GTA মিটিংয়ে আলাদা গোর্খাল্যান্ড রাজ্যের প্রস্তাব পাশ হওয়ায় তোলপাড়! - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 23 September 2022

GTA মিটিংয়ে আলাদা গোর্খাল্যান্ড রাজ্যের প্রস্তাব পাশ হওয়ায় তোলপাড়!



GTA-র প্রথম সাধারণ সভায় আলাদা গোর্খাল্যান্ডের দাবী উত্থাপন করা হয়।  প্রস্তাবটি সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।  জানা গেছে, তৃণমূলের পাঁচ সদস্যও এই প্রস্তাবে সম্মত হয়েছেন।  এ নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে তোলপাড় শুরু হয়েছে।  বিরোধী দল সিপিআই(এম) ও বিজেপিও এই প্রস্তাবে আপত্তি জানিয়েছে।  বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রশ্ন করেছে, তিনি কি এই প্রস্তাব সমর্থন করেন?  জিটিএ নিয়ে তার অবস্থান কী?  বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা পল বলেন যে "আলাদা গোর্খাল্যান্ডের প্রস্তাবের বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীর মতামত প্রকাশ করা উচিৎ।"




সোমবার জিটিএর সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল।  55টি প্রস্তাব গৃহীত হয়।এই প্রস্তাবগুলির মধ্যে প্রথমটি ছিল পশ্চিমবঙ্গ থেকে পাহাড় বিচ্ছিন্ন এবং একটি নতুন গোর্খাল্যান্ড রাজ্য গঠনের কথা।  এই প্রস্তাবে জিটিএ-র পাঁচজন তৃণমূল সদস্য এবং অজয় ​​এডওয়ার্ডের হামরো দলের সাতজন সদস্য প্রস্তাবকে সমর্থন করেছেন।



আসানসোল দক্ষিণের বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা পাল ট্যুইট করেন, "বিনয় গোর্খা তৃণমূলের একজন সদস্য গোর্খাল্যান্ডের জন্য জিটিএ-এর প্রস্তাবকে সমর্থন করেন৷  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশাসনের দিকেও আঙুল তুলেছেন তিনি।  মুখ্যমন্ত্রী ম্যাম আপনার অবস্থান পরিষ্কার করবেন?  আপনি কি বিভক্ত বাংলা সমর্থন করেন??"  সিপিআই(এম) নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন যে "যারা এই প্রস্তাবকে সমর্থন করেছেন তারা সবাই মুখ্যমন্ত্রীর প্রিয়।  আসলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই গোর্খাল্যান্ডের দাবীতে উস্কানি দিয়েছিলেন।  বিজেপি সেই উসকানির সুযোগ দিচ্ছে।  কখনও বিমল গুরুং, কখনও বিনয় তামাং বা অনিত থাপা কার্যত পাহাড়ে অশান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করছেন।রাজনীতির খেলা খেলে বাংলাকে ধ্বংস করছেন।  গোর্খাল্যান্ডের দায়িত্ব মুখ্যমন্ত্রীর।  বিজেপিকেও একই দায়িত্ব নিতে হবে।"


 

 কয়েকদিন আগে তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন যে উত্তরবঙ্গ বা দক্ষিণবঙ্গ বলে কিছু নেই, বাংলা মানেই পশ্চিমবঙ্গ।  শিলিগুড়ি পুরসভার প্রাক্তন মেয়র ও সিপিআইএম নেতা অশোক ভট্টাচার্য বলেন, "তৃণমূলের কোনও নীতি নেই।সবাই বোঝার চেষ্টা করছেন।  জিটিএ-তে শপথ নিতে এসেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই।  আর সেই জিটিএর প্রথম সাধারণ সভা থেকেই এমন প্রস্তাব আনা হচ্ছে।  মমতার এই ধরনের রাজনীতির খেসারত পাহাড়ের মানুষকেই বহন করতে হবে।"  অন্যদিকে, দ্বি-স্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে নতুন গোর্খাল্যান্ড রাজ্য নিয়ে আলোচনা শুরু করার জন্য জিটিএ-র প্রথম বৈঠকে প্রস্তাব পাস করা হয়েছিল।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad