জল জীবন মিশনে ১০৮৬ কোটি টাকার দুর্নীতি, বিস্ফোরক শুভেন্দু - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 11 November 2022

জল জীবন মিশনে ১০৮৬ কোটি টাকার দুর্নীতি, বিস্ফোরক শুভেন্দু



কেন্দ্রের জল জীবন মিশন নিয়ে ফের রাজ্যকে আক্রমণ করলেন শুভেন্দু অধিকারী।  একইসঙ্গে রাজ্যের বিরোধী নেতা এই প্রকল্পের আওতায় রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে এক হাজার ৮৬ কোটি টাকা দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন।  প্রায় ৫০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিস্ফোরক অভিযোগ করেন তিনি।  যার জেরে রাজ্য রাজনীতিতে নতুন করে তোলপাড় শুরু হয়েছে।  আদালতে হাজির করা হয় জনস্বাস্থ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী পুলক রাইকে।  শুভেন্দু আরও বলেছেন যে তিনি আগামী সোমবারের মধ্যে জলমন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াতের কাছে লিখিত অভিযোগ জানাবেন।  তদন্ত চাওয়া হবে।  পাশাপাশি জনস্বার্থ মামলা করার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন তিনি।




   শুভেন্দু বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন প্রতিটি ঘরে বিশুদ্ধ জল থাকুক।  কেন্দ্রের জল জীবন মিশন নামে একটি প্রকল্প রয়েছে।  কিন্তু রাজ্য সরকার তা কোথাও উল্লেখ করেনি।  এ বিষয়ে আমি প্রাক্তন গভর্নরকে চিঠি দিয়েছিলাম।  ইতিমধ্যে, কেন্দ্রীয় সরকার জলজীবন মিশনে ১০০ শতাংশ তহবিল দেয়।  এতে রাজ্য সরকারের কোনও তহবিল নেই।"  




শুভেন্দুর অভিযোগ, এই প্রকল্পের নামে রাজ্যের কাজে ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে।  শুভেন্দুর অভিযোগ যে হাওড়া জেলার বেশ কয়েকটি সংস্থা ফেরুল সরবরাহে একচেটিয়া দখল করেছে।  তালিকায় রয়েছে বালাজি ট্রেডার্স, একে ইন্ডাস্ট্রিজ, অ্যালেকো এন্টারপ্রাইজ, সাইবাবা এন্টারপ্রাইজ, প্রীতি এন্টারপ্রাইজ এবং আরও কয়েকজন।  কিন্তু, দরপত্রের নিয়ম মানা হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন শুভেন্দু।  সেখানে কিছু ভুলের অভিযোগ করেন তিনি।




একটি ফেরল একটি কলের মুখের সাথে সংযুক্ত থাকে।  শুভেন্দুর দাবী, ফেরল কেনার সময় ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে।  শুভেন্দু দাবী করেছেন যে অনেক নথি সহ একটি ফেরলের বাজার মূল্য ২১৩।  কিন্তু, নথিগুলি দেখায় যে এটি ৫৭০ টাকায় কেনা হয়েছিল।  




তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, “তিনি কুৎসিততার ওপর দাঁড়িয়ে আছেন।  তিনি যখন বিভিন্ন অফিসে ছিলেন তখন সেখান থেকে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ আসতে থাকে।"



  কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম শুভেন্দুর বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেন, “ওরা বাজার গরম করতে চলেছে।  কোনও অর্থ নেই। কারণ রাজ্য সরকার টেন্ডার ছাড়া এই কাজ করে না।  জনস্বার্থের এমন বিষয়গুলো প্রতিদিনই আদালতে খারিজ হয়ে যায়।  জনস্বার্থ মামলা বড় কথা নয়।  প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে নাটক হলে আমি প্রতিদিন পিআইএল করতে পারি।"

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad