এইডসের লক্ষণ ও প্রতিরোধের টিপস - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 15 September 2022

এইডসের লক্ষণ ও প্রতিরোধের টিপস


সঠিক সময়ে এইচআইভির চিকিৎসা না হলে এই সমস্যা এইডসে পরিণত হয়।  যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল তাদের এইডস হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি।  এইডস রোগের সাথে, সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার শরীরের ক্ষমতাও হ্রাস পায় এবং কিছু ক্ষেত্রে এটি শেষও হতে পারে।  সারা বিশ্বের বিজ্ঞানী ও চিকিৎসকরা এইডস রোগের প্রতিষেধক ও প্রতিষেধক খুঁজছেন, কিন্তু এখন পর্যন্ত তারা কোনো সফলতা পাননি।  সঠিক সময়ে এইডসের লক্ষণগুলো চিনতে পারলে এবং সঠিক চিকিৎসা নিলে এই রোগের ঝুঁকি কমানো যায়।  এইডস রোগ সম্পর্কে তথ্যের অভাবে মানুষের এই সমস্যা হয়, তারা জানেও না।  এইডস রোগের লক্ষণ দেখা দিলে প্রথমেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।  রোগ নির্ণয়ের পরবর্তী চিকিৎসা আপনাকে সুস্থ জীবনযাপন করতে সাহায্য করতে পারে।  এইডসে, কিছু লক্ষণ রয়েছে যা রোগীর সংক্রমণের ৪ থেকে ৫ বছর পরে দেখা দেয়।  আসুন জেনে নেই এইডসের লক্ষণ ও প্রতিরোধের টিপস।


 এইডসের লক্ষণ


এইচআইভি পজিটিভ থাকা অবস্থায় অরক্ষিত যৌন মিলন এবং এই ধরনের সংক্রামিত ব্যক্তির দ্বারা ব্যবহৃত ইনজেকশন পুনঃব্যবহারের মাধ্যমে এইডস ছড়ায়।  এইচআইভি পজিটিভ কোনো ব্যক্তির রক্ত ​​যদি অন্য কোনো ব্যক্তিকে দেওয়া হয়, তাহলে তা রক্ত ​​গ্রহণকারী ব্যক্তির মধ্যেও এইডস রোগ ছড়াতে পারে।  এ ছাড়া এইচআইভি পজিটিভ গর্ভবতী মহিলার সন্তানের মধ্যে এই রোগের ঝুঁকি থাকে।  এইডস রোগের বেশিরভাগ লক্ষণ কয়েক বছর পর দেখা দিতে শুরু করে।  এইডসের কিছু উপসর্গও আছে যেগুলো অসুস্থতার ৪ থেকে ৫ বছর পর দেখা যায়।  বাবু ঈশ্বর শরণ হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ চিকিৎসক ডাঃ সমীর বলেন, এইডস রোগীদের মধ্যে দেখা যায় এমন কিছু প্রধান লক্ষণ প্রথম দিকে বোঝা যায় না।  কিন্তু রোগের বৃদ্ধির সাথে সাথে এর লক্ষণও বাড়তে থাকে।  এইডসে আক্রান্ত রোগীর দেখা কিছু প্রধান উপসর্গ নিম্নরূপ, যেগুলো অসুস্থতার কয়েক বছর পর দেখা দেয়।


 হঠাৎ ওজন কমে যাওয়া


 প্রবল জ্বর ও কাশি অব্যাহত থাকে।


 ত্বক, চোখের চারপাশে দাগ, নাক এবং মুখ।


 স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা


 শরীরে অবিরাম ব্যথা।


 ঘন ঘন অসুস্থ হয়ে পড়া


 যক্ষ্মা সমস্যার লক্ষণ দেখাচ্ছে।


 পেট খারাপ এবং ডায়রিয়া।


 ত্বকে ফুসকুড়ি।


 যৌনাঙ্গে ক্ষত।


 এইডস প্রতিরোধের টিপস


 বিশ্বব্যাপী লাখ লাখ মানুষ এইডস রোগে আক্রান্ত।  যেহেতু এই রোগের কোন প্রতিষেধক নেই, তাই এটি এড়াতে প্রয়োজনীয় সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।  এইডস রোগের ক্ষেত্রে, আপনি যদি একটু যত্ন নেন, তবে এটি আপনার জন্য মারাত্মক হতে পারে।  এইডস হলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও দুর্বল হতে শুরু করে, যার কারণে আপনি তাড়াতাড়ি সংক্রমণের শিকার হতে পারেন।  এ কারণে শরীরে আরও নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে।  এইডস প্রতিরোধ করতে হলে এই বিষয়গুলো অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে।


 অনিরাপদ যৌন মিলন এড়িয়ে চলুন, এই সময়ে কনডম ব্যবহার করুন।


 এইচআইভি পজিটিভ ব্যক্তির রক্ত ​​গ্রহণ এড়িয়ে চলুন।


 ইনজেকশন নেওয়ার সময় নিশ্চিত হয়ে নিন যে এটি নতুন।


 লক্ষণ দেখা দিলে প্রথমেই একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।


 এইডসের চিকিৎসার পাশাপাশি সুষম ও পুষ্টিকর খাবার খান।


 নিয়মিত ব্যায়াম, যোগব্যায়াম এবং ধ্যান অনুশীলন করুন।


 এইডস একটি মারাত্মক রোগ হিসেবে বিবেচিত হয়।  সঠিক সময়ে চিকিৎসা না নিলে অনেক গুরুতর সমস্যাও হতে পারে।  তাই এইচআইভিতে আক্রান্ত হলে সঠিক সময়ে চিকিৎসা করাতে হবে।  এইডস বা এইচআইভির উপসর্গ উপেক্ষা করলে মারাত্মক সমস্যা হতে পারে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad