মহারাষ্ট্রে বিজেপির মহাচালে ভয় পেয়েছে অবিজেপি রাজ্যগুলো - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 2 July 2022

মহারাষ্ট্রে বিজেপির মহাচালে ভয় পেয়েছে অবিজেপি রাজ্যগুলো


মহারাষ্ট্রে উদ্ধব ঠাকরের সরকারের পতন ঘটেছে। আর তার প্রভাব বিরোধীদের সংযুক্ত রাজনীতিতে পড়ছে বলেও মনে হচ্ছে। দেশের খুব কম রাজ্যে যেভাবে অ-বিজেপি সরকার রয়ে গেছে, তা কৌশলগতভাবে বিরোধীদের দুর্বল করেছে। মহারাষ্ট্রে শিবসেনা ও এনসিপির সঙ্গে কংগ্রেস একভাবে বিজেপির পথ আটকানোর চেষ্টা করেছিল। কিন্তু সর্বশেষ পরিবর্তনের পর তার প্রচেষ্টায় বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে বললে ভুল হবে না।


নীতির সঙ্গে আপস করে বিজেপির পথ রুদ্ধ করার প্রস্তুতি নিয়েছিল বিরোধীরা। মহারাষ্ট্র এই দিকে সবচেয়ে বড় উদাহরণ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল। এখানে কংগ্রেস ও এনসিপি তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী শিবসেনার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে। এই কৌশলের পিছনে উদ্দেশ্য ছিল ক্ষমতা পাওয়ার কম, কিন্তু দ্রুত আধিপত্যশীল বিজেপিকে রুখতে বেশি। তবে, এখানে শিবসেনার বিধায়কদের বিদ্রোহ আড়াই বছরের পুরনো এই পরীক্ষাকে ব্যর্থ করে দিয়েছে।


মহারাষ্ট্রের আগে, ২০১৫ সালে বিহারে এবং ২০১৩ সালে কর্ণাটকে এই ধরনের পরীক্ষা চালানো হয়েছিল। কংগ্রেস, বিহারে মহাগঠবন্ধন এবং কর্ণাটকে জেডি(এস)-এর সাথে বিজেপির পথ আটকে দাড়িয়েছিল। তবে, ২০১৯ সালের পর বিরোধী দলগুলোর মধ্যে সংশয় তৈরি হয়েছে। বিরোধীরাও এর পিছনে কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির অনুপযুক্ত ব্যবহারকে দায়ী করে৷ কিন্তু মহারাষ্ট্রের ব্যর্থতা আবারও প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বিজেপির প্রতিদ্বন্দ্বীদের। উল্লেখ্য, জেএমএম-কংগ্রেস জোট নিয়ে ঝাড়খণ্ডে অনেক জল্পনা চলছে।


আসলে বিরোধী দলের কাছে ইস্যুর অভাবও স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান। অতীতে যেসব ইস্যুতে বিরোধী দলগুলো নির্বাচনে নেমেছিল, সেগুলো তেমন কার্যকর ছিল না। সেটা দুর্বল অর্থনীতি হোক, বেকারত্ব হোক বা চীনের ক্রমবর্ধমান দখল। শুধু তাই নয়, করোনাকালীন অসুবিধা, নোটবন্দীকরণ এবং কৃষক সংস্কার নিয়ে বিক্ষোভেরও নির্বাচনে কোনও প্রভাব পড়েনি। কয়েকটি আঞ্চলিক দল যদিও বিজেপিকে প্রতিহত করতে সফল হয়েছে, কিন্তু কংগ্রেস এখন পর্যন্ত এর থেকে কোনও পথ বের করতে পারেনি।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad