ভগবান শ্রী কৃষ্ণ ও বলরামের নামের পিছনের রহস্য - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 9 September 2022

ভগবান শ্রী কৃষ্ণ ও বলরামের নামের পিছনের রহস্য

 






শ্রী কৃষ্ণের জন্মবার্ষিকী প্রতি বছর ভাদ্র মাসের কৃষ্ণপক্ষের অষ্টমী তিথির মধ্যরাতে রোহিণী নক্ষত্রে মা দেবকীর গর্ভে জন্ম হয়। আসুন জেনে নিই কে রেখেছেন ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ও বলরামের নাম ।


 কিংবদন্তি অনুসারে, কৃষ্ণের জন্মের পর তার পিতা বাসুদেব তার পুত্রকে কংসের হাত থেকে বাঁচাতে নন্দবাবার কাছে রেখে যান।  ঋষি গর্গ যদুবংশের উপাচার্য ছিলেন।  একবার তিনি একটি শিশুর নামকরণের জন্য গোকুলে এসেছিলেন। এ সময় নন্দবাবা ও যশোদারও দেখা হয়।


 সাক্ষাতের সময় তিনি গর্গ ঋষিকে তাঁর দুই সন্তানের নাম রাখার অনুরোধ করেন।  ঋষি গর্গ কংসের ভয়ে নাম বলতে রাজি নাহলে, নন্দবাবা বললেন, গোপনে গোয়ালঘরে নাম রাখতে বলেন।


  বলরামের নামকরণ :


 ঋষির নামকরণের আগে, দেবী রোহিণী এবং মা যশোদা ঋষিদের পরীক্ষা করার জন্য তাদের ছেলেদের বিনিময় করেছিলেন।

     যশোদার হাতে শিশুটিকে দেখে গর্গাচার্য চিনতে পারলেন যে তিনি রোহিণীর পুত্র।  এ কারণে শিশুটির নাম হবে রৌহনেয়া।

     এই পুত্র যদি তার গুণে মানুষকে খুশি করে তবে তার একটি নাম হবে রাম।

 শক্তিশালী হওয়ার কারণে বলও বলবে লোকে। এতে যদুবংশীদের মধ্যে পারস্পরিক ভালোবাসা বজায় থাকবে।  আর তিনি বলরাম নামে পরিচিত হবেন।


কৃষ্ণের নাম :


     ঋষি গর্গ রোহিণীর কোলে শ্রী কৃষ্ণকে দেখে  মন হারিয়ে ফেলেন।  

     গর্গাচার্য বলেন, এই শিশুটি অনেক নামে পরিচিত হবে।  এর রূপ ও নাম গণনার বাইরে।   কালো রঙ তাঁর তাই নাম হবে কৃষ্ণ।

     এতে গোকুলবাসী সুখী হবে, বিপদমুক্ত হবে। কানহাইয়া, কানহা, কৃষ্ণা নামেও পরিচিত হবে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad