নাবালিকার সঙ্গে দুষ্কর্মের পর বিয়ে বা সন্তানের জন্ম দিলেও অপরাধের গুরুতরতা কমে না: হাইকোর্ট - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 23 July 2022

নাবালিকার সঙ্গে দুষ্কর্মের পর বিয়ে বা সন্তানের জন্ম দিলেও অপরাধের গুরুতরতা কমে না: হাইকোর্ট


যৌন নির্যাতনের পরেও, নাবালিকা ও অভিযুক্তের মধ্যে যদি বিবাহ হয় বা তাদের একটি সন্তানেরও জন্ম হয়, এই অপরাধের গুরুতরতা হ্রাস পায় না। স্পষ্ট বার্তা দিল্লী হাইকোর্টের। আদালত আরও বলেছে, এই ধরনের ক্ষেত্রে, নাবালিকার সম্মতির কোনও অর্থ থাকে না, কারণ তার সম্মতি আইনে অপ্রাসঙ্গিক।


দিল্লী হাইকোর্টের বিচারপতি অনুপ কুমার মেন্দিরাত্তার একটি বেঞ্চ আইপিসির ধারা 363, 376 এবং 366 এবং POCSO আইনের ধারা 4 এবং 5-এর অধীনে নথিভুক্ত মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তির জামিন অস্বীকার করার সময় এই মন্তব্য করেছে।


এই ক্ষেত্রে, নির্যাতিতা নাবালিকার মা পুলিশের কাছে একটি এফআইআর দায়ের করেছেন এবং অভিযোগ করেছেন যে, তার 15 বছরের মেয়েকে কিছু লোক অপহরণ করেছে এবং সে জুলাই 2019 থেকে নিখোঁজ রয়েছে। পুলিশ মামলা নথিভুক্ত করে নির্যাতিতার খোঁজ শুরু করেছে। মোবাইল নজরদারির ভিত্তিতে পুলিশ অবশেষে 5 অক্টোবর 2021-এ ভিকটিমকে উদ্ধার করে। ততক্ষণে সে একটি কন্যা সন্তানের মা হয়েছে এবং সে দেড় মাসের অন্তঃসত্ত্বাও ছিল।


প্রসিকিউশন আদালতকে বলেছে যে, অভিযুক্তের বয়স 27 বছর এবং সে মেয়েটিকে মন্দিরে বিয়ে করতে রাজি করান।


একই সময়ে, আবেদনকারীর পক্ষে আইনজীবী যুক্তি দিয়েছিলেন যে, ভুক্তভোগী এবং আবেদনকারীর মধ্যে একটি সম্মতিপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। এর পাশাপাশি, তিনি যুক্তি দিয়েছিলেন যে, অভিযুক্তরা ভিকটিম এবং তার সন্তানদের যত্ন নেবে।


তবে হাইকোর্ট সাফ জানিয়ে দিয়েছে, নাবালিকা সম্মতি দিলেও তার সঙ্গে যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ। আদালত বলেছে যে, নাবালিকা নির্যাতিতা এবং অভিযুক্তের মধ্যে সম্পর্ক আইনের লঙ্ঘন। এই যৌন নিপীড়নের ফলে একটি শিশুর জন্ম হয় তারপরও তা ধর্ষণের কৃত্য কম হয় না। তাই আদালত ধর্ষণের অভিযুক্তর জামিন নামঞ্জুর করে তার আবেদন খারিজ করে দেন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad