তুমুল বর্ষণ! উত্তরবঙ্গে জারি লাল সতর্কতা - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 17 June 2022

তুমুল বর্ষণ! উত্তরবঙ্গে জারি লাল সতর্কতা



বাংলায় বর্ষা প্রবেশ করেছে।  তারপর থেকে, গুরুতর হিটস্ট্রোকের ঘটনা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে।  যদিও মাঝে মাঝে তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তে থাকে। তবে, এটি দীর্ঘস্থায়ী হয়নি।  বর্তমানে উত্তর-পূর্বের অনেক রাজ্যে ভারী বৃষ্টিপাত পশ্চিমবঙ্গে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ফেলেছে।  



উত্তরবঙ্গের পাঁচটি জেলাতে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে।  এই ৫টি জেলার মধ্যে রয়েছে দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার।  দার্জিলিং, কালিম্পং এবং জলপাইগুড়িতে হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।  অর্থাৎ এই তিন জেলার কিছু কিছু এলাকায় ৭ মিলিমিটার থেকে ২০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।  এই তিন জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণের সতর্কতা জারি করা হয়েছে।  বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাতেরও সম্ভাবনা রয়েছে।



উত্তরবঙ্গের অন্য দুটি জেলা হল কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ার।  এই দুই জেলাতেই লাল আবহাওয়া সতর্কতা জারি করা হয়েছে।  অর্থাৎ এই দুই জেলার কিছু অংশে ৭ থেকে ২০ মিলিমিটার এবং কিছু এলাকায় ২০ মিলিমিটারের বেশি বৃষ্টিপাত হবে।  আবহাওয়া অধিদপ্তর এখানে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির পাশাপাশি বজ্রবিদ্যুৎ ও বজ্রপাতের সতর্কবার্তা দিয়েছে।


রবিবার থেকে দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহারে আবহাওয়ার উন্নতি হতে পারে।  অনেক পর্যটক বর্তমানে দার্জিলিং এবং ডুয়ার্স এলাকায় ছুটি কাটাচ্ছেন।  তাদের এই আবহাওয়া সতর্কতা সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিৎ।  কারণ খারাপ আবহাওয়া যেকোনও ভালো ভ্রমণের অভিজ্ঞতাকে বাধাগ্রস্ত করে।



উত্তরবঙ্গের মালদা, দক্ষিণ দিনাজপুর এবং উত্তর দিনাজপুর এই তিন জেলার মধ্যে দুই জেলা অর্থাৎ দুই দিনাজপুরে হলুদ আবহাওয়া সতর্কতা জারি করা হয়েছে।  অর্থাৎ দক্ষিণ ও উত্তর দিনাজপুরের কিছু এলাকায় ৭ থেকে ১১ মিলিমিটার বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।


কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের ১৫টি জেলায় হলুদ আবহাওয়া সতর্কতা জারি করা হয়েছে।  ফলে ওই অঞ্চলে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।  প্রবল বজ্রপাতের সম্ভাবনাও রয়েছে।



শুক্রবার সকাল থেকেই কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী জেলাগুলি মেঘলা ছিল। গত কয়েকদিন ধরে কলকাতা এবং আশেপাশের জেলাগুলিতে প্রচণ্ড গরমের প্রভাব উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে।  এর প্রধান কারণ আরব সাগর থেকে বঙ্গোপসাগর হয়ে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ুর একটি চক্র তৈরি করা।  যা ঠাণ্ডা বাতাস বইছে।  এর জেরে কলকাতা ও দক্ষিণবঙ্গের অনেক জেলায় তাপমাত্রা কমেছে।


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad