সাইবার ক্রাইম থেকে বাঁচার জন্য নতুন নিয়ম জারি করল ভারত সরকার - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 29 April 2022

সাইবার ক্রাইম থেকে বাঁচার জন্য নতুন নিয়ম জারি করল ভারত সরকার


কয়েক বছরে ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোনে মানুষের অ্যাক্সেস সহজ হয়েছে। এর পাশাপাশি বেড়েছে সাইবার অপরাধও। যার প্রভাব পড়ছে দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতেও। সরকারী সংস্থাগুলি এই সমস্যা কমাতে এবং দেশের নাগরিকদের সাহায্য করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে।


স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সাইবার অপরাধের বিস্তার সম্পর্কে সচেতনতা ছড়িয়ে দিতে @সাইবার দোস্ত ট্যুইটার হ্যান্ডেল চালু করেছে। আমরা আপনাকে বলি যে এই ট্যুইটার হ্যান্ডেলটি ছোট ভিডিও, ছবি এবং ক্রিয়েটিভের মাধ্যমে ১০৬৬টিরও বেশি সাইবার নিরাপত্তা টিপস ট্যুইট করেছে। এর ৩.৬৪ লক্ষেরও বেশি ফলোয়ার রয়েছে।


 কেন্দ্রীয় সরকার সাইবার অপরাধ সচেতনতার জন্য জনসাধারণকে ১০০ কোটিরও বেশি এসএমএস পাঠিয়েছে। এর সঙ্গে তিনি সাইবার অপরাধ প্রতিরোধে প্রচারণা চালিয়েছেন এবং ট্যুইটার, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টেলিগ্রামের মতো বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ভিডিও এবং জিআইএফ ব্যবহার করে সাইবার নিরাপত্তা টিপস শেয়ার করেছেন। এর পাশাপাশি সরকার সাইবার সিকিউরিটি বিষয়ে কিশোর/ছাত্রদের জন্য হ্যান্ডবুক প্রকাশের মতো পদক্ষেপও নিয়েছে। সরকার পুলিশ বিভাগের সহযোগিতায় এবং সি-ড্যাকের মাধ্যমে বিভিন্ন রাজ্যে সাইবার নিরাপত্তা ও নিরাপত্তা সচেতনতা সপ্তাহের আয়োজন করেছে।



ভারতীয় সাইবার ক্রাইম কোঅর্ডিনেশন সেন্টার একটি প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসাবে রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল মন্ত্রক/বিভাগের সঙ্গে সাইবার ক্রাইম পরামর্শ জারি করেছে। দিল্লি মেট্রোকে স্থানীয় স্তরে জাতীয় সাইবার ক্রাইম রিপোর্টিং প্রচার করার জন্যও অনুরোধ করা হয়েছে। সরকার ২০২২ সালের জানুয়ারিতে সাইবার হাইজিন ফর সাইবারস্পেস করণীয় এবং করণীয় বিষয়ে দুটি দ্বিভাষিক ম্যানুয়াল প্রবর্তন করে। সরকারের লক্ষ্য ছিল ইন্টারনেট নিরাপত্তা ও ইমেল মোবাইল নিরাপত্তা ইত্যাদি বিষয়ে মৌলিক সাইবার স্বাস্থ্যবিধি প্রদান করা।


 ৬ই অক্টোবর ২০২১ থেকে প্রতি মাসের প্রথম বুধবার সকাল ১১ টায় সাইবার হাইজিনের উপর সাইবার সচেতনতা দিবস আয়োজন করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে অনুরোধ করা হয়েছে। এছাড়াও সমস্ত স্কুল/কলেজে স্থানীয় ভাষায় সচেতনতামূলক প্রচারণা চালানো হচ্ছে।  এর পাশাপাশি ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সাইবার নিরাপত্তা ও সাইবার হাইজিন সংক্রান্ত কোর্স চালু করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হয়েছে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad