নিয়োগ কেলেঙ্কারির পর এই প্রথম প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের সাক্ষাৎকার! কড়া নিরাপত্তা - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 27 December 2022

নিয়োগ কেলেঙ্কারির পর এই প্রথম প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের সাক্ষাৎকার! কড়া নিরাপত্তা



শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির পর প্রথমবারের মতো প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের সাক্ষাৎকার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।  প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ নতুন প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে প্রথম থেকেই স্বচ্ছতার ওপর জোর দিয়েছিল।  ভবিষ্যৎ শিক্ষকদের সাক্ষাৎকার টেবিলের ওপরে ক্লোজড সার্কিট বা সিসি ক্যামেরা বসানোর মাধ্যমে নিয়োগ পর্ব শুরু হয়, যাতে প্রতিটি মুহূর্ত, প্রতিটি মুহূর্তের হিসাব পর্ষদের হাতে থাকে।  কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং প্রতি মুহূর্তে আলামত রাখা হচ্ছে।  বৈষম্য বা কারচুপির অভিযোগ না থাকার চেষ্টা করা হচ্ছে।



 হাইকোর্টের নির্দেশে গত ডিসেম্বরে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ, যার ইন্টারভিউ রাউন্ড মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়।  প্রথম ধাপে, কলকাতা জেলার টেট প্রার্থীদের নিয়োগের জন্য একটি সাক্ষাৎকার হবে।  এরপর জেলার প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে।


 

 আজ ছিল প্রথম পর্বের প্রথম দিন।  যারা টেট পাশ করেছে তাদের সকাল ১০টায় বোর্ড অফিসে ডাকা হয়।  সকাল ১১টায় ইন্টারভিউ ও অ্যাপটিটিউড টেস্ট শুরু হয়।  ৩ জন বিশেষজ্ঞ সহ মোট ৫টি টেবিল, প্রতিটি টেবিলের উপরে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা স্থাপন করা হয় এবং ইন্টারভিউ শুরু হয়।  উল্লেখ্য, এই সকল প্রার্থী হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী ২০১২, ২০১৪, ২০১৭ সালের প্রজ্ঞাপন জারি করে পুনঃনিবন্ধনের সুযোগ পেয়েছিলেন।  পর্ষদ ইতিমধ্যেই এই প্রার্থীদের উত্তরপত্র বা ওএমআর শীট হস্তান্তর করেছিল এবং এবার সাক্ষাৎকার এবং পরীক্ষার সম্পূর্ণ তত্ত্বাবধান করেছে।



পর্ষদের পক্ষে, উপসচিব পার্থ কর্মকার বলেন, “বোর্ড স্বচ্ছতার সাথে নিয়োগ প্রক্রিয়া পরিচালনা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।  স্বচ্ছতা বজায় রাখতে বেশ কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।  সাক্ষাৎকার ও পরীক্ষার আগে ও সময় প্রার্থীদের তথ্য যাচাইয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে।  পরীক্ষার্থীদের তথ্য সংগ্রহের প্রক্রিয়া কেমন?  পার্থ বলেন, প্রার্থীদের পরিচয়পত্র ও অন্যান্য নথিপত্র যাচাই-বাছাইয়ের পর তাদের যাচাই-বাছাই স্লিপ দেওয়া হচ্ছে।  স্লিপটি নির্দেশ করে যে কোন টেবিলে সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে।  সেই স্লিপ দিয়েই ইন্টারভিউ দিতে যাচ্ছেন প্রার্থীরা।


 

 ২০০ জন প্রার্থীকে দুটি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়েছে এবং প্রথম ১০০ জন প্রার্থীর সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছে সকাল ১১ থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত।  পরবর্তী পর্বে দুপুর ২টা থেকে ৪টা পর্যন্ত সাক্ষাৎকার হবে।  পার্থ বলেন, “সাক্ষাৎকার এবং অ্যাপটিটিউড টেস্ট একসাথে 5 নম্বরের হবে এবং মোট ১০ নম্বর থাকবে।  একসঙ্গে পাঁচটি টেবিলে সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে।  পুরো ঘটনার ভিডিওগ্রাফি করা হবে।  যাতে স্বচ্ছতার সঙ্গে কোনও আপস না হয়।"  তবে মঙ্গলবার কঠোর নজরদারিতে সাক্ষাৎকার নেওয়া দুই প্রার্থী বোর্ডের ব্যবস্থাপনায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।  তিনি বলেন, “আমরা আশাবাদী, এর পর হয়তো আমরা আমাদের পাওনা পাব।  প্রার্থীদের ইন্টারভিউ টেবিলে সাদা বোর্ডে ক্লাস নিতে হবে।  একজন শিক্ষক যেভাবে শিক্ষার্থীদের পড়ান সেইভাবে বিশেষজ্ঞদের তাদের বিষয় পড়াতে হবে।  পরীক্ষকরা বলেছেন এটি একেবারে নতুন।"


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad