'এটা এখন ফ্যাশন হয়ে গেছে', বিচারকদের টার্গেট করার ক্রমবর্ধমান প্রবণতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ সুপ্রিম কোর্টের - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 24 May 2022

'এটা এখন ফ্যাশন হয়ে গেছে', বিচারকদের টার্গেট করার ক্রমবর্ধমান প্রবণতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ সুপ্রিম কোর্টের


'বিচারকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা দুর্ভাগ্যবশত এখন একটি নতুন "ফ্যাশন" হয়ে উঠেছে এবং একজন বিচারক যত শক্তিশালী, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ততটাই বড় হয়।' সোমবার এমনই মন্তব্য করল সুপ্রিম কোর্ট। 


শীর্ষ আদালত, মাদ্রাজ হাইকোর্টের অবমাননার জন্য দোষী সাব্যস্ত একজন আইনজীবীর আবেদনের শুনানি করার সময়, পর্যবেক্ষণ করেছে যে উত্তরপ্রদেশে বিচারকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হচ্ছে এবং এখন এটি বোম্বে এবং মাদ্রাজেও ঘটছে। মাদ্রাজ হাইকোর্ট ওই আইনজীবীকে দুই সপ্তাহের জন্য সাধারণ কারাদণ্ড দিয়েছে।


 শীর্ষ আদালত বলেছে যে, বাদীর কাজটি "পুরোপুরি অবমাননাকর" এবং তার বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য পরোয়ানা জারি করা হাইকোর্টের একজন বিচারপতির ওপর অকারণ অভিযোগ করা ছাড়াও মামলার শুনানি করছেন, এমন বিচারপতিদের মধ্যে একজনকে বাতিল করার দাবী সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।


বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় এবং বেলা এম ত্রিবেদীর একটি অবকাশ বেঞ্চ বলেছেন, "এখন বিচারকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা দুর্ভাগ্যক্রমে একটি নতুন 'ফ্যাশন' হয়ে উঠেছে। বিচারক যত শক্তিশালী, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তত বড়। বোম্বেতে এখন এমনটা হচ্ছে। 

 অবশ্য উত্তরপ্রদেশে এটা নির্বিচারে হচ্ছে, এখন মাদ্রাজেও হচ্ছে।" বেঞ্চ বলেছে, “একটি কড়া বার্তা দিতে হবে।" সুপ্রিম কোর্ট বলেছে যে,সারা দেশে বিচারকদের ওপর হামলা হচ্ছে এবং জেলা বিচার বিভাগে কখনও কখনও তাদের রক্ষা করার জন্য লাঠি-চালিত পুলিশও নেই।


বেঞ্চ এই বছরের মার্চ মাসের হাইকোর্টের আদেশে হস্তক্ষেপ করতে অস্বীকার করে, যেখানে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যে, আইনজীবী এক বছরের জন্য আদালতে প্র্যাকটিস করবেন না। বেঞ্চ বলেছে যে, বিচারক আইনজীবীর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য পরোয়ানা জারি করার পরে, পুলিশ যখন সেটি তামিল করতে যায়, তখন তিনি (আইনজীবী) হাইকোর্টের কাছে একটি চায়ের দোকানে ছিলেন। শীর্ষ আদালত বলে যে, সেই সময়  শত শত আইনজীবী পুলিশকে ঘিরে ধরে এবং ওয়ারেন্ট তামিল করতে দেয়নি।


বেঞ্চ বলেছে যে, আদালত যখন বিষয়টির শুনানি করে আইনজীবী তার বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য পরোয়ানা জারি করা বিচারকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন। আইনজীবীর পক্ষে উপস্থিত অ্যাডভোকেট বলেন, আইনজীবী নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন। বেঞ্চ বলেছে যে, বাদী আইনজীবী এমন এক শ্রেণীর, যাদের নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন এবং যারা আইনের নামে কলঙ্ক।


বেঞ্চ এও বলে, 'এই ধরনের লোকদের মোকাবেলা করার এটাই একমাত্র উপায় এবং দুই সপ্তাহের কারাদণ্ড আসলে খুবই মৃদু শাস্তি। যখন আইনজীবী বেঞ্চকে কিছু লাইন রেকর্ড না করার জন্য অনুরোধ করেছিলেন, তখন শীর্ষ আদালত বলে, এটি একটি ফৌজদারি আপিল নিষ্পত্তি করছে। বেঞ্চ বলে, “আইনজীবীরাও আইনের প্রক্রিয়ার অংশ। আমরা সবাই দেশের নাগরিক।"

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad