, তারপর ধীরে ধীরে অনিদ্রার অভিযোগ শুরু হয়।  অনিদ্রার কারণে আপনার রুটিন ব্যাহত হতে পারে এবং উচ্চ রক্তচাপের সমস্যাও হতে পারে।


 ৬. ডায়াবেটিসের সমস্যা


 খাওয়ার পরপরই ঘুমিয়ে পড়লে রক্তে চিনির পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে কারণ ঘুমের কারণে শরীর অতিরিক্ত চর্বি ও চিনি হজম করতে পারে না, যা আপনাকে ডায়াবেটিসের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।  খাওয়ার পরে শারীরিক কার্যকলাপ প্রয়োজন।


খাওয়ার পর কিভাবে ঘুমাবেন


আপনি যদি খুব ক্লান্ত হয়ে থাকেন, তাহলে ডাঃ সুগীতার মতে, আপনি সোফা বা চেয়ারে বসে দুপুরের খাবারের পর কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিতে পারেন, তবে আপনার বিছানায় ঘুমানো উচিৎ নয়।  হ্যাঁ, তবে দুপুরে বা রাতের খাবারের পর যদি বয়স্ক, শিশু বা গর্ভবতী মহিলারা ঘুমাতে চান তাহলে ঘুমাতে পারেন।  এ ছাড়া যদি কোনো অসুস্থ ব্যক্তি থাকে বা ডাক্তার খাবার খেয়ে বিশ্রাম নিতে বলে থাকেন, তাহলে এমন ব্যক্তিদের অবশ্যই বিশ্রাম নিতে হবে।  ডাঃ রাজীবের মতে, একজন সুস্থ ব্যক্তির রাতের খাবারের মাত্র ২-৩ ঘন্টা ঘুমানো উচিত, তাই রাতের ৬-৭ টার মধ্যে ডিনার করার চেষ্টা করুন।  আপনি যদি খুব দেরি করে খান, তবে খুব হালকা খাবার খান এবং কমপক্ষে 1 ঘন্টা পর ঘুমানোর চেষ্টা করুন।  এতে আপনার স্বাস্থ্য ভালো থাকব।


খাওয়ার পর কিভাবে ঘুমাবেন বা বসবেন


খাওয়ার পর কখনই পেট বা পিঠে ভর দিয়ে ঘুমাবেন না।  এটি খেলে হজমে সমস্যা হতে পারে।  এছাড়াও, আপনার পেটে ব্যথা হতে পারে।  খাওয়ার পর সর্বদা আপনার পাশে ঘুমানোর চেষ্টা করুন বা আপনি যদি খাওয়ার পরে বসতে চান তবে খুব শিথিল ভঙ্গিতে বসুন।  আপনার পায়ের উপর বসবেন না বা ভুল অবস্থানে বসবেন না।  এটি পেটে ব্যথা বা ভারী হওয়ার অনুভূতি হতে পারে।  সর্বদা হালকা খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন যাতে আপনি ভারী বোধ না করেন।




 খাবার খাওয়ার পর কোন আসন করা উচিৎ?


 খাবার খাওয়ার পর বজ্রাসন করলে অনেক উপকার পাওয়া যায়।  এর ফলে খাবার ভালোভাবে হজম হয়।  এর সাথে, আপনি শক্তিও পাবেন এবং পায়ের পেশীগুলিও স্বস্তি পাবে।  এর সাহায্যে ওজনও নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং বদহজমের সমস্যা হয় না।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad