লাউডস্পিকার নিয়ে যোগী সরকারের অ্যাকশন - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 1 May 2022

লাউডস্পিকার নিয়ে যোগী সরকারের অ্যাকশন



  মহারাষ্ট্র থেকে শুরু হওয়া লাউডস্পিকারের সমস্যা ধীরে ধীরে দেশের অনেক রাজ্যে পৌঁছেছে।  বেশিরভাগ জায়গায়, রাজ্য সরকারগুলি তাদের সরানোর নির্দেশ দিয়েছে। অনেক রাজ্যে তা নিয়ে বিরোধ চলছে।  এই সবের মাঝে, একটি রাজ্য রয়েছে যেখানে বিরোধ ছাড়া লাউডস্পিকারগুলি সবচেয়ে দ্রুত সরানো হচ্ছে।  আজ লাউডস্পিকার ইস্যুতে সারা দেশে উদাহরণ হয়ে উঠছে উত্তরপ্রদেশ।  



 সিএম যোগীর নির্দেশের পরে, রাজ্যের বিভাগীয় এবং জেলা থেকে তহসিল এবং ব্লক স্তরে নিয়ম-নীতি লঙ্ঘনকারী লাউডস্পিকারগুলি সরানো হচ্ছে।  এ কাজে কোনও ধরনের বৈষম্য নেই।  মন্দির, মসজিদ, গীর্জা ও অন্যান্য ধর্মীয় স্থান থেকেও লাউডস্পিকার সরিয়ে ফেলা হচ্ছে।  কাউকে ত্রাণ দেওয়া হচ্ছে না।


 ধর্মগুরুরাও স্বাগত জানাচ্ছেন


 অযোধ্যার হনুমান গড়ি মন্দিরের মহন্ত রাজু দাস বলেন, "প্রথম থেকেই নির্ধারিত মান অনুযায়ী লাউডস্পিকার বাজানো হচ্ছে।  অতীতে বসানো লাউডস্পিকারের সংখ্যাও কমেছে।  নিয়ম উপেক্ষা করে ধর্মীয় স্থানের লাউডস্পিকার সরানোর মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত প্রশংসনীয়।  আমরা এটাকে স্বাগত জানাই।"  একইসঙ্গে বাবরি মসজিদের প্রাক্তন পক্ষের ইকবার আনসারি বলছেন, লাউডস্পিকার সরানোর সিদ্ধান্ত ভালো।  মুসলমানদের কোনও আপত্তি নেই।  আজানের ধ্বনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে পৌঁছে যায়।  নিচু স্বরে ধর্মীয় গ্রন্থ পড়া ভালো।  শান্তিতেই পূজা ভালো।  যেখানে ঢোল-মাঝিরা বাজানো হয়, সেখানেই তোলপাড় হয়।


 লখনউতে কোনও প্রতিবাদ হয়নি


 লখনউয়ের চক এলাকায় 114টি মসজিদ এবং 49টি মন্দির রয়েছে।  এখানে শনিবার যেখানেই লাউডস্পিকারগুলোকে নিয়ম ভাঙতে দেখা গেছে, সেগুলো সরিয়ে ফেলা হয়েছে।  অনেক লাউডস্পিকার যেগুলোর কণ্ঠস্বর কম ছিল।  পুরো অভিযানে কোথাও কোনও প্রতিবাদ বা হট্টগোল হয়নি।  একই গল্প অন্যান্য শহরের জন্যও রয়েছে।  এখন পর্যন্ত কোথাও থেকে এই পদক্ষেপের বিরোধিতার খবর পাওয়া যায়নি।


 পরিসংখ্যান একটি কটাক্ষপাত


 উত্তরপ্রদেশে 29শে এপ্রিল পর্যন্ত বিপুল সংখ্যক লাউডস্পিকার সরানো হয়েছে।  বেরেলি জোন থেকে 9835টি লাউডস্পিকার, লখনউ জোন থেকে 5183টি, গোরখপুর জোন থেকে 4149টি, বারাণসী জোন থেকে 4407টি, মিরাট জোন থেকে 7330টি, প্রয়াগরাজ থেকে 1828টি, আগ্রা জোন থেকে 1618টি এবং কানপুর জোন থেকে 1403টি জায়গা সহ সবচেয়ে বেশি 1403টি জায়গা থেকে সরানো হয়েছে। লাউডস্পিকার অপসারণ করা হয়েছে।  এ ছাড়া মান অনুযায়ী 54 হাজারের বেশি লাউডস্পিকারের শব্দ মন্থর করা হয়েছে।


 প্রশংসা করেছেন রাজ ঠাকরেও


 এমএনএস প্রধান রাজ ঠাকরে, যিনি এই বিতর্ক শুরু করেছিলেন, তিনিও যোগী আদিত্যনাথের প্রশংসা করেছেন।  তিনি ট্যুইটারে লিখেছেন, “ধর্মীয় স্থান, বিশেষ করে মসজিদ থেকে লাউডস্পিকার সরানোর জন্য আমি যোগী সরকারকে আন্তরিকভাবে অভিনন্দন জানাই।  দুর্ভাগ্যবশত মহারাষ্ট্রে কোনও 'যোগী' নেই, আমাদের ভোগী আছে।  আমি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি যেন তিনি আমাকে বুদ্ধি দেন।"


 এই বিষয়ে সিএম যোগী আদিত্যনাথ বলেন, " আমি এই কাজটি করতে পারি এবং আমি করব, আমাদের এই ইচ্ছাশক্তি নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।  সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হবে।  এর জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।  আমাদের মাঠে নেতার ভূমিকা পালন করতে হবে।"


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad