উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দান নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত তৃণমূলের! - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 21 July 2022

উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দান নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত তৃণমূলের!


উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোটদান থেকে বিরত থাকবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল কংগ্রেস।বৃহস্পতিবার কালীঘাটে দলীয় কার্যালয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে দলের লোকসভা ও রাজ্যসভার সাংসদদের বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  


উল্লেখ্য, এনডিএ পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে প্রার্থী করেছে। অন্যদিকে কংগ্রেস সহ বিরোধী দলগুলি প্রবীণ কংগ্রেস নেতা মার্গারেট আলভাকে প্রার্থী করেছে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে সক্রিয় থাকা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিরোধী দলগুলো থেকে সম্পূর্ণ দূরে ছিলেন। আগামী ৬ আগস্ট উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।


তৃণমূল কংগ্রেস আগেই ঘোষণা করেছিল যে, দলের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বৃহস্পতিবার দলীয় সাংসদের সঙ্গে বৈঠক করবেন এবং উপরাষ্ট্রপতি পদের প্রার্থীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

 

দলের সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দলীয় বৈঠক শেষে বলেন, ২১শে জুলাইয়ের শহীদ সভা নিয়ে দলের নেতা-কর্মীরা ব্যস্ত। বৃহস্পতিবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে দলের লোকসভা ও রাজ্যসভার সাংসদের বৈঠক হয়। বৈঠকে ৩৩ দলীয় সংসদ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। দলীয় বৈঠকে সব সংসদ সদস্য তাঁদের মতামত দিয়েছেন এবং নির্দ্বিধায় তাদের মতামত জানিয়েছেন। 


অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন যে, যতদিন জগদীপ ধনখড় রাজ্যপাল ছিলেন, তিনি দলের নেতা হিসাবে আক্রমণ করেছিলেন। কোনও মূল্যে এনডিএ প্রার্থীকে সমর্থন নয়। দ্বিতীয় হল, মার্গারেট আলভাকে সমর্থন করা বা ভোটদান থেকে বিরত থাকা। বিরোধী প্রার্থী নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসকে যেভাবে উপেক্ষা করা হয়েছে, তাতে উপস্থিত ৮৫ শতাংশ সাংসদই এই মত দিয়েছেন। সব সাংসদ ও দলীয় নেতারা একসঙ্গে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।'


তিনি বলেন, 'তৃণমূল কংগ্রেস একটি গণতান্ত্রিক দল। তিনি বা চেয়ারপারসন একা সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। ৮৫ শতাংশ প্রতিনিধি ভোটদানে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।' তিনি বলেন, 'বিরোধী দলগুলো যেভাবে দলকে উপেক্ষা করে বিরোধী প্রার্থীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তার বিরুদ্ধে দলের নেতারা আপত্তি জানিয়েছেন।'


অভিষেক বলেন, তিনি এনডিএ প্রার্থী ধনখড়কে দলের আদর্শ হিসাবে সমর্থন করতে পারবেন না। তিনি এও বলেন যে, 'দলের সুপ্রিমো এটি এমপিদের ওপর ছেড়ে দিয়েছিলেন, কারণ উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে কেবল এমপিরা ভোট দেন। এ কারণে সংসদ সদস্যদের মতামত নিয়ে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।' 


অভিষেকের সংযোজন, 'মার্গারেট আলভার সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুসম্পর্ক রয়েছে, তা সকলেই জানেন, কিন্তু শুধুমাত্র সম্পর্কের ভিত্তিতে কাউকে সমর্থন করা যায় না। যেভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে একতরফাভাবে। দলীয় সংসদ সদস্যরা এতে আপত্তি করলেও এর মানে এই নয় যে, এতে বিরোধী দলের ঐক্য বিঘ্নিত হয়েছে। কীভাবে নিজের স্বার্থ ছেড়ে বৃহত্তর স্বার্থে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা যায়, এটা নিশ্চিত করা প্রয়োজন।'

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad