"তৃণমূল দুর্নীতির পাহাড়", বিস্ফোরক অনুরাগ ঠাকুর - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 23 July 2022

"তৃণমূল দুর্নীতির পাহাড়", বিস্ফোরক অনুরাগ ঠাকুর



 পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়ি থেকে নোটের বান্ডিল পাওয়ার পর উত্তপ্ত রাজ্য রাজনীতি।  একদিকে ইডি মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে রিমান্ডে নিয়েছে এবং তার সহযোগী অর্পিতাকে গ্রেপ্তার করেছে।  অন্যদিকে, মমতার দলকে আক্রমণ বিজেপির।  বিজেপির তরফে জারি করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবসময় কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে মোর্চা খোলেন।  একই সঙ্গে তার মন্ত্রীরা কেলেঙ্কারিতে ধরা পড়ে। একইসঙ্গে বিজেপি নেতা ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর বলেন, "তৃণমূলের নাম দুর্নীতির পাহাড় হিসেবে বলা হয়েছে।  অন্যদিকে তৃণমূল এই বিষয়টিকে বিজেপির ষড়যন্ত্র বলে অভিহিত করেছে।"



 কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর তার বিবৃতিতে বলেন, "মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দুর্নীতির সব রেকর্ড ভেঙে দিচ্ছেন।"  তিনি বলেন, "তৃণমূল মানে 'দুর্নীতির পাহাড়'।" অনুরাগ ঠাকুর বলেন, "পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল উভয়ের শিরায় দুর্নীতি চলছে।  তার সরকারের মন্ত্রীরা দুর্নীতিতে লিপ্ত হওয়ার পূর্ণ স্বাধীনতা পেয়েছেন। " 



এর আগে, বিজেপি সদর দফতরে সাংবাদিক সম্মেলনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রাজীব চন্দ্রশেখর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র নিশানা করেন।  তিনি বলেছিলেন যে ইডির অভিযানে তৃণমূল মন্ত্রীর সহযোগীর কাছ থেকে 21 কোটি টাকারও বেশি উদ্ধার করা হয়েছে।  একই সঙ্গে, কয়েকদিন আগে এই মন্ত্রীর কাজের প্রশংসা করেছিলেন মমতা।  তিনি বলেন, "এখন বুঝতে পারছেন মন্ত্রীর কী ভালো কাজের প্রশংসা করেছেন।"  রাজীব চন্দ্রশেখর বলেছেন যে "ইডি এবং অন্যান্য কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলি এখন পর্যন্ত এক লক্ষ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ সামনে এনেছে।"  তিনি বলেন, "আমরা তাদের নেতাদের হিপোক্রেসি বের করে আনতে চাই যে এই লোকেরা কীভাবে তদন্ত প্রক্রিয়ায় বাধা দেয়।"


 একই সময়ে বিজেপি সাংসদ তথা বাংলার প্রাক্তন বিজেপি প্রধান দিলীপ ঘোষও তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন।  তিনি বলেছিলেন যে তৃণমূল নেতারা গত কয়েক বছরে নিয়োগ সহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচুর অর্থ উপার্জন করেছেন।  দিলীপ ঘোষ প্রশ্ন তুললেন, এটা কী করে সম্ভব যে দলের সুপ্রিমো এ বিষয়ে সচেতন নন।  তিনি বলেন, যা কিছু প্রমাণ পাওয়া গেছে তার ভিত্তিতে শীর্ষ নেতৃত্বের কাছ থেকেও প্রশ্ন করা উচিৎ।


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad