লিভার ড্যামেজের ঝুঁকি বাড়ায় সুগার! নিজের খেয়াল রাখুন এইভাবে - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 15 May 2022

লিভার ড্যামেজের ঝুঁকি বাড়ায় সুগার! নিজের খেয়াল রাখুন এইভাবে


ভারসাম্যহীন খাদ্যাভ্যাস ও দুর্বল জীবনযাপনের কারণে মানুষের মধ্যে ডায়াবেটিসের সমস্যা দ্রুত বাড়ছে।  ডায়াবেটিস এমন একটি অবস্থা যা শরীরে রক্তে শর্করার মাত্রা বৃদ্ধির দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, তবে এটি শুধুমাত্র এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়।  ডায়াবেটিস অনেক গুরুতর রোগের কারণ হতে পারে।  ডায়াবেটিস রোগীদের হৃদরোগের পাশাপাশি গুরুতর লিভার সংক্রান্ত সমস্যার ঝুঁকি থাকে।  ডায়াবেটিস রোগের জন্য খাদ্যাভ্যাস, জীবনযাত্রার পাশাপাশি শরীরের স্বাস্থ্য-সংক্রান্ত অবস্থাও দায়ী।  অনেক গবেষণা এবং গবেষণাও নিশ্চিত করেছে যে ডায়াবেটিক রোগীদের লিভারের ক্ষতি, লিভার সিরোসিস এবং অন্যান্য গুরুতর লিভার সমস্যার ঝুঁকি রয়েছে।  টাইপ ২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের নীরব রোগের ঝুঁকি বেশি থাকে।  তাই ডায়াবেটিস রোগীদের লিভার সুস্থ রাখতে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।  এই সতর্কতাগুলি খাদ্য এবং জীবনযাত্রার সাথে সম্পর্কিত হতে পারে।


 ডায়াবেটিস এবং লিভারের রোগ


টাইপ ২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের অনেক গুরুতর লিভার রোগের ঝুঁকি থাকে।  লখনউয়ের একজন বিখ্যাত ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ ডাঃ এম কে চন্দ্রের মতে, শরীরে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যাওয়ার কারণে নন-অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজের ঝুঁকিও বেড়ে যায়।  যারা অ্যালকোহল পান করেন না তাদের মধ্যেও এই রোগ হতে পারে।  এই সমস্যা টাইপ ১ এবং টাইপ ২ উভয় রোগীদের মধ্যে দেখা যায়।  এছাড়া শরীরে ব্লাড সুগার বেড়ে যাওয়ায় ডায়াবেটিস রোগীদের নন-অ্যালকোহলিক স্টেটোহেপাটাইটিস (NASH) রোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়, যার কারণে ভবিষ্যতে লিভার ক্যান্সারের ঝুঁকি বেশি থাকে।  ডায়াবেটিস রোগীরা যদি সঠিক খাদ্যাভ্যাস এবং ভালো রুটিন না মেনে চলে, তাহলে তাদের লিভার সিরোসিস এবং লিভার ড্যামেজের ঝুঁকিও থাকে।



 ডায়াবেটিস রোগীদের লিভারের ক্ষতির লক্ষণ 


 ডায়াবেটিস রোগীদের লিভার সংক্রান্ত সমস্যা হলে প্রাথমিক সময়ে কিছু লক্ষণ অবশ্যই দেখা যায়।  সঠিক সময়ে যদি লিভার ফেইলিউরের লক্ষণগুলো চিহ্নিত করা যায়, তাহলে আরও গুরুতর সমস্যা এড়ানো যায়।  ফ্যাটি লিভার, লিভার সিরোসিসের মতো সমস্যা ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে সাধারণ।  ডায়াবেটিসের সমস্যায় লিভার সংক্রান্ত সমস্যা থাকলে আপনি এই লক্ষণগুলি দেখতে পারেন।


 লিভারের প্রদাহের সমস্যা।


 হজমের ব্যাঘাত।


 পেট ও লিভারে প্রচণ্ড ব্যথা।


 টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি।


 ত্বক ও চোখ হলুদ হয়ে যাওয়া।


 সারাক্ষণ ক্লান্ত লাগে।


 হঠাৎ ওজন কমে যাওয়া


 

ডায়াবেটিসে লিভারকে সুস্থ রাখার টিপস


 ডায়াবেটিস রোগে সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলে খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাত্রার।  শরীরে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাত্রার বিশেষ যত্ন নিতে হবে।  ডায়াবেটিসে খাবারের ব্যাপারে অসাবধানতার কারণে অনেক মারাত্মক সমস্যা হতে পারে।  তাই এ রোগে সবসময় চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলতে হবে।  কোলেস্টেরল ও ব্লাড সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখলে এই সমস্যায় উপকার পাওয়া যায়।  ডায়াবেটিস রোগে লিভার সুস্থ রাখতে এই বিষয়গুলো অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে।


 লিভারের সমস্যা এড়াতে ডায়াবেটিস রোগীদের সময় সময় রক্তে শর্করা পরীক্ষা করা উচিত।


 অ্যালকোহল সেবন নিয়ন্ত্রণ করুন।


 শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখুন।


 ওজন বাড়তে দেবেন না।


 উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখুন।


 ধূমপান এড়িয়ে চলুন।


 উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো খেয়াল রাখলে ডায়াবেটিস রোগীরা লিভার সংক্রান্ত সমস্যা থেকে বাঁচতে পারেন।  ডায়াবেটিস রোগীদের লিভারের গুরুতর রোগের ঝুঁকি থাকে, সময়মতো মনোযোগের অভাবে আপনাকে লিভার ড্যামেজ বা লিভার ফেইলিওরের সমস্যায় পড়তে হতে পারে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad