6G এলেই বদলে যাবে পৃথিবী! প্রাসঙ্গিকতা হারাবে স্মার্টফোন, শরীরেই বসবে সিম কার্ড - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 7 June 2022

6G এলেই বদলে যাবে পৃথিবী! প্রাসঙ্গিকতা হারাবে স্মার্টফোন, শরীরেই বসবে সিম কার্ড


এই বছরের শেষ নাগাদ ভারতে 5G নেটওয়ার্ক চালু হতে পারে। কিন্তু 5G আসার আগেই 6G নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। সম্প্রতি, Nokia CEO পেক্কা লুন্ডবার্গ 6G নিয়ে একটি বড় ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন। Lundberg বিশ্বাস করেন যে 2030 সালের মধ্যে, 6G কমার্শিয়াল বাজারে লঞ্চ হয়ে যাবে।


শুধু 6G নয়, স্মার্টফোনের ভবিষ্যৎ নিয়েও তিনি একটি বড় ঘোষণা দিয়েছেন। পেক্কা লুন্ডবার্গ বিশ্বাস করেন যে, 2030 সাল নাগাদ স্মার্টফোনের আর প্রাসঙ্গিকতা থাকবে না। তবে স্মার্টফোনের অস্তিত্ব শেষ হয়ে যাবে এমনটা নয় বরং মানুষ এটিকে অন্য কোনও আকারে ব্যবহার করা শুরু করবে।

 

উদাহরণস্বরূপ, লোকেরা চশমা বা স্মার্টওয়াচে স্মার্টফোনের সমস্ত বৈশিষ্ট্য পাবে। দাভোসে অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের সম্মেলনে নকিয়ার সিইও বলেন, 6G না আসা পর্যন্ত আমরা যে স্মার্টফোনগুলো ব্যবহার করছি, সেগুলো আর সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ইন্টারফেস হবে না।


এর মধ্যে অনেক কিছুই সরাসরি আমাদের শরীরে আসতে শুরু করবে। তিনি কোন প্রযুক্তির কথা বলছেন তা উল্লেখ না করলেও সাইবোর্গ এবং ব্রেন কম্পিউটারের মতো প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে অনেক কোম্পানি।


বেশ কিছুদিন ধরেই অনেক কোম্পানি এ ধরনের ফিচার নিয়ে কাজ করছে। ভবিষ্যতে, চিপস এবং অন্যান্য প্রযুক্তি মানুষের শরীরে লাগানো যেতে পারে। এখন পর্যন্ত এই প্রযুক্তি অনেক হলিউড মুভিতে দেখা গিয়েছে।


সাইবোর্গ শব্দটির জন্ম এই ভবিষ্যত প্রযুক্তির দিকে ইঙ্গিত করে। Cyborg অর্থাৎ সাইবারনেটিক অর্গানিজম ব্যবহার করা হবে একজন ব্যক্তির ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য। তার শরীরের অংশ যে কোন মেশিন দ্বারা প্রতিস্থাপিত করা যাবে। 


সবকিছু পরিকল্পনা অনুযায়ী চললে, 6G সিম কার্ড মানুষের শরীরেই ইন্টিগ্ৰেড হওয়া সম্ভব। যদিও 2030 সালের মধ্যে স্মার্টফোনের ব্যবহার শেষ হবে না, তবে জনসংখ্যার একাংশের জন্য এটি ব্যবহারের পদ্ধতি বদলে যাবে।


এলন মাস্কের নিউরালিংক এমনই একটি কোম্পানি, যেটি ব্রেন কম্পিউটারের মতো ভবিষ্যতের প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে। সম্প্রতি এর নজিরও দেখা গেছে। গত বছরের এপ্রিলে, মাস্ক ভিডিওটি প্রকাশ করেছিলেন এবং এর ডেমো দেখিয়েছিলেন। এতে একজন পুরুষ ম্যাকাকের (আফ্রিকান বাঁদর বা হনুমান) মস্তিষ্কে একটি চিপ বসানো হয় এবং এর সাহায্যে তিনি মাইন্ড পং বাজান।


 আসলে, ম্যাকাকের চোখে তিনি জয়স্টিকের সাহায্যে পং বাজাচ্ছিলেন, কিন্তু সেই সময় জয়স্টিকটি খুলে দেওয়া হয়েছিল। অর্থাৎ ম্যাকাক খেলাটি খেলছিল শুধুমাত্র তার মস্তিষ্কের সাহায্যে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad