ফেসবুক লাইভের পরই উদ্ধার ঝুলন্ত দেহ! বিজেপি কর্মীর রহস্য মৃত্যু ঘিরে তরজা - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Monday, 29 August 2022

ফেসবুক লাইভের পরই উদ্ধার ঝুলন্ত দেহ! বিজেপি কর্মীর রহস্য মৃত্যু ঘিরে তরজা


ফেসবুক লাইভে অভিযোগ করার পরই উদ্ধার এক বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ। বিধায়কের নাম নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিচারও চেয়েছিলেন ওই কর্মী। ঘটনা হুগলি জেলার। মৃত বিজেপি কর্মীর নাম অভিষেক চৌধুরী। বিজেপির দাবী, তাদের দলের কর্মীদের মানসিকভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে, যদিও এই অভিযোগ মানতে রাজি নয় তৃণমূল। অভিষেক চৌধুরীর মৃত্যু স্বাভাবিক নয় বলেও দাবী বিজেপি নেতাদের। বিজেপির তরফে পুলিশের কাছে অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে। ঘটনায় স্থানীয় ক্লাব সেক্রেটারি কুণাল সরকারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 


সোমবার সকালে হুগলি জেলার চুঁচুড়া পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কেওটা মিলিটারি কলোনির বাসিন্দা অভিষেক চৌধুরীর দেহ উদ্ধার হয়। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, আজ সকালে নিজের বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন অভিষেক।


এদিকে বিজেপির দাবী, অভিষেক দলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। ফেসবুকে লাইভ ভিডিও দেখে বন্ধুরা আজ সকালে অভিষেকের বাড়িতে পৌঁছায়। অভিষেকের পরিবারও কিছু জানতে পারেনি। ফোন করেও অভিষেকের কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি। দরজা ভেঙে তার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। চুঁচুড়া ইমামবাড়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা ২৮ বছর বয়সী অভিষেককে মৃত ঘোষণা করেন। বিজেপি নেতৃত্ব জানিয়েছে, মৃত্যুর আগে অভিষেক ফেসবুক লাইভে মৃত্যুর হুমকি পাওয়ার অভিযোগ করেছিলেন।


অভিষেক আরও বলেছেন যে, বিজেপি করার জন্য তাকে হেনস্থা করা হচ্ছে। স্থানীয় একটি ক্লাবের সেক্রেটারি কুণাল সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন অভিষেক। তার দাবী, তাঁকে হুমকি দেওয়া হয়েছে। তার পরিবারকেও প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে। ক্লাব সচিব কুণাল সরকার এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি। ওই ক্লাবের সদস্য পঙ্কজ দাস জানান, অভিষেকের দাদা ওই ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত। অভিষেক কেন এমন অভিযোগ করলেন তা তাঁরা জানেন না।


বিজেপির হুগলি সাংগঠনিক জেলা সাধারণ সম্পাদক সুরেশ সা বলেন, অভিষেক হুগলি মণ্ডলের দীর্ঘদিনের কর্মী ছিলেন। বেশ কয়েকদিন ধরে তাকে মানসিকভাবে নির্যাতন করা হচ্ছিল বলে দাবী করেন তিনি। চুঁচুড়া থানায় দলের পক্ষ থেকে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ফেসবুক লাইভে চুঁচুড়া বিধায়কের নামও উল্লেখ করেছিলেন অভিষেক। তিনি বিধায়কের কাছে ন্যায়বিচারের আবেদন করেন। ভিডিওর সত্যতা যাচাই করেনি প্রেসকার্ড নিউজ। 


চুঁচুড়ার বিধায়ক অসিত মজুমদার এই প্রসঙ্গে বলেন, “কেউ যদি বিজেপির সদস্য হয়, কেউ যদি তাকে হুমকি দেয়, তা অত্যন্ত লজ্জাজনক। এটা হওয়া উচিৎ নয়।" তিনি আরও বলেন, “যে কোনও দলেরই গণতান্ত্রিক অধিকার আছে। আমার দল তৃণমূল কংগ্রেস, কিন্তু আমি সকলের জন্য বিধায়ক। কেউ হুমকি দিলে থানায় অভিযোগ করা উচিৎ ছিল।”

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad