"তৃণমূলের গুপ্তচর রয়েছে বিজেপিতে", বিস্ফোরক বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Monday, 6 June 2022

"তৃণমূলের গুপ্তচর রয়েছে বিজেপিতে", বিস্ফোরক বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার



বঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকে বঙ্গ বিজেপিতে অভ্যন্তরীণ কোন্দল লেগে রয়েছে।  দলে তোলপাড় চলছে।  একের পর এক বিজেপি বিধায়ক, দলের নেতা ও সাংসদরা দল ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন।  এখন রানাঘাটের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের একটি বক্তব্য গোটা দলে আতঙ্ক তৈরি করেছে।  বিজেপি সাংসদ বলেছেন যে দলের অভ্যন্তরে তৃণমূলের গুপ্তচর রয়েছে এবং দলকে শক্তিশালী করতে দলের নেতৃত্বকে এই জাতীয় গুপ্তচরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।  দলের আসানসোলের বিধায়ক অগ্নিমিত্রা পাল জগন্নাথ সরকারের বক্তব্যকে সমর্থন করেছেন, যদিও দিলীপ ঘোষ জগন্নাথ সরকারের এই বক্তব্য থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন।




 আসানসোল দক্ষিণের বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা পল দাবী করেছেন যে সব দলেই গুপ্তচর রয়েছে।  সম্প্রতি রানাঘাট পার্টি অফিসে সাংবাদিক সম্মেলনে জগন্নাথ সরকার বলেন, 'সব দলেই গুপ্তচর আছে।  তৃণমূলে এবং বিজেপিতেও।  এই লোকেরা একে অপরকে জানায়।'



রানাঘাটের বিজেপি সাংসদ দাবী করেন যে এই ধরনের লোকদের খুঁজে পেতে দলকে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।  তা না হলে দল সংস্কার সম্ভব নয়।  জগন্নাথ সরকার বলেন, “এ ধরনের লোকেরা দলের ক্ষতি করে।  সে সিনিয়র সদস্য হোক বা জনপ্রতিনিধি।  কেউ যদি ফেসবুকে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় দলের বিরুদ্ধে কিছু বলেন, তবে তিনি অবশ্যই বিজেপির সমর্থক নন।  তিনি তৃণমূলের দালাল।  আমি বলব, এমন লোককে দল থেকে বের করে দেওয়া উচিৎ নয়তো আগে তার শাস্তি হওয়া উচিৎ।  এটা না হলে দলের অবস্থার উন্নতি করা কঠিন।”  তিনি বলেন, "যারা করেছে তারা অন্যায় করেছে।  আর কেউ যদি ইচ্ছাকৃতভাবে দলবিরোধী কাজ করে থাকে তাহলে তাকে অবিলম্বে দল থেকে বহিষ্কার করতে হবে।"


 

 বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারও বলেছেন, তিনি ঠিকই বলেছেন।  দলের মধ্যে শৃঙ্খলার অভাব থাকলে তা বরদাস্ত করা হবে না।  দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাদের দেখাশোনা করা হবে।বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাদের লোকদের ভেতরে রাখার চেষ্টা করে।  আমরাও দেখছি।"  বিজেপি সাংসদের এই বক্তব্য প্রসঙ্গে বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা পল বলেন, “এটা সব দলের সঙ্গেই হয়।  দলে যদি কেউ থাকে, তা হলে দলীয় নেতৃত্ব দেখবে।"  এ প্রসঙ্গে নদিয়ার তৃণমূল নেতা ও প্রাক্তন জেলা পরিষদ সদস্য বাণী রায় বলেন, 'জগন্নাথ সরকারের বক্তব্য সঠিক, কিন্তু তাঁদের উদ্দেশ্য ভিন্ন।  AIIMS-এ চাকরির সমস্যা চাপা দিতে তিনি এমন বক্তব্য দিচ্ছেন।"  জগন্নাথ সরকারের বিরুদ্ধে কল্যাণী এইমস-এ টাকা দিয়ে চাকরি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।  যদিও তিনি এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad