পর্যাপ্ত ঘুম পেতে এই ব্যবস্থাগুলো অবলম্বন করতে পারেন - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 28 May 2022

পর্যাপ্ত ঘুম পেতে এই ব্যবস্থাগুলো অবলম্বন করতে পারেন


শারীরিকভাবে সুস্থ থাকার জন্য যেমন সুষম খাদ্য এবং প্রতিদিনের ব্যায়াম প্রয়োজন, ঠিক তেমনি মানসিকভাবে সুস্থ থাকার জন্য রাতে ৮ ঘণ্টা ঘুম (৮ ঘণ্টা ঘুম) খুবই জরুরি। আজকাল জীবনযাত্রার পরিবর্তনের কারণে আমরা রাতে ভালো ঘুমাতে পারি না। গভীর রাত পর্যন্ত টিভি দেখা, মোবাইলে খোঁজাখুঁজি এবং বাসা থেকে কাজের কারণে সবসময় অফিসে যুক্ত থাকার কারণে বেশিরভাগ নারীর বডি ক্লক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আপনিও যদি এই কারণে রাতে ভালো ঘুমাতে না পারেন বা মাঝরাতে ঘুম থেকে উঠতে না পারেন, তাহলে আমরা আপনাকে সাহায্য করতে এখানে আছি। জেনে নিন সারা রাত ভালো ঘুমের সহজ কিছু টিপস।


আপনার ঘুম কেন ব্যাহত হয় তা বুঝুন

মানবদেহ যেকোন কিছু দ্রুত শিখে ফেলে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শৈশবে যেমন আমরা অ্যালার্ম ছাড়াই ভোর ৪টায় ঘুম থেকে উঠতাম, তেমনি বছরের পর বছর একটানা গভীর রাত পর্যন্ত জেগে থাকার কারণে আমাদের শরীর একই রকম থাকতে শিখেছে।


তারপর যখন আমরা ঘুমাতে যাই তখন স্নায়ু ট্রান্সমিটার ঘুমের হরমোনের পরিবর্তে শরীরে জেগে ওঠা হরমোনকে সক্রিয় করে এবং আমরা ঘুমের অনিদ্রার শিকার হই। কাজের চাপের কারণে কিছুক্ষণ ঘুমানোর পর আমরা মাঝরাতে একটি নির্দিষ্ট সময়ে ঘুম থেকে উঠে আবার ঘুমাতে পারি না। রাতের ঘুমের সমস্যা কীভাবে নিরাময় করা যায় সে সম্পর্কে আমরা নয়ডার এসআরএস হাসপাতালের কনসালটেন্ট সাইকোলজিস্ট ডাঃ আভা সিং-এর সাথে কথা বলেছি।


স্লিপ অ্যাপনিয়া তাৎক্ষণিকভাবে নিরাময় হয় না

ডাঃ আভা বলেন, ঘুমের অনিদ্রা তাৎক্ষণিকভাবে সারানো যায় না। দীর্ঘ সময় ধরে অনুশীলন করলে এই সমস্যা কাটিয়ে ওঠা যায়। দীর্ঘক্ষণ কম্পিউটার-ল্যাপটপ, টিভি, মোবাইলে কাজ করার পর যদি আমরা ঘুমাতে যাই, তাহলে সেই গ্যাজেটে শেয়ার করা সব জিনিসই আমাদের মনে ছুটতে থাকে।


আমাদের মন শিথিল হওয়ার পরিবর্তে চাপে পড়ে। ঘুমানোর ১-২ ঘণ্টা আগে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে টেলিফোনে কথাবার্তাও মন খারাপ করে। তখন আমরা ঘুমাতে পারি না।


ঘুমের অভাবের কারণে হতাশা, উদ্বেগ, সক্রিয় না থাকা সাধারণ ঘটনা। ভালো ঘুম পেতে হলে আমাদের নিজেদেরকে সচেতন করতে হবে। ঘুমানোর আগে টিভি, মোবাইল থেকে দূরে থেকে ঘুমের ধরন পরিবর্তন করতে হবে।


ভালো ঘুমের জন্য আমরা এই টিপস অনুসরণ করতে পারি


দুর্দান্ত বই পড়ুন বা হালকা সঙ্গীত শুনুন

অফিসের কাজ, সময়সীমাকে কখনই আপনার উপর কর্তৃত্ব করতে দেবেন না। অফিস সময়ের পরে সেই অধ্যায়টি বন্ধ করুন। অফিসের বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা না করে পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। ঘুমানোর 1-2 ঘন্টা আগে বই পড়ুন।


অনুপ্রেরণামূলক বা হালকা-হৃদয় গল্প আমাদের হৃদয় এবং মন উভয়কে শিথিল করে। ঘুমানোর আগে প্রশান্তিদায়ক গান শোনাও উপকারী প্রমাণিত হয়।


জপ করার প্রভাব:

হিন্দি, সংস্কৃত, ইংরেজি বা আপনার যেকোনো ভাষায় মন্ত্র উচ্চারণ করলে মন ও মন উভয়ই শান্ত হয়। একটি মন্ত্র বারবার পুনরাবৃত্তি করা মনকে একাগ্র করতে সাহায্য করে। আমাদের মস্তিষ্ক শিথিল হয়ে গভীর ঘুমে যাওয়ার প্রক্রিয়ার দিকে এগিয়ে যায়।


যোগ নিদ্রা বা শবাসন সহায়ক হতে পারে:

কিছু যোগাসন ঘুমানোর আগে বলা হয়, যার মধ্যে সবচেয়ে কার্যকর হল যোগ নিদ্রা। শবাসন মানে পিঠের উপর শুয়ে পড়ুন। আপনার মনে এবং মাথায় আসা চিন্তাগুলিকে উপেক্ষা করুন, যাতে সেগুলি আবার আপনার কাছে না আসে। 15-20 মিনিট যোগ নিদ্রা করলে মন এবং মন উভয়ই শান্ত হয়। ঘুমানোর আগে কখনোই বেশি ব্যায়াম করবেন না। একটি কথা মনে রাখবেন যোগ নিদ্রার পাশাপাশি, ঘুমানোর সময় কখনই আঁটসাঁট পোশাক ব্যবহার করবেন না। শুধু ঢিলেঢালা পোশাকে ঘুমান।


গরম দুধ নিন:

ঘুমানোর আগে গরম দুধ খাওয়া ভালো। এর সাথে, ম্যাগনেসিয়ামও পেশী শিথিল করতে এবং চাপ উপশম করতে সহায়তা করে। ভুনা কাজু, বাদাম ইত্যাদিতে ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া যায়। যদি ঘুমানোর 1-2 ঘন্টা আগে গোসল করার অভ্যাস থাকে, তাহলে জলে ম্যাগনেসিয়াম ফ্ল্যাক্স যোগ করা যেতে পারে। আপনার ত্বক এটি শোষণ করতে পারে। শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে ম্যাগনেসিয়াম খান।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad