শসা দিয়ে ত্বকের যত্ন - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 24 May 2022

শসা দিয়ে ত্বকের যত্ন


স্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বকের জন্যও শসা খুবই উপকারী। ত্বকে এটি ব্যবহারের অনেক উপকারিতা রয়েছে। শসাতে প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, এছাড়াও তারা ভিটামিন সি এবং ফলিক অ্যাসিডের মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পুষ্টিতে সমৃদ্ধ। শসার সাহায্যে আপনি অনেক ধরনের ফেসপ্যাক তৈরি করতে পারেন। 


কিভাবে শসা দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করবেন

এক্সফোলিয়েশনের জন্য

এটি তৈরি করতে আপনার শসা, ওটমিল এবং মধু লাগবে। এজন্য ব্লেন্ডার বা ফুড প্রসেসরে অর্ধেক খোসা ছাড়ানো শসা রেখে ব্লেন্ড করে নিন। এর পিউরি তৈরি করতে হবে। এবার চালনির সাহায্যে রস আলাদা করে নিন। এখন শসার রসে 1 টেবিল চামচ ওটমিল যোগ করুন এবং একটি পেস্ট তৈরি না হওয়া পর্যন্ত এটি ভালভাবে মেশান। এবার এই পেস্টে ১ টেবিল চামচ মধু যোগ করুন এবং ভালোভাবে মিশে যাওয়া পর্যন্ত নাড়ুন। এই মিশ্রণটি আপনার মুখে এবং ঘাড়ে লাগান এবং আপনার আঙ্গুল দিয়ে ম্যাসাজ করুন। কিছু সময়ের জন্য মুখে মাস্কটি রেখে দিন এবং তারপর 15 মিনিটের জন্য প্রয়োগ করুন এবং হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এবার একটি নরম কাপড় দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন। এটি লাগালে ত্বকের দাগ দূর করার পাশাপাশি মরা চামড়াও দূর হয়।


ত্বকের হাইড্রেশনের জন্য 

গ্রীষ্মে ত্বককে সবচেয়ে বেশি হাইড্রেটেড রাখতে হয়। এর জন্য শসা এবং অ্যালোভেরার সাহায্যে একটি ফেস মাস্ক তৈরি করুন। এটি তৈরি করতে, একটি ব্লেন্ডারে অর্ধেকটি খোসা ছাড়ানো শসা রাখুন এবং তারপরে এটি ব্লেন্ড করে একটি পিউরি তৈরি করুন। এবার ফিল্টার করে জল আলাদা করে নিন। এতে 2 টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল যোগ করুন এবং তারপর আপনার মুখে মাস্কটি লাগিয়ে আলতো করে ম্যাসাজ করুন। কমপক্ষে 15 থেকে 20 মিনিটের জন্য মুখে মাস্কটি রেখে দিন এবং তারপরে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। 


সতেজ ত্বকের জন্য

ত্বককে সতেজ ভাব দিতে শসা পিষে এর রস আলাদা করে নিন। তারপর মুখ ভালো করে ধুয়ে স্যালাইনের রস মুখে লাগান।মাস্কটি ১৫ মিনিটের জন্য আপনার ত্বকে লাগান। তারপর ঠান্ডা বা ঈষদুষ্ণ জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। 

ত্বকে শসার উপকারিতা

গ্রীষ্মে রোদের কারণে মুখ খুব দ্রুত ফর্সা হয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে ভিটামিন, খনিজ এবং অন্যান্য পুষ্টিতে ভরপুর শসা আপনার ত্বককে নানাভাবে উপকার করতে পারে। মুখের ফোলাভাব ও ফোলাভাব কমানো যায় শসার সাহায্যে। ত্বকে কোনো ধরনের জ্বালাপোড়া বা চুলকানি থাকলে শসা ব্যবহার করতে পারেন। এর পাশাপাশি এটি ব্রণপ্রবণ ত্বকের জন্যও উপকারী। এটি বার্ধক্যজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে এবং এটি ত্বককে হাইড্রেট করতে সাহায্য করে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad