ধনখড় না আলভা- উপরাষ্ট্রপতি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে কে? - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 24 July 2022

ধনখড় না আলভা- উপরাষ্ট্রপতি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে কে?


দেশে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন শেষ হওয়ার পর এবার উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী ৬ আগস্ট উপ-রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে এবং একই দিনে ফলাফল ঘোষণা করা হবে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে, এনডিএ প্রার্থী দ্রৌপদী মুর্মু বিরোধী প্রার্থী যশবন্ত সিনহার বিরুদ্ধে বড় জয় নিশ্চিত করে প্রথম মহিলা আদিবাসী রাষ্ট্রপতি হয়ে একটি নতুন ইতিহাস তৈরি করেছেন। এখন পরবর্তী পরীক্ষা এনডিএ-র উপ-রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী জগদীপ ধনখড়ের, যার সামনে বিরোধী প্রার্থী কংগ্রেস নেত্রী মার্গারেট আলভা।


বিরোধী দল বিজেডি এবং এআইএডিএমকে ইতিমধ্যেই উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে এনডিএ প্রার্থী জগদীপ ধনখড়কে তাদের সমর্থন দিয়েছে। বিজেডি রাজ্যসভার সাংসদ এবং সাধারণ সম্পাদক মিডিয়া ইনচার্জ মানস মঙ্গরাজ, এআইএডিএমকে নেতা এম থামবি দুরাই এবং জগন মোহন রেড্ডির নেতৃত্বে ওয়াইএসআর কংগ্রেস পার্টির নেতা বিজয়সাই রেড্ডি বলেছেন যে, 'আমাদের দল জগদীপ ধনখড়কে সমর্থন করবে।' তিনি বলেন যে, তারা এনডিএ প্রার্থী জগদীপ ধনখড়কে সমর্থন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, কারণ তিনি একজন কৃষকের ছেলে এবং একটি অনগ্রসর সম্প্রদায়ের অন্তর্গত।


বিজেপি রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসাবে উপজাতীয় সম্প্রদায় থেকে আসা দ্রৌপদী মুর্মুর ওপর বাজি খেলেছিল এবং বিরোধীদের সমর্থনে সেই বাজি জিতেও যায়। একইভাবে, বিজেপির দ্বিতীয় বাজি হল কৃষকের ছেলে হিসাবে জগদীপ ধনখড়কে প্রার্থী করা, যদি সবকিছু ঠিকঠাক হয়, বিজেপি-সমর্থিত এনডিএ প্রার্থী হিসাবে জগদীপ ধনখড়ের জয়ও নিশ্চিত দেখা যাচ্ছে। 


আলভা, কিছু বিরোধী দলের প্রার্থী, রাজ্যসভার ডেপুটি স্পিকার এবং কংগ্রেসের সিনিয়র নেতাদের একজন। তিনি ১৯৮৪ থেকে ৮৫ সাল পর্যন্ত কেন্দ্রীয় সরকারের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বিরোধী প্রার্থী হিসেবে মার্গারেট আলভার নাম কংগ্রেস ইচ্ছাকৃতভাবে এগিয়ে দিয়েছে। কারণ আলভার বিশাল অভিজ্ঞতা রয়েছে, তিনি একজন মহিলা, দক্ষিণ থেকে এসেছেন এবং সংখ্যালঘু খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের অন্তর্গত।


রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিরোধীদের ফাটল স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান ছিল এবং ক্ষমতাসীন দল সুবিধা পেয়েছে। ক্রস-ভোটিং এনডিএ প্রার্থী মুর্মুর জয়কে আরও বড় করে তুলেছে, এবং এখন উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনেও বিরোধী ঐক্য ভেঙে যাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। টিএমসি ইতিমধ্যেই স্পষ্ট করেছে যে, তারা এই নির্বাচন থেকে দূরে থাকবে। বিরোধী প্রার্থী মার্গারেট আলভা বা এনডিএ প্রার্থী জগদীপ ধনখড়- কাউকেই ভোট দেবে না।


আরজেডি, এনসিপি, শিবসেনা, ডিএমকে এবং সিপিআই(এম) এর মতো দলগুলি কংগ্রেস প্রার্থী মার্গারেট আলভাকে সমর্থন করার কথা বলেছে, কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস, যা বিরোধী ঐক্যের পতাকা উঁচিয়ে নেতৃত্ব দিচ্ছে, নির্বাচনে নিরপেক্ষ থাকার ঘোষণা দিয়েছে। বিরোধী প্রার্থী মার্গারেট আলভা তৃণমূলের এই সিদ্ধান্তকে হতাশাজনক বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেন, 'এটা অহংকার বা রাগের সময় নয়। এটা সাহস, নেতৃত্ব এবং ঐক্যের সময়।' অন্যদিকে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন যে, 'আলভার প্রার্থিতা নিয়ে তার সাথে "পরামর্শ" করা হয়নি।'


টিএমসির তরফে বলা হয়েছিল যে আমরা সবাই সমমনা দল, যার লক্ষ্য বিজেপিকে পরাজিত করা। তবে, টিএমসি কংগ্রেসের নির্বাচনী মিত্র নয়। তাই টিএমসিকে সমান অংশীদার হিসাবে দেখা উচিৎ। মমতার এই বক্তব্যে বিরোধী দলগুলি তার সমালোচনা করেছে এবং একে ধনখড়ের চা পার্টির প্রভাব বলেছে। তৃণমূলের এই সিদ্ধান্ত দেখিয়ে দিয়েছে যে, বিরোধী দলগুলির মধ্যে কতটা ঐক্য রয়েছে।


উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে, রাজ্যসভার ২৩৩ জন সংসদ সদস্যের পাশাপাশি ১২ জন মনোনীত এমপি  এবং লোকসভার ৫৪৩ জন সাংসদ ভোট দেন। শুধুমাত্র লোকসভা ও রাজ্যসভায় বিজেপির ৩৯৪ জন সাংসদ রয়েছে। এমতাবস্থায় এবারের নির্বাচনে তারা নিশ্চিতভাবেই এগিয়ে আছেন। এমনিতেই এনডিএ-র পাল্লা ভারী।


নির্বাচিত হলে, ধনখড় ভেঙ্কাইয়া নাইডুর স্থলাভিষিক্ত হবেন, যিনি ১১ অগাস্ট, ২০১৭ থেকে কার্যকর উপ-রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। নাইডুর মেয়াদ ১০ আগস্ট শেষ হবে এবং উপরাষ্ট্রপতির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad