পুলিশ কর্মীর কলার ধরে ঝাঁকুনি! ভাইরাল কংগ্রেস নেত্রী - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 16 June 2022

পুলিশ কর্মীর কলার ধরে ঝাঁকুনি! ভাইরাল কংগ্রেস নেত্রী



ন্যাশনাল হেরাল্ড মামলায় কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে ক্রমাগত জেরা করছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।  ইডি-তে কংগ্রেস নেতার উপস্থিতিতে ক্ষুব্ধ কংগ্রেস নেতা-কর্মীরা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করে চলেছেন।  কংগ্রেস নেতা-কর্মীদের তীব্র বিক্ষোভের পরিপ্রেক্ষিতে সমস্ত রাজ্যে মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।  এদিকে ক্যামেরায় ধরা পড়ল কংগ্রেস নেত্রী রেণুকা চৌধুরীর এক কীর্তি।  ভিডিওতে দেখা যায়, হায়দরাবাদে বিক্ষোভ চলাকালে কংগ্রেস নেত্রী রেণুকা চৌধুরী এক পুলিশকর্মীর কলার চেপে ধরেছেন।  এই ঘটনায় এবার রেণুকা চৌধুরীকে আক্রমণ করেছে বিজেপি।  তেলেঙ্গানায় কংগ্রেস নেত্রী রেণুকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।



 হায়দরাবাদে বিক্ষোভ চলাকালে এক পুলিশকর্মীর কলার চেপে ধরার জন্য কংগ্রেস নেত্রী তথা প্রাক্তন সাংসদ রেণুকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।  ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৩ ধারায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।  ৩৫৩ ধারায় একটি বিধান রয়েছে যে কেউ যদি তার দায়িত্ব পালনের সময় কোনও সরকারী কর্মচারীকে বাধা দেয় বা আক্রমণ করে তবে সে শাস্তির যোগ্য।



সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরে সমালোচনার মুখোমুখি হওয়া কংগ্রেস নেত্রী রেণুকা চৌধুরী স্পষ্ট করেছেন যে, "পুলিশ সদস্যকে আক্রমণ করার আমার কোনও উদ্দেশ্য ছিল না।  আপনি সমস্ত ভিডিওতে দেখতে পাচ্ছেন যে কেউ আমাকে ধাক্কা দিয়েছে, যার ফলে আমার হাত পিছলে গিয়ে তার কাঁধের পরিবর্তে তার কলারে পৌঁছেছে।  যারাই আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন, তাদের ভিডিওটি মনোযোগ দিয়ে দেখা উচিৎ।" রেণুকা চৌধুরী বলেন, "ওরা আমাকে ধাক্কা দিচ্ছিল, আমার পায়ে সমস্যা আছে।  আমি আমার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছিলাম তাই আমি সেই পুলিশ সদস্যের উপর পড়েছিলাম।  আমি আশা করি যে পুলিশ সদস্যরা আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করেছে তারা আমার কাছে ক্ষমা চাইবে।  সবার আগে পুলিশ আধিকারিকদের জবাব দিতে হবে কেন আমার চারপাশে এত পুরুষ পুলিশ ছিল?"


 

  তেলেঙ্গানা, কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র সহ অনেক রাজ্যে কংগ্রেস নেতাদের তরফে বিক্ষোভ তীব্র হতে শুরু করেছে।  মহারাষ্ট্রে বিক্ষোভরত মহারাষ্ট্র সরকারের সিনিয়র মন্ত্রীসহ দলের নেতাদের পুলিশ হেফাজতে নিয়েছে।  বিক্ষোভ চলাকালীন রাজভবনের গেটের বাইরে রাখা ব্যারিকেডগুলি সরিয়ে ফেলার কংগ্রেস নেতাদের প্রচেষ্টার প্রতিক্রিয়ায় পুলিশ কাজ করেছে।  পুলিশ আধিকারিকদের মতে, রাজ্য কংগ্রেস সভাপতি নানা পাটোলে, পিডব্লিউডি মন্ত্রী অশোক চ্যাবন, রাজস্ব মন্ত্রী বালাসাহেব থোরাট, স্কুল শিক্ষামন্ত্রী বর্ষা গায়কওয়াড়, চিকিৎসা শিক্ষামন্ত্রী অমিত দেশমুখ এবং বস্ত্রমন্ত্রী আসলাম শেখকে আটক করা হয়েছে।



ন্যাশনাল হেরাল্ডের কথিত অর্থ পাচারের ঘটনায় কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধীকে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের (ইডি) জিজ্ঞাসাবাদের বিরুদ্ধে রাজ্য কংগ্রেসের 'ঘেরাও' কর্মসূচির পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ বৃহস্পতিবার দলের বেশ কয়েকজন নেতা ও কর্মীকে আটক করেছে।  উত্তরপ্রদেশ কংগ্রেস কমিটির অফিসের সামনে ব্যারিকেড লাগিয়ে, জেলা পুলিশ রাজভবনের দিকে মিছিলে আসা দলীয় কর্মীদের বাধা দেয়, যার উপর কর্মীরা স্লোগান তুলে ব্যারিকেডে ওঠার চেষ্টা শুরু করে।  পরে পুলিশ তাদের অনেককে আটক করে।


 

 এবার গোটা বিষয়টি নিয়ে রেণুকা চৌধুরীর ওপর আক্রমণকারী হয়ে উঠেছে বিজেপি।  বিজেপি কর্মী প্রীতি গান্ধী ট্যুইট করেছেন, “পুলিশের সঙ্গে এই ধরনের আচরণ অগ্রহণযোগ্য।  এটা পুলিশ বাহিনীর অপমান।  দুর্ভাগ্যবশত, এই মহিলা একসময় সাংসদ ছিলেন।"

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad