জানুন আটলান্টিক মহাসাগর এবং ভারত মহাসাগর একসঙ্গে মিলিত হয়েও কেন ভিন্ন রঙের! - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 17 August 2022

জানুন আটলান্টিক মহাসাগর এবং ভারত মহাসাগর একসঙ্গে মিলিত হয়েও কেন ভিন্ন রঙের!

 




সাধারণত জলের কোনো রঙ থাকে না,কিন্তু আপনি যদি জল দূর থেকে দেখেন তবে তা নীল দেখায়। সমুদ্র হোক বা নদী - জলের রঙ সাধারণত নীল দেখায়, তবে কিছু জায়গায় জল সবুজও দেখায়। পৃথিবীতে তিনটি প্রধান মহাসাগর রয়েছে - আটলান্টিক মহাসাগর, প্রশান্ত মহাসাগর এবং ভারত মহাসাগর। কেউ কেউ আর্কটিক এবং অ্যান্টার্কটিক মহাসাগরকেও শ্রেণীবদ্ধ করে। কিন্তু আর্কটিক মহাসাগর আসলে প্রশান্ত মহাসাগরের একটি অংশ এবং অ্যান্টার্কটিক মহাসাগরের অন্যান্য দক্ষিণ অংশ নিয়ে গঠিত।


 আটলান্টিক মহাসাগর পৃথিবীর বৃহত্তম  মহাসাগর।  একই সময়ে, ভূমধ্যসাগর ইউরোপ এবং আফ্রিকাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে পৃথক করেছে।  এটি একটি ড্রস্ট্রিং দ্বারা বেষ্টিত একটি বস্তা মত দেখায়। আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকার বিস্তৃত অংশের কারণে, কিছু জায়গায় এর প্রস্থ কম দেখা যায়, যদিও ক্ষেত্রফলের দিক থেকে এটি প্রশান্ত মহাসাগরের অর্ধেক।  আটলান্টিক মহাসাগর এখানে ভারত মহাসাগরের সঙ্গে মিলিত হয়েছে, উভয়েরই রঙ আলাদা এবং স্পষ্টভাবে তা দৃশ্যমান।


 দুটি মহাসাগরকে রঙ দ্বারা সহজেই আলাদা করা যায়


 ভারত মহাসাগর এবং আটলান্টিককে সহজেই তাদের রঙ দ্বারা আলাদা করা যায়।  তাদের নীল এবং সবুজ রং উল্লেখযোগ্যভাবে ভিন্ন। যখন দুটি মহাসাগর মিলিত হয়, তখনও তাদের জলের রঙ ভিন্ন হয়।


 ভারত মহাসাগর পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম মহাসাগর।  এটি পৃথিবীর পৃষ্ঠের জলের প্রায় ২০ শতাংশ নিয়ে গঠিত।  উত্তরে ভারতীয় উপমহাদেশ, পশ্চিমে পূর্ব আফ্রিকা;  পূর্বে, ইন্দোচীন সুন্দা দ্বীপপুঞ্জ এবং অস্ট্রেলিয়ার সীমান্তে অবস্থিত।  এটি বিশ্বের একমাত্র মহাসাগর যা হিন্দুস্তান (ভারত) নামে একটি দেশের নামকরণ করা হয়েছে। এর উল্লেখ প্রাচীন ভারতীয় গ্রন্থ "রত্নকারি" এ পাওয়া যায়।


দুটি মহাসাগরের রঙ তাদের বিশেষত্ব। এর ফলে ভারত মহাসাগর নীল দেখায়, অন্যদিকে আটলান্টিক মহাসাগর সবুজ দেখায়। যেখানে আটলান্টিক মহাসাগর প্রশান্ত মহাসাগরের সঙ্গে মিলিত হয় সেখানে জলের রঙের মধ্যে স্পষ্ট পার্থক্য রয়েছে।


 এটি আলোর রঙের প্রতিফলনের কারণে ঘটে


এই রঙের পার্থক্যের কারণ লুকিয়ে আছে পড়ন্ত আলোয়।  আসলে সূর্যের আলো যখন তাদের জলে পড়ে, তখন তার মধ্যে উপস্থিত সাতটি রঙ যা এর জলে সবচেয়ে বেশি বিচ্ছুরণ করে, এই মহাসাগরটি সেই রঙের বলে মনে হয়।  সাধারণত কিছুই ঘটে না, তবে যখন এটি রঙে ভেঙ্গে যায়, তখন একটি রংধনু দেখা যায়, অর্থাৎ এই আলোতে সাতটি রঙ লুকিয়ে থাকে।  এই সাতটি রঙের মধ্যে যে রঙটি জলে পড়ার পর সবচেয়ে বেশি প্রতিফলিত হয় সেটিই হয়ে যায় এই মহাসাগরের রঙ।  কিন্তু এটা কিভাবে হয়?


 তবে জলের রঙ সাধারণত নীল দেখায়


সাধারণভাবে, যখন সমস্ত মহাসাগর এবং নদীর জলে সূর্যের আলো পড়ে, তখন জলের নীল রঙটি সবচেয়ে বিক্ষিপ্ত এবং সবচেয়ে প্রতিফলিত হয়। এই কারণে জল সাধারণত নীল দেখায়।


 এই কারণেই আটলান্টিক মহাসাগর সবুজ


 আরো একটি সত্য হল এর গভীরতায় (নীচে) সবুজ উদ্ভিদের প্রাচুর্য । এসব গাছপালা ধ্বংসের কারণে এই সাগরের জলে হলুদ পদার্থ দ্রবীভূত হতে থাকে।এরপর  সাগরের জলে সূর্যের আলো পড়লে এতে উপস্থিত নীল ও হলুদ উভয় রঙই প্রতিফলিত হয়।  নীল এবং হলুদের সংমিশ্রণে আমাদের চোখকে সবুজ দেখায়।


 এই কারণেই আটলান্টিক মহাসাগরকে সবুজ দেখায়।  ভূমধ্যসাগরে হলুদ রঙের পদার্থ নেই, তাই এর জলে শুধু নীল রঙ ছড়িয়ে আছে এবং কেবল নীলই দেখা যায়।  এই দুটি রঙ আপনাকে প্রথম নজরে বলে দেবে যে এটি আটলান্টিক মহাসাগর এবং অন্যটি ভারত মহাসাগর।

 


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad