বিজেপি এলেই চকলেট বোমা, হাড়িকাঠে দেওয়ার নিদান! বিতর্কে তৃণমূল বিধায়ক - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 12 November 2022

বিজেপি এলেই চকলেট বোমা, হাড়িকাঠে দেওয়ার নিদান! বিতর্কে তৃণমূল বিধায়ক


রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুকে নিয়ে রাজ্যের মন্ত্রী অখিল গিরির বক্তব্য নিয়ে বিতর্কের আঁচ এখনও থামেনি, এরই মধ্যে পিংলার তৃণমূল বিধায়ক অজিত মাইতি বক্তব্য ঘিরে তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি। ডেবরায় দলীয় কর্মসূচি চলাকালে তিনি বলেন, বিজেপি এলে চকোলেট বোমা দিয়ে তাড়াতে হবে। শুধু তাই নয়, জেলা নেতা এও বলেছেন যে, তারা যদি মতপার্থক্য তৈরি করার চেষ্টা করে তবে তারা বিজেপিকে উপযুক্ত জবাব দেবে।


উল্লেখ্য, সম্প্রতি আন্দোলনকারী এক চাকরিপ্রার্থীকে কামড়ানোর জন্য একজন মহিলা পুলিশকর্মীকে সমর্থন করে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন অজিত মাইতি। এর ২৪ ঘন্টা পরেই আবার এমন বক্তব্য দিয়ে শিরোনামে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর।


শুক্রবার দলের কর্মসূচিতে তিনি সিএএ ইস্যুতে কথা বলেন। তিনি বলেন, “ডিসেম্বরে দিল্লী থেকে বিজেপির কিছু কাক আসবে। আমরাও জানি কীভাবে কাক তাড়াতে হয়। আমরা ঘরে রাখা চকলেট বোমা ব্যবহার করব।" আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে তাঁর এই বক্তব্য রাজনৈতিক মহলে নতুন করে বিতর্কের জন্ম।  


পাশাপাশি এদিন তিনি বিজেপিকে 'বিভাজনকারী'ও বলেন। সভাস্থলে উপস্থিত দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে করে তিনি বলেন, "তারা এলে ‘জয় মা’ বলে হাড়িকাঠে রেখে কোপ দিয়ে দেবেন। সেইসঙ্গেই তিনি আরও বলেন, “আমি মানুষকে মারতে বলছি না। এ নিয়ে যেন আবার বিতর্ক না হয়।"


অজিত মাইতির মন্তব্যের সমালোচনা হয়েছে বিভিন্ন মহলে। এ প্রসঙ্গে বিজেপির ঘাটাল সাংগঠনিক জেলা সভাপতি তন্ময় দাস বলেন, 'তৃণমূলের পায়ের মাটি সরে গেছে। কর্মীরাও চলে যাচ্ছে। এজন্য নেতারা এত গরম গরম কথা বলছেন।' তৃণমূল বোমা-বন্দুকের রাজনীতি করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।  


এছাড়াও শাসক দলকে সতর্ক করে বিজেপি নেতা বলেন, "বেকার যুবকদের কাছ থেকে কর্মসংস্থানের নামে যে টাকা নিয়েছন, তা ফেরত দিন, না হলে তারা আপনাকে বলি দেবে।" 


 প্রসঙ্গত, আগামী বছর রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের মধ্যে শুরু হয়েছে তুমুল বাকযুদ্ধ। যার জেরে তেতে উঠেছে বঙ্গ রাজনীতি।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad