মেহুল চোকসির বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের সিবিআইয়ের - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 14 July 2022

মেহুল চোকসির বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের সিবিআইয়ের



দেশের ব্যাঙ্কের 12,000 কোটি টাকা ফাঁকি দিয়ে বিদেশে পালিয়ে যাওয়া মেহুল চোকসির বিরুদ্ধে CBI আরেকটি মামলা দায়ের করেছে।  এবার চোকসি এবং তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে কানারা ব্যাঙ্ক এবং ব্যাঙ্ক অফ মহারাষ্ট্রের 55 কোটি টাকারও বেশি প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে।




 সিবিআই-এর মুখপাত্র আরসি জোশী জানিয়েছে, সিবিআই ব্যাঙ্ক জালিয়াতির দুটি পৃথক মামলা নথিভুক্ত করেছে।  এর মধ্যে একটি মামলা 55 কোটি টাকার বেশি এবং অন্য মামলা প্রায় 36 কোটি টাকার।  প্রথম মামলায় মেহুল চোকসি, শ্রীমতি চেতনা জয়ন্তীলাল ঝাভেরিস দীনেশ গোপাল দাস ভাটিয়া, মিলিন্দ অনন্ত, বেজাল জুয়েলারি ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড মুম্বাই সহ একটি সংস্থাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।  তারা সবাই এই কোম্পানির পরিচালক বলে জানা গেছে।


 

 প্রথম ক্ষেত্রে, এই বেসরকারী সংস্থাটিকে কনসোর্টিয়াম ব্যবস্থার অধীনে কানারা ব্যাঙ্ক এবং ব্যাঙ্ক অফ মহারাষ্ট্রের দ্বারা 30 কোটি এবং 25 কোটির মূলধন দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ করা হয়েছে।  সোনা ও হীরার গহনা তৈরির জন্য এই সুবিধা দেওয়া হয়েছিল।  দীর্ঘদিন ধরে পড়ে থাকা ঋণ পরিশোধে কোম্পানিটি এ টাকা ব্যবহার করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।  এ জন্য তিনি ঋণ থেকে প্রাপ্ত অর্থ সম্পূর্ণভাবে অন্য কোম্পানিতে সরিয়ে নেন।


 

তদন্তকালে এই কোম্পানির অ্যাকাউন্টে কোনও ব্যবসায়িক লেনদেনের তথ্য পায়নি তদন্তকারী সংস্থা।  প্রতিষ্ঠানটি ব্যাংকের কার্যকর করা নিয়মকানুন বাস্তবায়ন না করে সব নিয়ম-কানুন মাথায় রেখে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় টাকা পাঠাতে থাকে বলে অভিযোগ রয়েছে।  এছাড়া ব্যাংকের দেওয়া ঋণও ফেরত দেওয়া হয়নি।




 এতে ব্যাংকগুলোর লোকসান হয়েছে 55 কোটি 87 লাখ টাকা।  মেহুল চোকসি ভারতীয় ব্যাঙ্ক থেকে 12,000 কোটি টাকা কেলেঙ্কারি করার পরে তার ভাইপো নীরব মোদীর সাথে বিদেশে পালিয়ে গিয়েছিলেন।  নীরব মোদী লন্ডনে ধরা পড়েন এবং বর্তমানে জেলে আছেন, কিন্তু মেহুল চোকসি এখনও কেলেঙ্কারির টাকা নিয়ে বিদেশে রয়েছেন।



সিবিআইয়ের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, ব্যাঙ্ক জালিয়াতির দ্বিতীয় মামলায়, মুম্বাই-ভিত্তিক পরম শক্তি স্টিলস লিমিটেড এবং এর পরিচালক রাজেন্দ্র কুমার চৌধুরী পঙ্কজ এবং সুমিত আহুজা সহ অজ্ঞাত সরকারী ও ব্যক্তিগত ব্যক্তিদের অভিযুক্ত করা হয়েছে।  এই মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে যে সাব কোম্পানি এবং অন্যান্য অভিযুক্তরা 2014 থেকে 2016 সময়কালে ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার লেটার অফ ক্রেডিট পাওয়ার জন্য 35.89 কোটি টাকা প্রতারণা করেছে।


 

 এই মামলায় আরও অভিযোগ করা হয়েছে যে মুম্বইয়ের একটি বেসরকারি সংস্থার মোটর লরির রসিদগুলি এলসি নথির অংশ হিসাবে অভিযুক্তরা দেখিয়েছিলেন।  তদন্তে এই রশিদটিও জাল ধরা পড়ে।  সিবিআই এই দুটি ক্ষেত্রেই মামলা নথিভুক্ত করে এবং আজ অনেক জায়গায় অভিযান চালায়।  এই অভিযানে অনেক অপরাধমূলক নথি ও ইলেকট্রনিক ডিভাইস উদ্ধার করা হয়েছে, যার কাজ মূল্যায়ন ও তদন্ত চলছে।


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad