বৃষ্টিতে মুরগি থেকে ছড়াতে পারে মারাত্মক সংক্রমণ, প্রতিরোধে করুন এই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 17 July 2022

বৃষ্টিতে মুরগি থেকে ছড়াতে পারে মারাত্মক সংক্রমণ, প্রতিরোধে করুন এই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি

 


বর্ষাকালে প্রাণীদের সুরক্ষা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং যত্ন একটি বড় দায়িত্ব।  বিশেষ করে বর্ষার দিনে হাঁস-মুরগি পালন করতে গিয়ে রোগ-বালাই ও সংক্রমণের কারণে অনেক ক্ষতি হয়।  বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, সঠিক পরিচর্যা করলে পোল্ট্রি খাত থেকে ভালো মুনাফা অর্জন করা যায়, তাই মুরগির সুস্বাস্থ্যের জন্য খাদ্য ও জীবনযাত্রার প্রতি বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে।  বৃষ্টির আগে যদি পোল্ট্রি ফার্মে কিছু ব্যবস্থাপনার কাজ করা হয়, তাহলে যত্ন নেওয়া খুব সহজ।  এর মধ্যে রয়েছে পোল্ট্রি ফার্ম মেরামত, মুরগির তাজা খাবারের ব্যবস্থা, মেঝে মেরামত, বিছানা ও প্লাস্টিকের পর্দার ব্যবস্থা করা এবং ওষুধ ছিটানো।

ছত্রাক থেকে মুরগির খাদ্য রক্ষা করুন
বর্ষাকালে আদ্রতা বৃদ্ধি পায়, যার কারণে পশুখাদ্য ও শস্যে ছত্রাক ও পোকামাকড় জন্মাতে থাকে।  এই সমস্যাগুলি প্রতিরোধ করতে, মনে রাখবেন যে খাবারে আর্দ্রতার পরিমাণ 10% এর বেশি বাড়বে না, কারণ এটি খাবারের পচনের ঝুঁকি বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

এই সমস্যাটি বিশেষ করে চিনাবাদামের পিঠাতে বেশি হয়, এটি মোকাবেলা করার জন্য খুব পুরানো পশুখাদ্য ব্যবহার করবেন না এবং পশুখাদ্যকে নিরাপদ স্থানে রাখুন।

মুরগির খাদ্য ও দানা সরাসরি মাটিতে রাখবেন না।  খাবারের জন্য আলাদা আলমারি তৈরি করতে হবে বা মাটিতে কাঠের ফিতে বিছিয়ে বস্তা রাখতে হবে।

বাসি বা পুরানো খাবার মুরগিকে খাওয়াবেন না, তবে নতুন খাবার কিনে 10-15 দিনের মধ্যে দিতে হবে।

প্রায়ই দেখা যায় বৃষ্টির কারণে মুরগির চালায় আর্দ্রতা বেড়ে যায়, যার কারণে মুরগিতে মশা, মাছি, রোগবালাই ও ছত্রাক জন্মাতে থাকে।  এ সমস্যা রোধে মুরগির ঘরে আগে থেকে প্লাস্টিকের শীট বা পর্দা লাগাতে হবে।

মনে রাখবেন জাল থেকে প্রায় 1.5 ফুট দূরত্বে পর্দা রাখতে হবে, যাতে মুরগির ঘরের পর্দা থেকে জল না পড়ে।

মুরগির চালায় মাছির প্রাদুর্ভাব দেখা গেলে মুরগির ঘরের বাইরে বিট ও ম্যালাথিয়নের ওপর ফিনাইল স্প্রে করাও উপকারী।

বর্ষাকালে মুরগির পেট খারাপের সমস্যাও বেড়ে যায়, যার কারণে অন্যান্য মুরগিতেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা থাকে।  এটি প্রতিরোধ করতে, সন্ধ্যায় পাইপারাজিন লবণ ব্যবহার করুন।

মনে রাখতে হবে মুরগির খামারের আশেপাশে যেন খালি গর্ত না থাকে, কারণ খালি গর্তে জল ভর্তি হওয়ার কারণে মাছি ও মশার উপদ্রব বেড়ে যায়, যা পরবর্তীতে মুরগির ঘরে ঢুকে রোগবালাইকে আমন্ত্রণ জানায়।  এটি প্রতিরোধ করার জন্য, খালি গর্ত মাটি দিয়ে ভরাট করা উচিৎ।

প্রায়শই জল বার্ড ফ্লু এবং সংক্রমণের মতো রোগও বাড়ায়, তাই মুরগির জন্য পরিষ্কার জলের ব্যবস্থা করুন।  বৃষ্টির আগে জলের ট্যাঙ্ক পরিষ্কার করুন এবং জল ভর্তি করার পরে, ব্লিচিং পাউডার বা পটাসিয়াম পারম্যাঙ্গানেট যোগ করুন।

মুরগির খামার রোগের সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।  ভেজা ও নোংরা বিছানা মুরগির কক্সিডিওসিসের মতো রোগের ঝুঁকি বাড়ায়।  এ কারণে ছানা বিকাশে সমস্যা ও মুরগির মৃত্যুর হারও বাড়ছে।

এই সংকট প্রতিরোধের জন্য, একটি ভেজা বা স্যাঁতসেঁতে বিছানায় চুন বা 2-3 ইঞ্চি শুকনো বালি ছিটিয়ে দিন।

যদি বিছানা ভিজে এবং শক্ত হয়ে যায় তবে তা অবিলম্বে সরিয়ে ফেলতে হবে।

মনে রাখতে হবে খামারে মুরগির বিচরণ করার জন্য জায়গার অভাব না হয়, এজন্য একটি মুরগির ওপর অন্তত আধা বর্গফুট জায়গার ব্যবস্থা করতে হবে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad