বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বনভূমি! - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 14 May 2022

বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বনভূমি!

 






এই পৃথিবীতে এমন অনেক জায়গা আছে যেগুলো তাদের অলৌকিক কার্যকলাপের জন্য পরিচিত। এখানে ঘটে যাওয়া অদ্ভুত ঘটনাগুলো তাদের ভীতিকর করে তোলে। আজ আমরা আপনাকে এমন একটি বিপজ্জনক জায়গা সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি যেখানে গেলে মানুষের আত্মা কেঁপে ওঠে। আমরা কথা বলছি ৭০০ একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত ট্রান্সিলভেনিয়ার হোইয়া বাইকু বন সম্পর্কে, এটি বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বনগুলির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচিত হয়।



এই জায়গাটি সম্পর্কে বলা হয় যে এখানে ভূতের ক্যাম্প রয়েছে, যার কারণে যারা এই বনে গেছে তারা ফিরে আসতে পারে না। এই বনের ভিতরে যাওয়ার পর শত শত মানুষ রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়েছে, যার কোনো হদিস এখনও পাওয়া যায়নি।  শুধু তাই নয়, এই জঙ্গল থেকে ২০০টি ভেড়াসহ এক রাখাল নিখোঁজ হওয়ার গল্পও রয়েছে।



 কয়েক বছর আগে এক ব্যক্তি দাবি করেছিলেন যে তিনি এই বনে একটি ইউএফও দেখেছেন। এর পাশাপাশি এখানে বেড়াতে আসা কিছু পর্যটকও উল্লেখ করেছেন।  এখানে কিছু অলৌকিক জিনিস দেখছেন।



আরেকটি অদ্ভুত গল্প হল এখানে ১৫ শতকে একজন মহিলা পকেটে একটি মুদ্রা নিয়ে এসে অদৃশ্য হয়ে যান। বহু বছর পর সেই মহিলাটিও সেই একই মুদ্রা পকেটে নিয়ে বন থেকে ফিরে আসেন। এই বনের আশেপাশে বসবাসকারী লোকজন  বনের চারপাশে যাওয়ার সাহস করে না।লোকেদের মতে, বনের ভিতরে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই হঠাৎ করে ভয়ানক ফুসকুড়ি, মাথাব্যথা এবং ত্বক পুড়ে যাওয়ার মত সম্ভবনা হয়।



 এ এলাকায় এক রাখাল নিখোঁজ হলে এ বন নিয়ে মানুষের আগ্রহ জেগে ওঠে।  ১৯৬০ সালে, জীববিজ্ঞানী আলেকজান্দ্রু সিফ্ট তার একটি ছবির মাধ্যমে বনে একটি উড়ন্ত বস্তু দেখিয়েছিলেন।  এরপর এখানে ইউএফও দেখার কথাও বলা হচ্ছিল।  এরকম অনেক জনপ্রিয় ঘটনা এবং গল্প এই বনকে ভয়ঙ্কর করে তোলে এবং পর্যটকদের এখানে আসতে বাধা দেয়।

  



No comments:

Post a Comment

Post Top Ad