শিশুদের পড়াশোনার কারণে মানসিক চাপ বৃদ্ধির লক্ষণ কী? - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 17 November 2022

শিশুদের পড়াশোনার কারণে মানসিক চাপ বৃদ্ধির লক্ষণ কী?


শুধু বড়দেরই নয়, আজকাল শিশুদের মধ্যে মানসিক চাপ ক্রমাগত বাড়ছে, সাধারণত শিশুরা তাদের পড়াশোনা নিয়ে চিন্তিত থাকে।  যার কারণে তারা পরীক্ষায় কী হবে এবং কীভাবে তারা তাদের পড়াশোনা শেষ করতে সক্ষম হবে তা নিয়ে এক ধরণের ভয় অনুভব করতে শুরু করে।  এমন অনেক ঘটনা সামনে এসেছে যেখানে দেখা গেছে শিশুরা যখন বেশি চিন্তা করতে শুরু করে বা পড়াশোনা নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হতে শুরু করে, তখনই তারা মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে।  এই পরিস্থিতি এমন পর্যায়েও যেতে পারে যখন শিশুরা নিজেদের বিষণ্নতায় দেখতে পায়।  জীবনের অন্যান্য বিষয়ের কারণে শিশুদের অগত্যা চাপের মধ্যে যেতে হয় না, তবে অনেক শিশু তাদের পড়াশোনা নিয়ে উদ্বেগ ও চাপের মধ্যে চলে যায়।  এ অবস্থা রোধও করা যায়, তবে এর দায়িত্ব শিশুদের অভিভাবকদের।


 হ্যাঁ, পড়াশুনা বা অন্যান্য বিষয়ের কারণে শিশুটি কী মানসিক অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে সে সম্পর্কে তাদের অভিভাবকদের সর্বদা সচেতন থাকতে হবে।  অনেক অভিভাবক যারা তাদের সন্তানদের মানসিক অবস্থার প্রতি খেয়াল রাখেন না, তাদের সন্তানদের মানসিক চাপ এক সময় মারাত্মক পরিস্থিতিতে পৌঁছে যায়।  তবে কিছু অভিভাবকের মনে প্রশ্ন থাকে যে পড়াশোনার কারণে সন্তানের মানসিক চাপের অবস্থা কীভাবে চিনবেন।  তাই এর জন্য আপনাকে চিন্তা করতে হবে না কারণ আমরা এই বিষয়ে কথা বলেছি ইনস্টিটিউট অফ সাইকোমেট্রিক অ্যাসেসমেন্ট অ্যান্ড কাউন্সেলিং-এর প্রেসিডেন্ট এবং মাইন্ড ডিজাইনার ডঃ কমলপ্রীত কৌরের সাথে।  পড়ালেখার কারণে শিশুদের মানসিক চাপ কীভাবে বাড়ে এবং এই মানসিক চাপ চেনার লক্ষণ কী তা কে বলেছেন।


 বাচ্চাদের পড়াশোনা নিয়ে চাপ কেন বাড়ে?


বিশেষজ্ঞ কোমলপ্রীত কৌর বলছেন, শিশুদের জীবনযাত্রার পরিবর্তন এবং পড়াশোনার চাপই এর প্রধান কারণ।  পড়ালেখার পাশাপাশি অন্যান্য জিনিসের চাপ দেখে শিশুদের মধ্যে পজিটিভ এনার্জি কমে যেতে শুরু করে এবং তারা ভয়ে থাকতে শুরু করে।  যার কারণে তারা মানসিক চাপ বা উদ্বেগের শিকার হতে শুরু করে।  ধীরে ধীরে এই পরিস্থিতি শিশুর মধ্যে নেতিবাচক শক্তি বাড়াতে শুরু করে যা একটি ভুল প্রক্রিয়া।  শুধু তাই নয়, অনেক সময় স্কুল ও পড়াশোনার মাঝামাঝি সময়ে অন্য শিশুর সঙ্গে মানসিক চাপের ঘটনা দেখে শিশুরাও আতঙ্কিত হতে শুরু করে।  সাধারণত দেখা যায় পরীক্ষায় ভালো করার ইচ্ছা থাকায় ছেলেমেয়েরা পড়াশোনা নিয়ে চিন্তিত থাকে।  এই সময়ে, তাদের অনেকভাবে চাপের সম্মুখীন হতে হয়, তা পরিবার থেকে হোক বা স্কুলের দিক থেকে।  যার কারণে শিশুরা এই চাপে নিজেকে ভুলে গিয়ে ভয়ের পরিবেশে থাকতে শুরু করে, যা মানসিক অবস্থার উপর খারাপ প্রভাব ফেলে।


 সন্তানের চাপের লক্ষণ


 আচরণে পরিবর্তন


বিশেষজ্ঞ কোমলপ্রীত কৌর বলেন, আপনার শিশু যখন পড়াশোনার কারণে মানসিক চাপ বা উদ্বেগের মধ্যে থাকে, তখন এই সময়ে আপনার শিশুর মধ্যে নানা ধরনের উপসর্গ বা লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করে।  যার সাহায্যে আপনি আপনার সন্তানদের চিনতে পারবেন যে আপনার সন্তান মানসিক চাপ বা দুশ্চিন্তায় রয়েছে।  কিন্তু অনেক অভিভাবকই তাদের সন্তানদের এমন লক্ষণ বা লক্ষণ উপেক্ষা করতে শুরু করেন যার কারণে শিশু এক সময় মারাত্মক রোগের শিকার হতে শুরু করে।  একইভাবে, যখন একটি শিশু পড়াশোনার কারণে দুশ্চিন্তা বা মানসিক চাপে থাকে, তখন এই সময়ের মধ্যে প্রথম লক্ষণটি হল আপনার সন্তানের আচরণ আগের চেয়ে অনেক বেশি আলাদা হয়ে যায়।  হ্যাঁ, এই সময়ে আপনার শিশু খুব শান্ত হয়ে উঠতে পারে, কারো সাথে কথা বলার ইচ্ছা দেখাতে পারে না বা হারিয়ে যেতে পারে।  আপনার সন্তান যদি আগে অনেক কথা বলত এবং হঠাৎ করে শান্ত হয়ে যায়, তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার শিশু মানসিক চাপ বা দুশ্চিন্তার শিকার হচ্ছে।



 রাতে ঘুমাতে সমস্যা


 মানসিক চাপের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ যা রাতে ঘুমাতে সমস্যা হচ্ছে বলে মনে করা হয়।  এটি শুধুমাত্র শিশুদের ক্ষেত্রেই নয়, বয়স্ক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রেও ঘটে যখন তারা গভীর উদ্বেগ বা মানসিক চাপের মধ্যে থাকে।  এই সময়ে, আপনার সন্তানেরও রাতে ঘুমাতে সমস্যা হতে পারে এবং সে বারবার জেগে উঠতে পারে।  যার কারণে তাদের পর্যাপ্ত ঘুম হয় না এবং তারা নিজেদের মানসিকভাবে অসুস্থ বোধ করতে পারে।  আপনি আপনার সন্তানকে রাত জেগে দেখে তার সমস্যা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করতে পারেন এবং আপনি এই চিহ্ন দ্বারা জানতে পারেন যে আপনার শিশু উদ্বেগের শিকার হচ্ছে।

 


 খাবার ছেড়ে দেওয়া


 আপনার শিশু এবং আপনার জন্য ডায়েট খুবই গুরুত্বপূর্ণ, যা আপনাকে সম্পূর্ণ সুস্থ রাখতে পারে এবং আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য রোগ থেকে দূরে রাখতে পারে।  কিন্তু যখন আপনার শিশু খেতে অস্বীকার করে এবং তার নিয়মিত খাবার খায় বা খুব কম খাবার খায়, তখন বুঝতে হবে আপনার শিশু মানসিক চাপের ঝুঁকিতে পড়তে পারে।  আপনার সন্তানের এই অভ্যাস দেখে তাদের সাথে কথা বলুন এবং জিজ্ঞাসা করুন কেন তারা তাদের নিয়মিত খাবার থেকে দূরে আছেন।


 বিরক্তি


 বিরক্তিও মানসিক চাপের অন্যতম লক্ষণ বা উপসর্গ যার সাহায্যে আপনি সনাক্ত করতে পারেন যে আপনার সন্তান মানসিক চাপের শিকার হচ্ছে।  আসুন আমরা আপনাকে বলি যে আপনার সন্তান যখন বিরক্তির সাথে জীবনযাপন শুরু করে, তখন আপনার এই পরিস্থিতিটিকে উপেক্ষা করা উচিত নয়, বরং আপনার সন্তানের এটি করার কারণ কী তা জানার চেষ্টা করা উচিৎ।

 


 সবসময় অধ্যয়নরত থাকা


 সবসময় পড়াশুনা করা এক ধরনের ভয় এবং চাপের কারণ হতে পারে, কিন্তু আপনি কি জানেন যে আপনার সন্তান যখন মানসিক চাপ বা উদ্বেগের মধ্যে থাকে তখনও এই পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।  বিশেষজ্ঞদের মতে, এমন অনেক শিশু আছে যারা পড়াশোনা বা পরীক্ষায় ভালো করতে ভয় পায় এবং একটানা পড়াশোনা শুরু করে।  এমন শিশুকে কিছু সময়ের জন্য পড়াশোনা ছেড়ে দিতে বললে তার ভালো লাগে না।  এ কারণে শিশুর মানসিক অবস্থা খারাপ হয়ে যায় এবং তারা মানসিক চাপ কমানোর সময় পায় না।


 কীভাবে শিশুর মানসিক চাপ কমানো যায়


 শিশুদের মানসিক চাপ কমাতে, তাদের প্রতিদিন ব্যায়াম বা শারীরিক কার্যকলাপ করার পরামর্শ দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।  এটির সাহায্যে, আপনার শিশু যেমন নিজেকে চাপমুক্ত করতে পারে তেমনি সে নিজের মধ্যে মানসিক শক্তিও বাড়াতে পারে।


 একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য শিশুর মানসিক ও শারীরিক অবস্থার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ, যার সাহায্যে আপনার শিশু সুস্থ থাকতে পারে এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকতে পারে।  শুধু তাই নয়, আপনি যখন আপনার শিশুকে পুষ্টিকর খাবার দেন, তখন তা আপনার সন্তানের মেজাজেরও উন্নতি ঘটায়।


 শিশুর শারীরিক লক্ষণ বা লক্ষণ দেখে তাদের সাথে কথা বলা এবং তাদের সমস্যা বোঝার চেষ্টা করা গুরুত্বপূর্ণ।  আপনার সন্তানের মানসিক চাপ কমাতে শিশুর সাথে প্রতিদিন তার পড়াশুনার বিষয়ে কথা বলুন এবং তাকে জিজ্ঞাসা করুন পড়াশোনায় কোন সমস্যা আছে কিনা।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad