দেশেই মিলল ক্যান্সারের চিকিৎসা! নতুন জীবন পেল আট বছরের শিশু কন্যা - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 26 October 2022

দেশেই মিলল ক্যান্সারের চিকিৎসা! নতুন জীবন পেল আট বছরের শিশু কন্যা


প্রতিবছর সারা বিশ্বে ক্যান্সার রোগীর সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে। এই রোগের কারণে মৃত্যুর পরিসংখ্যানও বাড়ছে। ক্যান্সার রোগীদের বেশিরভাগই শনাক্ত করা যায় অ্যাডভান্স স্টেজে। এই কারণে, এই রোগের চিকিত্সা করা একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়, যদিও গত কয়েক বছরে এমন একটি প্রযুক্তিও তৈরি করা হয়েছে, যা কার্যকরভাবে ক্যান্সারের চিকিত্সা করতে পারে। এই কৌশলটিকে CAR-T সেল থেরাপি বলা হয়। অনেক দেশে এই থেরাপি ক্যান্সার রোগীদের ওপর প্রয়োগ করা হয়। ভারতেও এই থেরাপির ট্রায়াল শুরু হয়েছে। দেশে ক্যান্সার রোগীদের ওপর এই থেরাপি প্রয়োগ করা হয়েছে। এর ফলাফলও খুব ভালো। থেরাপির সাহায্যে ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত এক শিশু কন্যার সফল চিকিৎসা করা হয়েছে।


মহারাষ্ট্রে, ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত আট বছর বয়সী এক শিশু কন্যার সেল থেরাপির মাধ্যমে সফলভাবে চিকিৎসা করা হয়েছে। কয়েক মাস আগে মেয়েটির ব্লাড ক্যান্সার ধরা পড়ে। চিকিৎসার জন্য সব পদ্ধতি অবলম্বন করা হলেও তার অবস্থার কোনও উন্নতি হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে চিকিৎসকরা এই রোগীর ওপর CAR-T সেল থেরাপি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেন। এ জন্য প্রথমে মেয়ের বাবার কাছ থেকে অনুমতি নেওয়া হয়। এরপর চিকিৎসকরা এই থেরাপি করার সিদ্ধান্ত নেন। এটি ব্যবহারের পরে, কয়েক মাস পরে মেয়েটির শরীর থেকে ক্যান্সার কোষ নির্মূল করা হয়। আট বছরের মেয়েটি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।


টাইমস অফ ইন্ডিয়ার সাথে কথা বলার সময়, আইআইটি-বোম্বের বিজ্ঞানী ডক্টর রাহুল পুরওয়ার বলেছেন যে, দেশের প্রথম দেশীয় তৈরি টি সেল প্রযুক্তি দিয়ে শিশু কন্যার চিকিত্সার জন্য সুরক্ষা পরীক্ষা করা হয়েছিল, যা সফল হয়েছিল। এটি আইআইটি-বোম্বে এবং টাটা মেমোরিয়াল সেন্টার (টিএমসি), মুম্বাইয়ের মধ্যে একটি যৌথ প্রচেষ্টা ছিল, যা শিশু কন্যাকে নতুন জীবন দিয়েছে। ডাঃ রাহুল বলেছেন যে, ভারতে এই থেরাপির খরচ আমেরিকাতে খরচের চেয়ে ১০ গুণ কম হবে। এ অবস্থায় রোগীরা সুলভ মূল্যে চিকিৎসা নিতে পারবেন। গত মাসে ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত ১০ জন রোগীর ওপর টি সেল থেরাপির একটি ট্রায়াল করা হয়। তাদের মধ্যেও খুব ভালো ফল দেখা গিয়েছে।


CAR-T সেল থেরাপি করা হয় যখন কোনো চিকিৎসা কাজ করে না

ডক্টর রাহুল পুরওয়ার জানান, 'অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহে ৬ জন লিউকেমিয়া রোগীর ওপর এই টি-সেল থেরাপি ব্যবহার করা হয়েছিল। এই সমস্ত রোগীদের ক্যান্সারের চিকিত্সার জন্য উপলব্ধ সমস্ত পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছিল, কিন্তু অবস্থার উন্নতি হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে টি সেল থেরাপি করা হয়েছিল, যা রোগীদের অনেক উপকার করেছিল। এই থেরাপি সেই সমস্ত রোগীদের জন্য আশীর্বাদ হিসাবে প্রমাণিত হচ্ছে, যাদের মধ্যে ক্যান্সারের চিকিত্সার অন্য কোনও পদ্ধতি কাজ করছে না। এখন দলটি আরও ৫০ জন রোগীর ওপর দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু করবে। আশা করি এটিও সফল হবে।'


CAR-T সেল থেরাপি কি

চিকিৎসকদের মতে, CAR-T সেল থেরাপি হল এক ধরনের ইমিউনোথেরাপি। এতে টি সেল ব্যবহার করা হয়। এই কোষগুলি নিজেই ইমিউন সিস্টেমের একটি অংশ। এই থেরাপিতে রোগীর রক্ত ​​থেকে টি কোষের নমুনা নিয়ে তা পরিবর্তন করা হয়। এই সময় তাদের মধ্যে জিন সম্পাদনা করা হয়। এটি ক্যান্সার কোষকে মেরে ফেলার ক্ষমতা রাখে।


যখন এই কোষগুলি সম্পূর্ণরূপে পরিবর্তিত হয়, তখন সেগুলি আবার রোগীর মধ্যে ঢোকানো হয়। এই টি কোষ ক্লাউডিন নামক একটি নির্দিষ্ট অ্যান্টিজেনকে আক্রমণ করে এবং ক্যান্সার সৃষ্টিকারী বিপজ্জনক কোষগুলিকে মেরে ফেলে। ব্লাড ক্যান্সারের চিকিৎসায় টি সেল থেরাপি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। একে কাইমেরিক অ্যান্টিজেন রিসেপ্টর টি-সেল থেরাপি বলা হয়। রোগী যখন রেডিও ও কেমোথেরাপি এবং যেকোনও ধরনের ক্যান্সারের চিকিৎসায় আক্রান্ত হয় না, তখন চিকিৎসকরা টি সেল থেরাপি ব্যবহার করেন।


ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডাঃ অনুরাগ কুমার বলেন, টি সেল থেরাপির ট্রায়াল অনেক দেশেই চলছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, এটি ফুসফুস এবং ত্বকের ক্যান্সারের জন্য এফডিএ দ্বারা অনুমোদিত। আমেরিকাতেও CAR-T থেরাপি করা হয়, কিন্তু সেখানে খরচ হয় চার থেকে পাঁচ কোটি টাকা। যদি ভারতে ক্যান্সার রোগীদের ওপর এই থেরাপির সমস্ত পরীক্ষা সফল হয়, তবে রোগীদের এখানে খুব সস্তায় চিকিত্সা করা যেতে পারে। এটি ক্যান্সারের মৃত্যু কমাতে অনেক দূর এগিয়ে যাবে। লিউকেমিয়া ক্যান্সার রোগীরা এর থেকে সবচেয়ে বেশি সুবিধা পাবেন।


ব্লাড ক্যান্সারকেই লিউকেমিয়া বলা হয়। এই ক্যান্সারের কারণে শরীরে উপস্থিত শ্বেত রক্তকণিকার কার্যক্ষমতা কমে যায়। এই ক্যান্সার শিশুদের মধ্যেও পাওয়া যায়। অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপনের মাধ্যমেও এর চিকিৎসা করা হয়, তবে অনেক ক্ষেত্রে দাতা না থাকায় প্রতিস্থাপন সম্ভব হয় না। এ অবস্থায় কয়েক বছর পর শিশুরা মারাও যায়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad