এই ৬ ধরনের মানুষের বাটারমিল্ক পান করা উচিত নয়, এতে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Monday, 9 May 2022

এই ৬ ধরনের মানুষের বাটারমিল্ক পান করা উচিত নয়, এতে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে


গ্রীষ্মের মরসুমে, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা এবং তীব্র তাপপ্রবাহ এড়াতে লোকেরা অবশ্যই বাটারমিল্ক বা বাটারমিল্ক খায়।  বাটারমিল্ক দই থেকে তৈরি করা হয় এবং দুধ বা দই থেকে কম চর্বি থাকে।  বাটারমিল্কে উপস্থিত গুণাবলী গ্রীষ্মের মৌসুমে স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী।  এটি পান করলে শরীরের তাপ কমে যায় এবং তাপ বা তাপের প্রভাব থেকে আপনার শরীরকে রক্ষা করতে কাজ করে।  কিন্তু আপনি কি জানেন যে বাটারমিল্ক পান করা কিছু মানুষের জন্য খুব ক্ষতিকর হতে পারে।  বাটার মিল্কের একটি শীতল প্রভাব রয়েছে এবং গ্রীষ্মে এটি পান করা স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী, তবে এটি অনেক সমস্যা বা রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য ক্ষতিকারকও হতে পারে।  কিছু রোগ ও সমস্যায় খাবারের যত্ন না নেওয়ার কারণে আপনার সমস্যা বেড়ে যায়।  এমন পরিস্থিতিতে আপনার অবশ্যই তাদের সম্পর্কে সঠিক তথ্য থাকতে হবে।  আসুন জেনে নিই বাটারমিল্ক পানের ক্ষতিকর দিকগুলো এবং কোন কোন মানুষের এটি খাওয়া উচিত নয়।


 এই লোকেদের বাটারমিল্ক পান করা উচিত নয় 


 গ্রীষ্মের মৌসুমে বাটার মিল্ক পান করা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী হলেও কারো কারো জন্য যেকোনো ঋতুতে এর সেবন ক্ষতিকর হতে পারে।  খনিজ পদার্থ, পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন B12 এবং ফসফরাস ইত্যাদি স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী বাটারমিল্কে পাওয়া যায়।  এছাড়াও এতে ভালো ব্যাকটেরিয়া এবং ল্যাকটিক অ্যাসিড রয়েছে যা আপনার পাকস্থলীর জন্য খুবই উপকারী বলে মনে করা হয়।  কিন্তু এমন অনেক রোগ ও সমস্যা রয়েছে যাতে বাটারমিল্ক পান করলে আপনার সমস্যা বেড়ে যায়।  স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী প্রতিটি পুষ্টি উপাদান সঠিকভাবে না খাওয়ার অসুবিধা রয়েছে।  একইভাবে, বাটারমিল্ক পান করাও কিছু মানুষের জন্য ক্ষতিকর।  বাটার মিল্ক পান করা এই লোকদের জন্য খুব ক্ষতিকর হতে পারে।


 ১. একজিমার সমস্যায় বাটারমিল্ক খাবেন না


 একজিমা হলে বাটার মিল্ক পান করলে আপনার সমস্যা বাড়ে।  আসলে, বাটারমিল্কে অনেক ধরনের অ্যাসিড এবং অন্যান্য উপাদান পাওয়া যায় যা ত্বক সংক্রান্ত সমস্যায় আপনার সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে।  তাই একজিমার ক্ষেত্রে বাটারমিল্ক পান করা এড়িয়ে চলতে হবে।  একজিমা হল এক ধরনের ত্বকের সংক্রমণ যাতে আপনার ত্বকে চুলকানি, জ্বালাপোড়া এবং অন্যান্য অনেক সমস্যা হয়।  অতএব, আপনি যদি একজিমার সমস্যায় ভুগছেন এবং অতিরিক্ত পরিমাণে বাটারমিল্ক পান করেন তবে এর কারণে আপনার সমস্যা বাড়তে পারে।


 ২. জ্বর হলে বাটারমিল্ক পান করবেন না


 জ্বর হলে আপনার খাদ্যাভ্যাসের সঠিক যত্ন না নিলে এর কারণে আপনার সমস্যা বাড়তে পারে।  জ্বর হলে ঠান্ডা ও টক জাতীয় জিনিস খাওয়া বা পান করা উচিত নয়।  তাই জ্বরের ক্ষেত্রে আপনাকে সবসময় বাটারমিল্ক বা দই না খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।


 ৩. জয়েন্টে ব্যথার ক্ষেত্রে বাটারমিল্ক পান করবেন না


 হাড় সংক্রান্ত সমস্যা যেমন জয়েন্টে ব্যথা বা আর্থ্রাইটিসের ক্ষেত্রে বাটারমিল্ক না খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।  এই ধরনের মানুষ যারা বাত, জয়েন্টের ব্যথা, পেশির ব্যথার সমস্যায় ভুগছেন, তাদের ভুলেও বাটারমিল্ক পান করা উচিত নয়।  এসব সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার পর বাটারমিল্ক পান করতে পারেন।  এসব সমস্যায় বাটার মিল্ক পান করলে জয়েন্টে শক্ত হয়ে যাওয়া এবং ব্যথার সমস্যা বেশি হতে পারে।

 

৪. সর্দি-কাশিতে বাটারমিল্ক খাবেন না


 সর্দি-কাশির সমস্যায় বাটার মিল্ক পান করলে আপনার সমস্যা বাড়তে পারে।  আয়ুর্বেদেও এর বিস্তারিত ব্যাখ্যা রয়েছে।  আপনার যদি সর্দি-কাশির সমস্যা থাকে তবে আপনাকে গরম জিনিস খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।  তাই এই সমস্যায় বাটারমিল্ক পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে।


 ৫. হার্টের রোগীদের জন্য ক্ষতিকর


 হৃদরোগে আক্রান্ত কিছু রোগীর জন্য অতিরিক্ত পরিমাণে বাটারমিল্ক পান করা ক্ষতিকারক।  যেহেতু বাটারমিল্কে বেশি পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে, তাই এটি কিছু গুরুতর রোগীদের ক্ষেত্রে কোলেস্টেরল বাড়াতে কাজ করতে পারে।  তাই যাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা আগে থেকেই বেশি তাদের অতিরিক্ত পরিমাণে বাটারমিল্ক পান করা উচিত নয়।


 উল্লিখিত সমস্যায় বাটার মিল্ক পান করা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।  গ্রীষ্মের মৌসুমে বাটার মিল্ক পান করার সময় এই বিষয়গুলো অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে।  আপনারও যদি এমন কোনো রোগ বা সমস্যা থাকে, তাহলে অবশ্যই বাটারমিল্ক পান করার আগে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad