তাজমহল মামলা: 'এরপর বলবেন জজের চেম্বারে যেতে হবে', আবেদনকারীকে তীব্র ভর্ৎসনা হাইকোর্টের - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 12 May 2022

তাজমহল মামলা: 'এরপর বলবেন জজের চেম্বারে যেতে হবে', আবেদনকারীকে তীব্র ভর্ৎসনা হাইকোর্টের


উত্তরপ্রদেশের আগ্রায় তাজমহলের ২২টি কক্ষ খোলার আবেদনের ওপর এলাহাবাদ হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চে শুনানি হয়। এই আবেদনে, আদালতের কাছে দাবী করা হয়েছে যে, বছরের পর বছর ধরে বন্ধ থাকা ২২টি কক্ষ খুলে দেওয়া হোক এবং আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া (ASI) দ্বারা এর তদন্ত করা হোক।


শুনানির সময়, আদালত আবেদনকারীদের তাদের আবেদনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে বলেন। আদালত বলে, 'আজ তাজমহলের ঘর দেখার দাবী করছেন, কাল বলবেন বিচারকের চেম্বারে যেতে হবে।' আদালত আবেদনকারীকে বলে, তিনি গিয়ে যেন এমএ, নেট জেআরএফ করেন এবং তারপর গবেষণায় এমন একটি বিষয় বেছে নিন। এরপর যদি কোনও ইনস্টিটিউট তাদের এই গবেষণা করতে বাধা দেয়, তাহলে আমাদের কাছে আসুন।'


হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চে বিচারপতি ডি কে উপাধ্যায় এবং সুভাষ বিদ্যার্থীর বেঞ্চ এই বিষয়ে শুনানি করেন। আদালতে শুনানিতে, আবেদনকারী রজনীশ সিংয়ের আইনজীবী বলেছেন যে, দেশের নাগরিকদের তাজমহল সম্পর্কে সত্য জানা দরকার। আবেদনকারী বলেন, 'আমি অনেক আরটিআই ফাইল করেছি। আমি জানতে পেরেছি যে অনেক কক্ষ বন্ধ রয়েছে এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল যে নিরাপত্তার কারণে এটি করা হয়েছে।'


আবেদনকারী বলেন, 'তাজমহলে যদি কিছু লুকানো থাকে, তবে জনসাধারণকে সে সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।' একই সঙ্গে আইনজীবী বলেন, 'আমি আওরঙ্গজেবের একটি চিঠি দেখেছি, যা তিনি তার বাবাকে লিখেছিলেন।' আদালত বলে যে, 'আবেদনকারীকে তার আবেদনেই সীমাবদ্ধ থাকতে হবে। আপনি দরজা খুলতে আদেশের জন্য বলছেন। আপনি একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির দাবী করছেন।'


এর জবাবে, ইউপি সরকারের কৌঁসুলি বলেন, 'আগ্রায় এই মামলায় ইতিমধ্যে একটি মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে এবং আবেদনকারীর এটির কোনও এখতিয়ার নেই।' একইসঙ্গে আবেদনকারী বলেন, জমিটি ভগবান শিব বা আল্লাহর সঙ্গে সম্পর্কিত, তা নিয়ে আমি কথা বলছি না। আমার প্রধান সমস্যা হল সেই বন্ধ কক্ষগুলি এবং আমাদের সকলের জানা উচিৎ সেই ঘরগুলির পিছনে কী রয়েছে।


এর পরে, দুই বিচারপতির বেঞ্চ আবেদনকারীকে এমএ করতে যেতে এবং তারপরে এমন একটি বিষয় বেছে নিতে বলে। এও বলে, 'কোনও প্রতিষ্ঠান বাধা দিলে আমাদের কাছে আসুন।' আদালত জিজ্ঞাসা করেন, কার কাছে তথ্য চাইছেন? এর জবাবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আবেদনকারী মো. এ বিষয়ে আদালত বলেন, তারা যদি বলে থাকেন নিরাপত্তাজনিত কারণে কক্ষগুলো বন্ধ করা হয়েছে, তাহলে এটাই তথ্য। আপনি যদি সন্তুষ্ট না হন তবে চ্যালেঞ্জ করুন। আপনি এমএ করুন তারপর নেট, জেআরএফ করুন এবং যদি কোনও বিশ্ববিদ্যালয় আপনাকে এই বিষয়ে গবেষণা করতে বাধা দেয় তবে আমাদের কাছে আসুন।'


আদালত বলে, 'আপনি কি বিশ্বাস করেন যে তাজমহল শাহজাহান তৈরি করেননি? তাজমহলের বয়স কত বা কে বানালো সেই রায় দিতে আমরা কি এখানে এসেছি? আপনি আমাদের সেইসব ঐতিহাসিক তথ্য বলুন, যেটা আপনি মানেন।' আদালত বলে, 'আবেদনকারীকে তার আবেদনেই সীমাবদ্ধ থাকতে হবে। আপনি দরজা খুলতে আদেশ দেওয়ার জন্য বলছেন। আপনি একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির দাবী করছেন।'


আবেদনকারী বলেন, আমাদের ওই কক্ষে যাওয়ার অনুমতি দিন। এ নিয়ে আদালত কটাক্ষ করে বলেন, আগামীকাল আপনারা বলবেন, আমাদের মাননীয় বিচারপতির চেম্বারে যেতে হবে। দয়া করে পিআইএল সিস্টেম নিয়ে মজা করবেন না।'


আবেদনকারী বলেন, 'আমাকে একটু সময় দিন, এ বিষয়ে কিছু সিদ্ধান্ত দেখাতে চাই।' এ বিষয়ে আদালত বলেন, 'এই পিটিশনটি মিডিয়ায় আলোচনার বিষয় রয়ে গেছে এবং এখন আপনি এসব করছেন। আপনি এই ইস্যুতে আমার বাড়িতে আসুন এবং আমরা এটি নিয়ে বিতর্ক করব তবে আদালতে নয়।' এরপর দুপুর ২টা পর্যন্ত আবেদনকারীকে সময় দিয়েছেন আদালত।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad