জামিন নাকোচ, ফের জেল হেফাজতে অনুব্রত! আদালতের প্রশ্নের মুখে সিবিআই - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 29 October 2022

জামিন নাকোচ, ফের জেল হেফাজতে অনুব্রত! আদালতের প্রশ্নের মুখে সিবিআই


গরু পাচার কাণ্ডে অভিযুক্ত তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা অনুব্রত মণ্ডলের জামিনের আবেদন খারিজ করা হয়েছে। পরবর্তী শুনানি হবে ১১ নভেম্বর, ততদিন সংশোধনাগারেই থাকতে হবে অনুব্রতকে। তবে শনিবার আসানসোল আদালতে শুনানির সময় বিচারকের প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় সিবিআইকে।  


বিচারক সিবিআইকে জিজ্ঞাসা করেন, তদন্ত শেষ হতে কত দিন লাগবে? জবাবে, সিবিআই জানায় এটি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তদন্ত শেষ করার চেষ্টা করছে। এ বিষয়ে বিচারক বলেন, একটি সম্ভাব্য সময় বলবেন? সিবিআইয়ের কৌঁসুলি বিচারককে জানিয়েছেন, তদন্ত দ্রুত চলছে।


শনিবার দীর্ঘ প্রশ্নোত্তর সেশনে বিচারক সিবিআই তদন্তের দীর্ঘ প্রকৃতি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। আদালত তদন্তকারীদের সম্ভাব্য তারিখ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে। অন্যদিকে অনুব্রতের আইনজীবীর অভিযোগ, রাজনৈতিক কারণে তার মক্কেলকে হয়রানি করা হচ্ছে। যদিও শেষ পর্যন্ত তৃণমূল নেতার জামিন খারিজ হয়ে যায়।


শনিবার, সিবিআই তদন্তের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে অ্যাডভোকেট সজল দাশগুপ্ত আদালতকে বলেন, “এনামুল হক গরু চোরাচালান মামলার প্রধান অভিযুক্ত। তিনি কাস্টমস এবং বিএসএফকে প্রভাবিত করেছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে, কিন্তু এখন এই চোরাচালানে কত টাকা আয় হয়েছে, তা খতিয়ে দেখছে সিবিআই। শাসক দলের জেলা সভাপতি হয়ে অনুব্রত গরু পাচারে প্রভাব ফেলেছেন কি না, তা দেখা হচ্ছে। এখানে একটি রাজনৈতিক দলকে টার্গেট করে তদন্ত চলছে! 


এরপর সিবিআই চার্জশিটে রাজনৈতিক পরিচয় নিয়ে আপত্তি তোলেন আইনজীবী। তার প্রশ্ন, রাজনৈতিক দল পরিবর্তন না করলে জামিন মিলবে না? তিনি বলেন, তদন্তকারীরা অতিরিক্ত চার্জশিট সহ মোট ৫টি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন। একের পর এক চার্জশিটের মাধ্যমে জামিন ঠেকানোর ইচ্ছাকৃত চেষ্টা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন অনুব্রতর আইনজীবী।


অন্যদিকে, সিবিআই দাবী করেছে, জেল হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদের সময় অনুব্রত নীরব ছিলেন। তদন্তে সহযোগিতা করছেন না, যার পরিপ্রেক্ষিতে অনুব্রতর আইনজীবীর প্রশ্ন, “সিবিআইয়ের এই অভিযোগ সঠিক নয়। তিনি (অনুব্রত) জানলে কথার জবাব দেবেন!" তিনি আরও বলেন, "তিনি যদি দল পরিবর্তন করেন বা রাজনীতি থেকে অবসর নেন, তাহলে কি 'প্রভাবশালী' উপাধি মুছে যাবে? তাহলে কি জামিন পাবেন?"


এদিকে বিচারপতি রাজেশ চক্রবর্তী উভয় পক্ষের প্রশ্নোত্তর পর্বের পর অনুব্রত মণ্ডলকে জেল হেফাজতে নেওয়ার নির্দেশ দেন। মামলার পরবর্তী শুনানি হবে ১১ নভেম্বর। প্রসঙ্গত, এই মামলায় তাঁর মেয়ে সুকন্যা মণ্ডল ও সিএকে তলব করেছে ইডি।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad