মন্ত্রী কন্যার পর চাকরি খোয়ালেন আরও এক শিক্ষক - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Monday, 6 June 2022

মন্ত্রী কন্যার পর চাকরি খোয়ালেন আরও এক শিক্ষক



মেধা তালিকায় জালিয়াতি। আবারও চাকরি বাতিল হল মন্ত্রীর মেয়ের।  সোমবার নতুন বেঞ্চে এসএসসির চাকরিও বাতিল করা হয়েছে।  এসএসসিতে অবৈধ নিয়োগের কারণে ওই দিনই চাকরি বাতিল করা হয়।  মুর্শিদাবাদের বহরমপুরের সুলুয়াডাঙ্গা স্কুলের নবম ও দশম শ্রেণীর শিক্ষক সিদ্দিকী গাজীকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।  হাইকোর্টের একক বেঞ্চ চাকরি বাতিল করেছে।




  অনুপ গুপ্ত গণিতের OBC-B মেধা তালিকায় 200 নম্বরে ছিলেন।  সে চাকরি পায়নি।  তবে মেধা তালিকায় 275 নম্বরে আসা সিদ্দিকী গাজী চাকরি পেয়েছেন।এ ধরনের নিয়োগ আইনের চোখে মানা যায় না।  তাই, বিচারপতি রাজশেখর মান্থার মধ্যশিক্ষা পর্ষদকে ভুলে যাওয়া নিয়োগ বাতিল করার নির্দেশ দিয়েছেন।  বুধবার ফের শুনানি হবে।



দক্ষিণ দিনাজপুরের হরিরামপুরের বাসিন্দা অনুপ গুপ্ত প্রথমে তথ্য জানার অধিকার আইনে আবেদন করেন।  সুলুয়াডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উত্তর দেন যে সিদ্দিকী গাজী 18 ফেব্রুয়ারি, 2021 থেকে শিক্ষকতা করছেন।  নবম-দশম শ্রেণীর শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান।  বিচারপতি রাজশেখর মান্থার একক বেঞ্চ গণিতের এই শিক্ষক নিয়োগকে বাতিল করেছে।



এর আগে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় এসএসসির নিয়োগ নিয়ে বারবার প্রশ্ন তুলেছিলেন।  নবম-দশম শ্রেণির শিক্ষক নিয়োগে অবৈধ নিয়োগ হয়েছে বলেও প্রাথমিক অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি।  প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে আবদুল গণি আনসারি মামলায় হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সিবিআই।  আজ (সোমবার) থেকে এসএসসি মামলার শুনানি করছেন বিচারপতি রাজশেখর মান্থা।  সেই বেঞ্চও এসএসসির নিয়োগে ত্রুটি খুঁজে পায় এবং চাকরি বাতিল করা হয়।



অনুপ গুপ্তর আইনজীবী ফিরদৌস শামীম বলেছেন যে বিচারপতি অভিজিৎ গাঙ্গুলি এর আগে সিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছিলেন যে সমস্ত এসএসসি নিয়োগে ত্রুটি রয়েছে।  মন্ত্রীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীর ক্ষেত্রে মেধা তালিকায় এমন জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে।  নবম-দশমের গণিত শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রেও মেধা তালিকায় একই ধরনের জালিয়াতি রয়েছে।  ফিরদৌস শামীম বলেন, 'আমার মক্কেলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বিচারপতি মান্থা ভুয়ো নিয়োগ বাতিলের নির্দেশ দিয়েছেন।'





এসএসসি মামলা থেকে বাদ পড়লেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।  আজ থেকে কলকাতা হাইকোর্টে এই ব্যবস্থা কার্যকর।  সোমবার থেকে হাইকোর্টের বিচারপতিদের মামলায় পরিবর্তন আনা হয়েছে।  সোমবার থেকে এসএসসি মামলার শুনানি শুরু করেন বিচারপতি রাজশেখর মান্থা।


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad