লটারি জিততেই সানাম বেওয়াফা! ৩৪ কোটি হাতিয়ে পগারপার প্রেমিকা - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 27 August 2022

লটারি জিততেই সানাম বেওয়াফা! ৩৪ কোটি হাতিয়ে পগারপার প্রেমিকা


কথায় বলে, 'টাকা দেখলে কাঠের পুতুলও হাঁ করে'। এমনকি আজকের পৃথিবীতে এমন অনেক মানুষ আছে, যাদের কাছে টাকাই প্রতিটি সম্পর্কের উপরে এবং সেই অর্থের জন্য, তারা তাদের বিশ্বাস, বিবেক বিসর্জন দিতে পিছপা হয় না। প্রেমিকের সঙ্গে এমনই এক কাণ্ড ঘটিয়েছেন এক মহিলা। যুগল হিসেবেই লটারি কেটে তারা জয়ী হন। কিন্তু বিপুল পরিমাণ অর্থ দেখে প্রেমিকার মন বদলে যায় দোলা হয়ে ওঠেন এবং পুরস্কারের টাকা নিয়ে পগারপার হয়ে যান তিনি। ইংল্যান্ডের নাটিংহোমে লরা হোয়েল এবং কার্ক স্টিভেনস একসঙ্গে ৩৪ কোটির জ্যাকপট জিতেছেন। কিন্তু সব টাকা নিয়ে পালিয়ে যান প্রেমিকা। অথচ তারা টাকা পাওয়ার সাথে-সাথেই তাদের ব্যবসা বাড়ানো এবং বিলাসবহুল জীবনযাপনের স্বপ্ন দেখেছিলেন। এই ঘটনার পর, প্রেমিকার বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ আনলেন স্টিভেনস।


লিভ-ইন রিলেশনশিপে বসবাসকারী দম্পতি প্রতি মাসে লটারিতে অল্প কিছু টাকা বিনিয়োগ করেন, কিন্তু জ্যাকপট জিততেই চম্পট দেয় প্রেমিকা। লরা এবং স্টিভেনস একই বাড়িতে থাকতেন। বাড়িটি স্টিভেনসের ছিল কিন্তু তিনি কখনই লরার কাছে এর জন্য ভাড়া চাননি। তারা দুজনেই লটারি জেতার সাথে তাদের ব্যবসা বাড়ানো এবং একসাথে বিলাসবহুল জীবনযাপন করার স্বপ্ন দেখেছিলেন। এজন্য উভয়েই প্রতি মাসে লটারিতে ২৩৫২ টাকা বিনিয়োগ করতেন। কিন্তু জেতার পরও কিছুই পেলেন না স্টিভেনস।  


দ্য সান অনুসারে, লরা এবং স্টিভেনস ন্যাশনাল লটারির 'সেট ফর লাইফ ড্র'-এ ৩৪ কোটি টাকার জ্যাকপট জিতেছেন। গত বছরের মার্চেই তারা এই লটারি জিতেছিলেন, যার অধীনে তিনি প্রতি মাসে £১০,০০০ অর্থাৎ প্রায় ৯ লাখ ৪২ হাজার টাকা পান এবং তারা প্রায় ৩০ বছর এই পরিমাণ টাকা পাবেন।


স্টিভেনসের মতে, লটারি জেতার পর ১৮ মাস সবকিছু ঠিকঠাক ছিল। তারা তাদের ব্যবসার কথা ভাবছিল, দম্পতি নাইট ঘোস্ট হাউসের ব্যবসা শুরু করেছিল যা লরার ধারণা ছিল। বহু বছর একসঙ্গে থাকার পর, স্টিভেনস এখন লরাকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু তিনি কখনও তা স্পষ্ট করেননি। স্টিভেনস তাদের মধ্যে উত্তেজনা দূর করার জন্য অনেক চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু এটি হওয়ার আগেই লরা স্টিভেনসের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে এবং একাই পুরো ৩৪ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। নিজের আলাদা বিলাসবহুল বাড়ি কেনেন, যেখানে দুজনেরই অর্ধেক-অর্ধেক টাকার ভাগ পাওয়ার কথা। কিন্তু লটারিতে লরার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের কথা উল্লেখ থাকায় তার অ্যাকাউন্টে টাকা চলে আসে এবং এই যুগল বিবাহিত ছিলেন না, তাই লরা সমস্ত অর্থের একমাত্র মালকিন হয়ে ওঠেন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad