দলীয় নেতা মন্ত্রীদের নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য, তৃণমূল নেতাকে শোকজ নোটিশ - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 28 August 2022

দলীয় নেতা মন্ত্রীদের নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য, তৃণমূল নেতাকে শোকজ নোটিশ

 


 মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিমন্ত্রী তথা শালবনির বিধায়ক শ্রীকান্ত মাহাতো দলের একাধিক নেতাকে আক্রমণ করেন।  এই মুহূর্তে শ্রীকান্ত মাহাতোর ওই ভাইরাল ভিডিও ঘিরে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে পশ্চিম মেদিনীপুর তথা সারা রাজ্য জুড়েই।  প্রেসকার্ড নিউজ ভিডিওটির সত্যতা নিশ্চিত করেনি।  শ্রীকান্তের অভিযোগ, উমা সরেন, সন্ধ্যা রায়, মুনমুন সেন, জুন মালিয়া, সায়নী, সায়ন্তিকা, মিমি, নুসরত, নেপাল সিংহ, সন্দীপ সিংহ এবং উত্তরা সিংহের মতো নেতারা 'লুটে' খাচ্ছেন।  তা সত্ত্বেও তারা দলের 'সম্পদ' হিসেবে বিবেচিত।  শ্রীকান্ত মাহাতোর বক্তব্যের পরই তোলপাড় শুরু তৃণমূল কংগ্রেসে।




 ”এইখানে যদি জুন মালিয়া, সায়নী, সায়ন্তিকা, মিমি ঝিমি, নুসরাত মুসরাত…নেপাল সিংহ,সন্দীপ সিংহ, উত্তরা সিংহ যারা লুটেপুটে খায়, তারা যদি দলের সম্পদ হয়, তাহলে তো পার্টি করা যাবেনা!” সম্প্রতি দলীয় কিছু অনুগামীদের নিয়ে ঘরোয়া বৈঠকে এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করেছিলেন শালবনীর বিধায়ক তথা ক্রেতা, সুরক্ষা ও উপভোক্তা দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী শ্রীকান্ত মাহাতো। সঙ্গে তিনি এও জুড়েছেন, “মমতা, অভিষেক, সুব্রত বক্সীকেও জানিয়ে লাভ হয়নি। দল খারাপ লোককেই ভালো বলছে, আর ভালোকে খারাপ। এটা তো ঠিক নয়। ভালোকে ভালো বলতে হবে, আর খারাপ কে খারাপ!” আর, বিস্ফোরক এইসব কথাবার্তার ভিডিও ভাইরাল হয়ে পৌঁছে যায় দলের শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে। তারপরই স্বয়ং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে তাঁকে শনিবার বিকেলে শোকজ নোটিশ ধরিয়েছেন জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর অজিত মাইতি। 





সূত্রের খবর অনুযায়ী, নিজের শালবনীর বাড়ির সামনে বসে শুক্রবার (২৬ আগস্ট) তিনি এইসব মন্তব্য করেছেন। ওইদিন-ই নাকি তাঁর ঘনিষ্ঠদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে শালবনীর দক্ষিণশোল মৌজায় জমি দখল করার অভিযোগে বিক্ষোভ-পথ অবরোধ হয়েছিল ওই এলাকায়। পরে পুলিশ প্রশাসনের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।




 এরপরই, নিজের বাড়ির সামনে একটি গাছতলায় বসে দলীয় কয়েকজন অনুগামীদের নিয়ে ঘরোয়া বৈঠকে তিনি দলীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন! সেই তালিকায় একদিকে যেমন আছেন, মেদিনীপুরের বিধায়ক ও রাজ্য সম্পাদক জুন মালিয়া। তেমনই আছেন দলের যুব সভানেত্রী সায়নী ঘোষ, রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তিকা চট্টোপাধ্যায়, দুই সাংসদ মিমি-নুসরত থেকে গড়বেতার বিধায়ক ও জেলা সভাধিপতি উত্তরা সিংহ হাজরা। ঠিক তেমনই আছেন শালবনী ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি তথা জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ নেপাল সিংহ ও দলের জেলা যুব তৃণমূল সভাপতি ও পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ সন্দীপ সিংহ-ও।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad