এক বিরল রোগ! এই রোগে রোগীর কোন ব্যথা অনুভব হয় না - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 1 May 2022

এক বিরল রোগ! এই রোগে রোগীর কোন ব্যথা অনুভব হয় না

 





পৃথিবীর সব প্রাণীরই, আঘাত পেলে অবশ্যই ব্যথা হবে। হাত-পা ভেঙ্গে পড়ুক বা শরীরে সূঁচ ঠেকে গেলেও ব্যাথা হবেই। যদি কেউ বেশি আঘাত পায় তাহলে তার বেশি ব্যথা করে আর কেউ কম আঘাত করলে কম ব্যথা পায়, তবে ব্যথা অবশ্যই হয়। কিন্তু কেউ যদি আঘাত পেলেও ব্যথা না অনুভব করে তাহলে কী হবে? হ্যাঁ, ইংল্যান্ডের নরউইচে ৯ বছর বয়সী এক শিশুর একই রকম সমস্যা আছে।  শহরে বসবাসকারী এই শিশুটি যতই আঘাত পাক না কেন সে কোন ব্যথা অনুভব করে না।আপনি যদি ভাবছেন যে শিশুটির কোনো পরাশক্তি আছে তাহলে আপনি ভুল।আসলে শিশুটির একটি খুব বিরল কিন্তু অদ্ভুত রোগ আছে।  যার কারনে কোন প্রকার ব্যথা সে অনুভব করে না।




 আপনি অবশ্যই অনেক ছবিতে দেখেছেন যে অভিনেতারা আশ্চর্যজনক সুপারপাওয়ার পায়, যেখানে তারা আঘাত পেলেও ব্যথা অনুভব করেন না বা আঘাত পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্ষত মেরামত হয়, তবে এই শিশুর ক্ষেত্রে এটি একেবারেই নয়। জন্মগত তার  ব্যথার প্রতি সংবেদনশীলতা একটি বিরল রোগ আছে। যা ১০ লাখের মধ্যে মাত্র একজন এই রোগে আক্রান্ত হয়।  এ রোগে আক্রান্ত রোগীর শরীরে সুচ লাগলেও বা হাত-পা ভেঙে গেলেও কোনো ধরনের ব্যথা অনুভব করে না।



 টিকা দেওয়ার পরও কাঁদেনি শিশুটি


 এই বিরল রোগে আক্রান্ত শিশুটির নাম জ্যাক স্কিটমোর।  মিররের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জ্যাকের বাবা-মা বলেছিলেন যে জ্যাকের বয়স যখন ৬ বছর তখন তারা এই রোগ সম্পর্কে জানতে পারে।  যদিও সাধারণত দেখা যায় শিশুরা টিকা দেওয়ার পর কাঁদে, কিন্তু জ্যাক একেবারেই কাঁদেননি।  এরআগে, যখন তার বয়স প্রায় এক বছর, সে ভুলবশত তার দাঁত দিয়ে তার জিভ কামড়াল, কিন্তু তা সত্ত্বেও সে কিছুই অনুভব করল না।  অতঃপর যখন তার বয়স প্রায় ৬ বছর, তখন তার শরীরের একটি হাড় তার স্থান থেকে সরে যায়, কিন্তু তারপরও তিনি উঠে দাঁড়ায় এবং হাঁটতে থাকে।



তারপর যখন তার বাবা-মা তার ভাঙ্গা পা লক্ষ্য করে,তাকে ডাক্তারের কাছে দেখান।  এর পরে তারা জানতে পারেন যে বাস্তবে জ্যাকের এমন একটি বিরল রোগ রয়েছে, যা এক মিলিয়নে একজনের হয়ে থাকে এবং সেই রোগে রোগীর কোনও ব্যথা অনুভব হয় না।  রিপোর্ট অনুযায়ী, জ্যাক যে বিরল রোগে আক্রান্ত, ব্রিটেনে তার কোনো চিকিৎসা নেই, তাই তার বাবা-মা তাকে আমেরিকা নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করার কথা ভাবছেন।

  


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad