দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পরে কি পুনরুদ্ধার করা যায়? - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 12 June 2022

দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পরে কি পুনরুদ্ধার করা যায়?


সকালের জলকাবার হোক বা দুপুরের খাবার, আজকাল বাচ্চাদের খাবারে অনেক বেশি আসে।  শিশু ছোট হোক বা বড়, তাকে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ানো কোনো কাজের চেয়ে কম নয়।  কিন্তু পিৎজা, বার্গার, পেস্ট্রি, কেক এবং নুডুলসের মতো জিনিস বাচ্চারা খুব পছন্দ করে।  পেট ভরে গেলেও শিশুরা আরামে খায়।  এমনকি আপনি যদি বাচ্চাদের সামনে স্ন্যাকসের পুরো প্লেট রাখেন তবে সম্ভবত এটি কম পড়বে।  এসব জাঙ্ক ফুড শিশুদের স্বাস্থ্যের জন্য যেমন ক্ষতিকর, তেমনি তাদের মুখের স্বাস্থ্যের জন্যও ক্ষতিকর।  শিশুরা যদি প্রতিদিন জাঙ্ক ফুড খায়, তাহলে দাঁত হলুদ হওয়া এবং মাড়ি ফুলে যাওয়ার মতো সমস্যা হতে পারে।


এর পাশাপাশি অনেক সময় বেশি করে আইসক্রিম, কোল্ড ড্রিঙ্কস পান করাও শিশুদের মুখের স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলে।  এ কারণে দাঁতে শক্ত শিরশির অনুভূতির মতো নানা সমস্যা দেখা দেয়।  যাইহোক, বেশিরভাগ অভিভাবকই বুঝতে পারেন না যে কীভাবে তাদের সন্তানদের মৌখিক যত্ন নেওয়া যায়।  এজন্য আমরা বিশেষজ্ঞদের সাথে এই বিষয়ে কথা বলেছি এবং জেনেছি যে স্ন্যাকস যদি মুখের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে তবে আমরা কীভাবে এটি ঠিক করব। 


গুরুগ্রামের আলফা ডেন্টাল ক্লিনিকের অনুশীলনকারী ডেন্টাল সার্জন ডাঃ খুশবু মুদগাল বলেছেন যে সত্য যে একবার আমাদের দাঁত নষ্ট হয়ে গেলে কোনো ওষুধই তাদের স্বাভাবিক সুস্থ অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে পারে না।  আপনার শিশু যদি পিৎজা, বার্গার, চিপস, ক্রিস্প বা অন্যান্য জাঙ্ক ফুড খায় তাহলে তা দুধের দাঁত ক্ষয় এবং মাড়ির সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।  যদি শিশুর দুধের দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তবে এটি ভবিষ্যতের দাঁতের উপরও প্রভাব ফেলতে পারে।  ডাক্তার খুশবু মুদগাল বলেছেন যে একবার দাঁতে প্লাক এবং টারটার জমে গেলে তা অপসারণ করা খুব কঠিন।


 মুখের স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়ার উপায়


 শিশুদের মুখের স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়ার জন্য, তাদের ব্রাশ করার অভ্যাস গড়ে তোলা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।


 সকালে ঘুম থেকে ওঠার সাথে সাথে বাচ্চাদের ব্রাশ করান এবং মাউথওয়াশ দিয়ে তাদের মুখ ভালোভাবে পরিষ্কার করতে বলুন।


 দাঁত ব্রাশ করার জন্য শুধুমাত্র ফ্লোরাইড টুথপেস্ট ব্যবহার করুন।  ফ্লোরাইড হল এমনই একটি রাসায়নিক যা দাঁতকে ক্ষয় এবং গহ্বর থেকে রক্ষা করতে সহায়ক।


 দাঁতের মধ্যে থাকা খাবারের টুকরো পরিষ্কার করতে ফ্লস ব্যবহার করার পরামর্শ দিন।


 শিশুদের নিয়মিত ডেন্টিস্টের কাছে নিয়ে যান।  এটি দাঁতে প্লাক এবং টারটার জমা হওয়া রোধ করতে পারে।


 খাবার বা অন্য কিছু খাওয়ার পর বাচ্চাদের ধুয়ে ফেলার অভ্যাস গড়ে তুলুন।  এটা করলে ক্যাভিটির সমস্যা হবে না।


 শিশুদের মুখের স্বাস্থ্য সবসময় ভালো রাখতে তাদের পর্যাপ্ত জল পানের অভ্যাস করুন।


 চিকিৎসকের মতে, এর মধ্যে জল পান করা মুখের মধ্যে তৈরি হওয়া নেতিবাচক প্রভাবগুলির উপর প্রভাব ফেলে এবং এটি দাঁতকে ক্ষয় থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad