কংগ্রেস গড়ে ক্ষোভের মুখে দিদির দূত! মন্ত্রীকে পেয়েই এক গুচ্ছ নালিশ - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 17 January 2023

কংগ্রেস গড়ে ক্ষোভের মুখে দিদির দূত! মন্ত্রীকে পেয়েই এক গুচ্ছ নালিশ


মালদা: কাটমানি দিতে না পারায় মেলেনি আবাস যোজনার ঘর, কংগ্রেস পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতে দিদির দূত কর্মসূচিতে মন্ত্রীকে অভিযোগ তৃণমূল কর্মীদের, অভিযোগ শুনেই কংগ্রেস প্রধানের বাড়িতে মন্ত্রী। শুরুতেই মানুষের ব্যাপক সাড়া, দাবী তৃণমূলের, পুলিশের সুরক্ষা না নিলে মানুষ ঝাঁটাপেটা করতো কটাক্ষ বিজেপির, আমার বাড়ি না এসে গরিবদের বাড়ি যাক খোঁচা প্রধানের, তুঙ্গে রাজনৈতিক তরজা। 


কংগ্রেস গড়ে দিদির দূত কর্মসূচিতে গিয়ে সরকারি সুবিধা থেকে বঞ্চিত তৃণমূল কর্মীদের ক্ষোভের মুখে পড়লেন এলাকার বিধায়ক তথা রাজ্যের প্রতিমন্ত্রী। কংগ্রেস পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতের আবাস যোজনার ঘর থেকে শুরু করে অন্যান্য সুবিধা পাননি তৃণমূল কর্মীরা, এমন অভিযোগ শুনেই সোজা কংগ্রেসের পঞ্চায়েত প্রধানের বাড়িতে পৌঁছে যান মন্ত্রী। বিস্তারিত বুঝিয়ে আসেন রাজ্য সরকারের প্রকল্প।  


মঙ্গলবার হরিশ্চন্দ্রপুর বিধানসভার অন্তর্গত ভিঙ্গল গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় দিদির দূত হয়ে যান এলাকার বিধায়ক তথা রাজ্যের প্রতিমন্ত্রী তাজমুল হোসেন। সঙ্গে ছিলেন জেলা পরিষদ সদস্যা মর্জিনা খাতুন, জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক জম্মু রহমান এবং বুলবুল খান, মহিলা তৃণমূল নেত্রী শামীমা রহমান সহ অন্যান্য নেতৃত্ব। ভিঙ্গল গ্রাম পঞ্চায়েত কংগ্রেস পরিচালিত। 


২০১৮ সালে বহু পঞ্চায়েত কংগ্রেসের হাত ছাড়া হলেও ভিঙ্গলকে হাতছাড়া হতে দেয়নি হাত শিবির। এই এলাকা এখনও কংগ্রেস গড় বলেই পরিচিত। সেখানেই এদিন দিদির দূত হয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের সঙ্গে কথা বলেন মন্ত্রী তাজমুল হোসেন। শুভেচ্ছা বিনিময় করে পথ চলতি মানুষদের সঙ্গে। তার মাঝেই এলাকার একটি তৃণমূল পরিবার সহ কয়েকজন এলাকাবাসীর ক্ষোভের মুখে পড়তে হয় মন্ত্রীকে। 


তাদের অভিযোগ, কংগ্রেস পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতে তারা কাটমানি দিতে পারেননি বলে আবাস যোজনার তালিকায় নাম নেই। পরিবারে প্রতিবন্ধী সদস্য থাকা সত্বেও প্রতিবন্ধী ভাতা ছাড়া অন্য কোনও সুবিধা মেলেনি; মেলে না লক্ষ্মীর ভান্ডারের টাকা। অভিযোগ শুনে তাদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন মন্ত্রী। তারপরেই সোজা চলে যান কংগ্রেসের পঞ্চায়েত প্রধান বিমান বিহারী বসাকের বাড়িতে। বিস্তারিত ভাবে রাজ্য সরকারের প্রকল্প বুঝিয়ে আসেন। মাঝে আচমকা ভিঙ্গল জুনিয়র বেসিক স্কুলেও ঢুকে পড়েন মন্ত্রী। ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে খোঁজ নেন বিদ্যালয়ের পরিস্থিতি নিয়ে। জিজ্ঞাসা করেন সকলে সঠিক ভাবে মিড ডে মিল পাচ্ছে কি না। 


তৃণমূলের দাবী, কংগ্রেসের এলাকা হলেও মানুষ রাজ্য সরকারের প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়ন বাড়ি বাড়ি পৌঁছে গেছে। তাই ব্যাপক সাড়া মানুষের মধ্যে। এবার এই পঞ্চায়েত তৃণমূল দখল করবে বলেও আশাবাদী তারা। 


তবে, এই নিয়ে কটাক্ষ ছুঁড়ে দিয়েছে কংগ্রেস এবং বিজেপি। মন্ত্রী তাজমুল হোসেনের সঙ্গে ছিল তার কনভয়। বিরোধীদের দাবী, পুলিশ ছাড়া এলাকায় ঢুকলে মানুষ ঝাঁটাপেটা করে বের করত, প্রথমে গরীব মানুষ গুলোর সমস্যা শুনে তবে নয় আমার বাড়িতে আসুক। যদিও বিরোধীদের গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল। 


এলাকার বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী তাজমুল হোসেন বলেন, 'মানুষের সঙ্গে কথা বলছি। দিদির উন্নয়ন ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে। মানুষ খুব খুশি। কারও কোনও অভিযোগ থাকলে সেটাও শোনা হচ্ছে। এই এলাকায় এবার আমরা জয়লাভ করব। বিরোধীদের কথায় কান দিয়ে লাভ নেই।' 


এলাকার তৃণমূল কর্মী গৌতম কুমার দাস বলেন, 'আমার ভাই প্রতিবন্ধী। বিএ পাশ করার পরেও কোন চাকরি পায়নি। জেলা থেকে শুরু করে রাজ্যের সব জায়গায় দরবার করেছি। কাটমানি দিতে পারিনি বলে ঘরের তালিকায় নাম নেই। বহুদিন আগে থেকেই তৃণমূল করি। কিন্তু আমরা কোনও সুবিধা পাচ্ছি না।' 


পঞ্চায়েত প্রধান বিমান বিহারী বসাকের স্ত্রী বলেন, 'মন্ত্রী এসেছিলেন আমাদের বাড়িতে। কাগজ এবং ক্যালেন্ডার দিয়ে গেলেন।' 


কংগ্রেসের পঞ্চায়েত প্রধান বিমান বিহারী বসাক বলেন, আমার বাড়িতে না এসে গরীব মানুষগুলোর বাড়িতে যাক। তাদের অভিযোগ শুনুক। তৃণমূল সারা রাজ্য জুড়ে আছে, কাটমানি কারা নেয় সবাই জানে।' 


বিজেপির জেলা কমিটির সদস্য কিষান কেডিয়া বলেন, 'পুলিশের সুরক্ষা নিয়ে যাচ্ছে। সেই ভয়ে মানুষ বিক্ষোভ দেখাচ্ছে না। পুলিশ ছাড়া যাক, মানুষ ঝাঁটা পেটা করে বিদায় করবে।'


এগিয়ে আসছে পঞ্চায়েত ভোট। জনসংযোগ বাড়াতে তৃণমূলের নতুন কর্মসূচি দিদির সুরক্ষা কবচ শুরু হয়েছে। তবে কর্মসূচি শুরু হতেই   দিদির দূতেরা যেমন দিকে-দিকে বিক্ষোভের মুখে পড়ছেন, তেমন বিরোধীরাও অনবরত তোপ দাগছেন। সব মিলিয়ে পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই চড়ছে‌ রাজনৈতিক পারদ।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad