মাছের পুকুরে এই গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো শুরু করুন - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 14 July 2022

মাছের পুকুরে এই গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো শুরু করুন



ভারতের উপকূলীয় অঞ্চলে মাছ চাষের প্রবণতা অনেক, কিন্তু এখন সমতল ভূমিতে চাষের পাশাপাশি পুকুর বা ট্যাঙ্কে মাছ চাষের ব্যবসাও বেশ বিখ্যাত হয়ে উঠছে, যার ফলে কৃষকরা দ্বিগুণ আয় করতেন। জমির সঠিক ব্যবহারও হয়।  মাছ চাষের ব্যবসাকে আরও লাভজনক করতে পরিবর্তনশীল ঋতুতে প্রয়োজনীয় কাজ করতে হবে, যাতে সুস্থ মাছ উৎপাদন পাওয়া যায়।  বিশেষ করে বর্ষাকালে, যখন বৃষ্টিতে পোকামাকড় এবং শ্যাওলা জমাট বাঁধতে শুরু করে, যা মাছের গুণমানকে প্রভাবিত করতে পারে।  এমতাবস্থায় মাছ চাষের পরামর্শ অনুসরণ করা উপকারী।




এই বিষয়গুলো মাথায় রাখুন (মাছ চাষের সতর্কতা ও প্রতিকার): 


 মনে রাখতে হবে মাছের পুকুর পরিষ্কার করার পর তাতে স্প্যান বসাতে হবে, রাসায়নিক সার 15 দিন পর ব্যবহার করতে হবে।


 আপনার সুবিধা অনুযায়ী, আপনি প্রতি একর 6000-8000 হারে বা একর প্রতি 2000-4000 হারে পুকুরে ফিঙ্গারলিং লাগাতে পারেন।


 পুকুরের জল পরিষ্কার করার জন্য, প্রতি 15 দিন অন্তর প্রতি একর 10-15 কেজি হারে চুন ব্যবহার করাও উপকারী।


 বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির কারণে আর্দ্রতা বেড়ে যায়, যার কারণে পুকুরের জলে অক্সিজেনের পরিমাণ কমতে থাকে।  এমতাবস্থায় প্রতি একর পুকুরে 400 গ্রাম অ্যাডক্সি নামক ওষুধ স্প্রে করতে হবে।


 মৌসুমে তাপমাত্রা বেড়ে গেলে মাছের খাবারের সংখ্যা অর্ধেক করে দিন এবং মাছের খাদ্য পরিষ্কার ও পরীক্ষা করার পরই পুকুরে ফেলুন।


 পুকুরের ঘনত্ব বেড়ে গেলে কিছু মাছ পুকুর থেকে ফেলে দিতে হবে।  এর পরে, সকাল এবং সন্ধ্যায় 2 ঘন্টা পুকুরে এরেটর ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়।


 বৃষ্টির সময়, প্রায়ই পুকুর এবং জলে সংক্রমণের আশঙ্কা থাকে, এর প্রতিরোধের জন্য, প্রতি মাসে 400 গ্রাম।  পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেটের দ্রবণ তৈরি করে একর প্রতি পুকুরে দিলে উপকার পাওয়া যায়।


 পুকুরে অক্সিজেন কম থাকলে ফুলকা রোগের সম্ভাবনা থাকে, যা মাছও মারা যেতে পারে।  এই সমস্যা সমাধানের জন্য প্রতি একর পুকুরে 500 গ্রাম চুন মিশিয়ে পুকুরে ফেলুন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad