এই গ্রামের প্রতিটি মানুষ ইশারায় কথা বলে - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 21 May 2022

এই গ্রামের প্রতিটি মানুষ ইশারায় কথা বলে

 






পৃথিবীতে এমন কিছু গ্রাম রয়েছে যেগুলি কোনও না কোনও বিশেষত্বের জন্য সারা বিশ্বে বিখ্যাত। যেমন একটি গ্রাম তার সৌন্দর্যের জন্য এবং কোনওটি তার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য পরিচিত, তবে আজ আমরা আপনাকে এমন একটি গ্রামের কথা বলতে যাচ্ছি যেখানে বেশিরভাগই  যারা জন্মগ্রহণ করে তারা বোবা ও বধির হয়।এই লোকেরা একটি মাত্র ভাষা ব্যবহার করে যার নাম কাতা কলক।এই সাংকেতিক ভাষা শত শত বছরের পুরনো।এদের ভাষা শত শত বছরের পুরনো এবং শুধুমাত্র গ্রামের লোকেরাই এই ভাষা বোঝে।  কারণ এই গ্রামে পর্যটকদের আনাগোনা খুবই কম।



 আমরা ইন্দোনেশিয়ার বেংকালা গ্রামের কথা বলছি, এখানে বসবাসকারী প্রতিটি মানুষ ইশারায় কথা বলে।  কারণ এই গ্রামের অধিকাংশ পরিবারে কেউ না কেউ কথা বলতে ও শুনতে অক্ষম।  এমন পরিস্থিতিতে মানুষ ইশারায় কথা বলতে শেখে। এই গ্রামের মানুষের বধির গ্রাম নামেও বিশ্ব পরিচিত।  এটি পৃথিবীর একমাত্র গ্রাম যেখানে মানুষ কথা বলতে বা শুনতে পারে না।



 এ কারণে এখানকার মানুষ মূক ও বধির


 এই গ্রামে জন্ম নেওয়া শিশুদের বেশির ভাগই শুনতে ও কথা বলতে পারে না।  এমতাবস্থায় আপনি এটাকে তাদের বাধ্যবাধকতা বলুন বা প্রয়োজন বলুন না কেন, সবাই এই ভাষা শেখে।  আপনি জেনে অবাক হবেন যে সাংকেতিক ভাষা কাতা কলোক শুধুমাত্র এই গ্রামের মানুষ নয়, সরকারি অফিসেও ব্যবহার করা হয়।


 এ গ্রামের জনসংখ্যা প্রায় তিন হাজার।  বিজ্ঞানীদের মতে, ওই এলাকায় DFNB৩ নামের একটি জিনের উপস্থিতি।  এখানে জন্মগ্রহণকারীদের মধ্যে এই জিনটি সাত প্রজন্ম ধরে চলে আসছে।  এ কারণে মানুষ বধির হয়ে জন্মায়।  অথচ এই গ্রামের বাসিন্দারা মনে করেন অভিশাপের কারণে তারা এই বধিরত্ব পেয়েছেন।


 এখানে বসবাসকারী লোকদের মতে, বহু বছর আগে এখানে এমন দুই ব্যক্তি ছিল যারা কালো জাদু জানত, কিন্তু উভয়ের মধ্যে মারামারি শুরু হয় এবং এই সময় তারা একে অপরকে বধির হওয়ার অভিশাপ দেয়।  যার কারণে এখানকার বাসিন্দারা মনে করেন সাত প্রজন্ম থেকে এখন পর্যন্ত এই অভিশাপ ছড়িয়ে পড়ছে।



No comments:

Post a Comment

Post Top Ad